ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   তিস্তায় বহুদিন পর জুয়া ও সিন্ডিকেট মুক্ত পরিবেশ পেয়ে বেশ সন্তোষ্ট দর্শনার্থীরা

তিস্তায় বহুদিন পর জুয়া ও সিন্ডিকেট মুক্ত পরিবেশ পেয়ে বেশ সন্তোষ্ট দর্শনার্থীরা

September 18, 2016 - 10:17 AM

মহিনুল ইসলাম সুজন,নীলফামারী জেলা প্রতিনিধিঃঃ-পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা, নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার দুই সীমানার মাঝেই অবস্হিত দেশের সর্ব বৃহৎ সেচ প্রকল্প ও প্রাকৃতিক বিনোদন কেন্দ্র তিস্তা অববাহিকায় এবার দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজারও মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে এখানে ঘুরতে আসা বিগতদিনের একাধিক জুয়ার আসর ও বখাটেদের সিন্ডিকেট যুক্ত তিস্তা এলাকাটিকে এবার প্রশাসনের আন্তরিক হস্তক্ষেপে মুক্ত মনোরম পরিবেশ পেয়ে বিনাদৃধায় প্রান ভরে হই-হুল্লোড় ও আনন্দ উপভোগ করতে পেরে পুর্বের চেয়ে এবারের সার্বিক  অসাধারন পরিবেশ পরিস্হিতির জন্য পুলিশ প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেকটাই প্রসংশা করাসহ বেশ সন্তোষ্ট প্রকাশ করেছেন দর্শনার্থীরা।
নগর জীবনের ব্যস্ততা কাটিয়ে, শত বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে নাড়ীর টানে ঈদের ছুটিতে বাড়ি ফেরা মানুষগুলো যেন নতুন জীবন ফিরে পেয়েছে এখানে এসে। ঈদের নামাজ শেষে দুপুর হতে না হতেই শুরু হওয়া তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় হাজারো দর্শনার্থীর উপস্থিতি আজ শনিবার ঈদের পাচঁদিন পেড়িয়ে গেলেও একই দেখায় তাই যেনো বলে দিলেন। ঈদের পাচদিন পেরিয়ে গেলেও এখনো পরিবার পরিজন নিয়ে ভ্রমণপ্রিয় মানুষদের মিলন মেলায় ভরপুর তিস্তা ব্যারেজ এলাকা।শিশু থেকে শুরু করে, যুবক-যুবতী,তরুণ-তরুণী, বৃদ্ধ-বৃদ্ধা, গরিব-ধনী, এ যেন সত্যিই এক মিলন মেলা।পর্যটকদের বহনকারী বিভিন্ন সাজে সজ্জিত গাড়িগুলোতে শোভা পাচ্ছিলো নানান ধরনের সাউন্ড সিস্টেমের গানে-গানে ও আনন্দ উল্লাসেই।বিভাগীয় শহর, জেলা শহর, উপজেলা শহর ও প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চল থেকে আসা  পর্যটকদের সাউন্ডবক্স,মাইক বাজিয়ে নেচে গেয়ে বেশ আনন্দ করতে দেখা গেছে। বাস, মাইক্রোবাস, নসিমন, করিমন, রিকশা, অটোরিকশা, মোটরসাইকেল আর পায়ে হাটা মানুষদের উপস্হিতিতে এ যেন মনের খোরাকের সুন্দর উপভোগ্য এক পরিবেশে ভরপুর।
তিস্তা এলাকায় আরো বিনোদনের উপভোগের জন্য বেশকিছু ইস্প্রিট বোট, পালতোলা নৌকায় জনপ্রতি মাত্র ১০/২০ টাকায় দর্শনার্থীদের নিয়ে তিস্তা নদীর বুকে ভেসে বেড়াচ্ছে। এ ছাড়াও মাঠে,নদীর পাড়ে বসে আড্ডা, নদীর উপরে বেধে রাখা লজ্জ, ইস্প্রিট বোটে বসে থাকা, দলবেধে ব্যারেজসহ বিভিন্ন স্হানে ছবি উঠানো,নানান স্টাইলে সেলফি তোলা, সামিয়ানা টেনে সাইন্ড সিস্টেমে গান বলা,গান শোনা,ড্যান্স করা আনন্দের মাত্রাকে আরো কয়েকগুন বাড়িয়ে দিয়েছে দর্শনার্থীদের।
আর এখানে দর্শনার্থীদের কথা মাথায় রেখে একাধিক দোকানিরা ভাম্যমান অনেক দোকান বসিয়ে বেচা-কেনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। যাদের মধ্যে রয়েছেন শিশুদের খেলনার দোকান,চায়ের দোকান,খাবারের দোকান,আইসক্রিমের দোকান,চানাচুর-ঝালমুড়ির দোকানসহ নানান রকমারি জিনিষের দোকান।হকারের হাতে হাতে দুলছে শিশুদের আকৃষ্ট করতে-খেলনা বেলুন,পুতুল,বাশিঁসহ অনেক রকমের খেলনা সামগ্রী।2016-09-18-04-01-22
এক কথায় বলা যেতে পারে দেশের অন্যতম প্রাকৃতিক বিনোদন কেন্দ্র তিস্তায় অতিতের যে কোনো সময়ের ন্যাক্কারজনক পরিস্হিতি,একাধিক বখাটেদের দর্শনার্থীদের ব্লাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নেয়া,অপ্রস্তুত করা,মোবাইল ফোন কেরে নেয়া,মিথ্যে অপবাদে জিম্মি করে মোটা অংকের অর্থ দাবি করা,হট্রগোল করা,সামাজিক ভাবে হেয়প্রতিপন্ন করাসহ কোনো ধরনের কু-চক্রি মহল গুলো কু-কর্মই চালাতে পারেনি।আর তাই এবারের আনন্দ উপভোগে কোনো প্রকার দিধা,সংকোচ,সংশয়,ভয়-ভীতি ছিলনা বিনোদন পিপাসু মানুষদের মনে পরতে হয়নি কোনো প্রকার বিপাকে।
ঈদের চারদিন পেরিয়ে শনিবার বিকালে তিস্তা এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা মিলে লালমনিরহাটের ব্যবসায়ী বাদশার সাথে।এবারের তিস্তার পরিবেশের কথা জানতে চাইলে তিনি জানান,গত বছরে নববধু,শ্যালক ও দুই ভাগ্নিকে নিয়ে এখানে ঘুরতে এসে পরেছিলাম বখাটেদের হাতে।তারা আমার ভাগ্নিকে জড়িয়ে আমাকে মিথ্যে অপবাদ দিয়ে আমার মোবাইল ফোন,মানিব্যাগ ও বিয়ের আংটিটি জোর পুর্বক খুলে নিয়ে উল্টো আমার কাছে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে আমাকে ছেড়ে দেন।তাই এবার এখানে ঘুরতে এসেছি তিন ছেলে বন্ধু মিলেই।পরে পরিবেশটা আগের তুলনায় অনেক ভালো মনে হওয়ায় এবং স্হানীয় বেশ কিছু ব্যক্তির নিকট জানতে পারি তিস্তা টোলে নতুন ইনচার্জ সাবইন্সপেক্টর সেলিম রেজা আসবার পর থেকে  এখানকার পরিবেশের অনেক উন্নতি হয়েছে তাই পরে বাড়িতে ফোন করে পরিবারের সকলকে এখানে ঘুরতে এনেছি।2016-09-18-04-14-13
নীলফামারী সদর হতে বেড়াতে আসা সৌরভ বলেন,গত দু বছর আগে আমাদের মহল্লার ২৫/৩০ জন ছোট ভাইয়েরা পিকআপ নিয়ে এখানে ঘুরতে আশলে এখানকার সিন্ডিকেটের মাদকসেবী বেশ কিছু যুবকেরা তাদের সাথে গায়ে পড়ে ঝগড়া লাগিয়ে বেশকিছু ছেলের মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে তাদের বেধরক পিটিয়ে উল্টো আনছার ক্যাম্পে পিকআপটি আটকিয়ে রাখলে আমি এসে মুচলেকা দিয়ে পিকআপটি নিয়ে যেতে পারলেও তাদের মোবাইল গুলোর হদিস আর পাইনি।সেই সময়ে এই এলাকায় পুলিশ ও আনছারের সামনে অনেক জুয়ার আসর বসতে দেখলেও এবার এখানে স্ত্রীকে নিয়ে ঘুরতে এসে পরিবেশটা অনেক শান্ত ও সুন্দর মনে হয়েছে।যদি এখানে এই পরিবেশ অব্যাহত থাকে তবে অবশ্যই আগামীতে বিশেষ কোনো দিনে এখানে পুরো পরিবার নিয়েই বেড়াতে আসব।
শুনেছি এখানকার পুলিশ নাকি জেলা পুলিশ সুপারের নির্দেশে মাদক ও জুয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করেছেন।আগে তো তিস্তা ব্যারেজ হয়ে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মাদকের বড় বড় চালান পাচার হত,এখন নাকি এ ব্যারেজ দিয়ে বিন্দুমাত্র মাদকও পাচার অসম্ভব।আমরা পুলিশের এ রকম কাজের ধন্যবাদ জানাই,আপনারাও(সাংবাদিকরা) যতটুকু পারেন এখানকার পুলিশকে সহযোগীতা করবেন।যাতে করে এখানকার পরিবেশটা ভালো থাকে।একই কথা বলেন,ডোমারের আলামিন,সোহাগ,তানভির ও জলঢাকার-সোলেমান,মানিক,হৃদয়।2016-09-18-04-15-10-1
এ দিকে তিস্তা ব্যারেজ এলাকার একাধিক প্রত্যেক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা গেছে গত মাসের ২১শে অক্টোবর তিস্তা অববাহিকায় অবস্হিত দোয়ানী পুলিশ ফাড়িতে ও তিস্তার টোলে যোগদান করা নতুন ইনচার্জ  সাবইন্সপেক্টর-সেলিম রেজা যোগদান করবার পর থেকে তার রাতদিন নিরলস পরিশ্রমে খুব সামান্য দিনের মধ্যেই এক সময়ের মাদকের নিরাপদ রুট হিসেবে পরিচিত এবং জুয়ার আতুড়ঘর তিস্তা এখন মাদক-জুয়ার জিরো টলারেন্সে নেমে আসতে বাধ্য হয়েছেন।তারা জানান, প্রতি ঈদের আগের দিন থেকে এখানে স্হানীয় বেশ কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিদের যোগসাজসে ও আতাতে ঈদের দশদিন পেড়িয়ে গেলেও জুয়ার আসর যেনো ফিরাতই না।
সেই সাথে এ এলাকার সাধারন মানুষের কাছে পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হারানো ইমেজ ফিরে আসতে শুরু করেছেন যা সমাজের সকলের কাম্য।

আপনার মতামত জানানঃ