ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রধান সংবাদরাজনীতি   »   তৃণমূল নেতা-কর্মীদের আত্মত্যাগই আওয়ামী লীগকে ধরে

তৃণমূল নেতা-কর্মীদের আত্মত্যাগই আওয়ামী লীগকে ধরে

October 22, 2016 - 10:00 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, তৃণমূল নেতা-কর্মীদের আত্মত্যাগই আওয়ামী লীগকে ধরে রেখেছে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২০তম জাতীয় সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বক্তব্যের শুরুতে উপস্থিত কাউন্সিলর, ডেলিগেট, দেশি-বিদেশি আমন্ত্রিত অতিথিদের অভিবাদন জানিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিহতদের স্মরণ করেন শেখ হাসিনা। পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধে নিহত সব শহীদ ও জাতীয় চার নেতাসহ স্মরণ করেন তিনি। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠানকালীন সময় তৃণমূলের সকল নেতার অবদানকে স্মরণ করেন তিনি।

বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ায় প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধন : সরকারের নেওয়া গৃহীত পদক্ষেপগুলো তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, এভাবেই আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে চাই। প্রবৃদ্ধি আমরা ৭ দশমিক একভাগে উন্নীত করেছি। কিন্তু এখানেই আমি থেমে থাকতে চাই না।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশেকে আমরা বিশ্বের মধ্যে একটি উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শান্তিপূর্ণ দেশ। সে কারণেই ঘোষণা দিয়েছি জিরো টলারেন্স টু টেররিজম। টেররিজমকে আমরা কখনো প্রশ্রয় দেব না। এরমধ্যে আমরা সবরকম ব্যবস্থা নিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের মাটিতে কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতে পারবে না। প্রতিবেশী দেশে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাবার জন্য আমাদের ভূখণ্ডকে আমরা কাউকে ব্যবহার করতে দেব না। এটা আমাদের সিদ্ধান্ত।

‘‘দক্ষিণ এশিয়া হবে প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের সেতুবন্ধন। দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ একটি প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের সেতু বন্ধনের দেশ হিসেবে হবে ‘শান্তিপূর্ণ’ দেশ। তাই আমরা আঞ্চলিক যোগাযোগ ব্যবস্থার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি।

বাংলাদেশে দারিদ্র্য বলে কিছু থাকবে না : ‘২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত, ক্ষুধামুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করে নেতা-কর্মীসহ সকল নির্বাচিত প্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের যত নির্বাচিত প্রতিনিধি এবং আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী এবং সহযোগী নেতা-কর্মীদের প্রতি আমার আহ্বান হল, বাংলাদেশকে আমরা দারিদ্র্যমুক্ত করতে চাই। আপনারা যারা আজকে বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছেন, আপনার এলাকায় গিয়ে তালিকা বানান, কতজন দারিদ্র্য মানুষ আছে, গৃহহারা মানুষ আছে, কোন মানুষের ঘর বাড়ি নাই, ঠিকানা নাই। তাদের জন্য আমরা বিনামূল্যে ঘর তৈরি করে দেব। তারা জীবনে যাতে বেঁচে থাকতে পারে। আমরা তার ব্যবস্থা করে দেব। কারণ তারা আমাদের নাগরিক। আওয়ামী লীগ জনগণের সংগঠন। কাজেই জনগণের কল্যাণ করাই আমাদের দায়িত্ব। আমরা যদি এই কাজ সঠিকভাবে করতে পারি, ইনশাল্লাহ এই বাংলাদেশে কোন দরিদ্র্য থাকবে না।
দারিদ্র্যর হার ৯৭ ভাগ ছিল। ২২ দশমিক ৪ ভাগে নামিয়ে এনেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে আমাদের প্রবৃদ্ধি ৭ ভাগ থেকে ৮ হতে ১০ ভাগের ওপর প্রবৃদ্ধি অর্জন নিয়ে যাব। এখন প্রত্যেকের মাথাপিছু আয় এক হাজার ৪৬৬ মার্কিন ডলার। এই আয় এমনভাবে বৃদ্ধি করবো যাতে দেশের মানুষ আর কখনো দরিদ্র না হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। দারিদ্রের হার শূন্যের কোটায় নামাব এবং ক্ষুধামুক্ত সমাজ গঠন করবো। প্রতিটি মানুষ শিক্ষিত হবে।

 

আপনার মতামত জানানঃ