ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   তেতুল খাওয়ার আট উপকারিতা

তেতুল খাওয়ার আট উপকারিতা

নভেম্বর ৯, ২০২০ - ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ

তেঁতুল খাওয়া নিয়ে নারী-পুরুষের কিছুটা বিভেদেও রয়েছে। তবে তেঁতুলের কথা শুনলেই যে কারো সবার আগে জিহ্বায় পানি চলে আসে। তেঁতুলের উপকারিতা নিয়ে কোনো বিভেদ নেই। যিনিই তেঁতুল খাবেন তিনিই এর উপকারিতা পাবেন। তেঁতুল কাঁচা ও পাকা উভয় অবস্থায় খাওয়া যায়। তেঁতুলের আঁচারের কথা মনে হলেই খেতে ইচ্ছে করে। তেঁতুলে আছে খনিজ পদার্থ, আমিষ, চর্বি শর্করা, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ক্যাবোটিন, ও ভিটামিন সি। যা মানুষের হজম শক্তি বাড়াতে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করে।

তেতুলের ৮ উপকারিতা সম্পর্কে জেনে রাখুন

১. নারীরা গর্ভাবস্থায় তেঁতুল খেতে পছন্দ করেন। কারণ তেঁতুলের টক গর্ভবতী নারীদের মর্নিং সিকনেস থেকে মুক্তি দেয়।

২. একজন গর্ভবর্তী নারীর কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে তেঁতুল খেলে সেই সমস্যার সমাধান আসবে। এছাড়া ব্লাড প্রেসার থাকলেও সেটি নিয়ন্ত্রণে রাখে। তেঁতুল পাতা, ছাল ও শিকর ডায়েরিয়া এবং পেটের ব্যথা সারাতে ব্যবহার করা হয়।

৩. অনেকেই হয়তো ধারণা করেন তেঁতুল মস্তিষ্কের ক্ষতি করে। এ ধারাণটি ভুল। কারণ তেঁতুলে রয়েছে অ্যাসকরবিক অ্যাসিড যা মানুষের খাবার থেকে আয়রন সংগ্রহ করে দেহের বিভিন্ন কোষে পরিবহন করে। যা মস্তিষ্কের জন্য খুব দরকার।

৪. তেঁতুলের কচিপাতায় যথেষ্ট পরিমাণে অ্যামাইনো অ্যাসিড। কচিপাতার রসের শরবত সর্দি-কাশি, পাইলস ও প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া কমাতে বেশ কাজে লাগে।

৫. সামন্য পরিমাণ লবন ও তেঁতুল মিশিয়ে খেলে মানুষের বদহজমের সমস্যা দূর হয়ে যায়। মানুষের স্কার্ভি রোগ ভাল হয়। তেঁতুল পরিমাণ মতো খেলে কোনো ক্ষতি নেই। তবে মাত্রাতিরিক্ত তেঁতুল খাওয়া থেকে বিরত থাকাই ভাল।

৬. চিকিৎসকদের কাছে ডায়াবেটিস রোগী গেলে তারা পরামর্শ দেন তেঁতুল খাওয়ার। কারণ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে তেঁতুলের উপকারিতা বেশি। তেঁতুল রক্তে চিনির মাত্রা কমাতে সাহায্য করে।

৭. শীতের মৌসুমে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে তেঁতুল খেতে পারেন। কারণ তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়া উপাদান রয়েছে।

৮. প্রসাব করতে গিয়ে জ্বালা করলে তেঁতুল খেতে পারেন। দেখবেন প্রসাবের জ্বালার সমাধান মিলছে।

আপনার মতামত জানানঃ