ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীকে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম

তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীকে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম

September 20, 2016 - 11:28 AM

শেরপুর প্রতিনিধি: ভালবাসার বিয়ে টিকলো না । পারিবারিক কথার জেড় ধরে স্ত্রী ফেরদৌসী বেগম (৩২) কে ধারালো দা দিয়ে মাথায় ও শরীরে উপযোর্পরী কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে পালিয়েছে তালাকপ্রাপ্ত পাষন্ড স্বামী আলামগীর হোসেন (৩৮)। ইদের দিন মঙ্গলবার বিকেলে নালিতাবাড়ী কাচাড়ী পাড়ায় ভাড়া বাড়ীতে তালাকপ্রাপ্ত স্বামী আলামগীর হোসেন এ ঘটনা ঘটায়।

মুমুর্ষূ অবস্থায় এলাকাবাসী ফেরদৌসী কে নালিতাবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করে। অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরনে ফেরদৌসীর জীবন সক্কটার্পূন । উভয়ের বাড়ী শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার গোজাকুড়া গাড়োভিটা নামক স্থানে ।  aloa   

পরিবার, পুলিশ ও এলাকাবাসীর সূত্রে, নালিতাবাড়ী উপজেলার গোজাকুড়া গাড়ো ভিটা এলাকার মৃত জৈননুদ্দিন মিয়ার মেয়ে ফেরদৌসী বেগম ঢাকায় গার্মেন্টেসে ১০ বছর ধরে চাকুরী করত । চাকুরীর সূত্র ধরে বগুড়ার আসলামের সাথে ফেরদৌসীর ১ম বিয়ে হয় । সে ঘরের রয়েছে দুই ছেলে-মেয়ে। স্বামী সংসার নিয়ে ভালই কাটছিল ফেরদৌসীর দাম্পত্য জীবন । এদিকে গার্মেন্টেসে চাকরী করায় গামের্ন্টকর্মী আলমগীরের সাথে দেখা হয় ফেরদৌসীর । শুরু হয় কথা । অত:পর ভালবাসা । বিবাহিত আলমগীরের মিষ্টি মধুর কথায় ফেরদৌসী সব কিছু ভুলে যায় । বিভোর হয়ে যায় প্রেম মগ্নে । এদিকে ভালমন্দ কথায় ভেঙ্গে যায় আসলামের সুন্দর সাজানো গোছানো সংসার । তছনছ হয়ে যায় সবকিছু । স্বামী সংসার না হওয়ায় দুই সন্তান নিয়ে ফেরদৌসী চলে আসে মায়ের বাড়ী নালিতাবাড়ীর গোজাকুড়ায় । মায়ের কাছে সন্তান রেখে আবার চলে যায় ঢাকায় ।alomgir-pic-2 এভাবেই চলছিল দিন ।  ভালবাসার নজরে ফেরদৌসীও রাজি হয়ে যায় । ৪বছর পূর্বে বিয়ে করে তারা । কিছুদিন যেতে না যেতেই শুরু হয় নানা বিষয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বিবাদ । ভেঙ্গে যায় সম্পর্ক । আলমগীর ফেরদৌসী মাঝে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় । ডিভোর্সের পরও পিছু ছাড়ে না আলমগীর । এই ইদুল আজাহার দিন আলমগীর নালিতাবাড়ীর কাচাড়ীপাড়ার ফেরদৌসীর ভাড়া বাড়ীতে আসে । পারিবারিক কথার জের ধরে এক পর্যায়ে তালাকপ্রাপ্ত স্বামী আলমগীর ফেরদৌসী কে ধারালো দা দিয়ে ঘরেই কোপাতে থাকে । অসহায় ফেরদৌসী ঘর থেকে বেড় হয়েও বাচতে পারেনি বাহিরে গিয়েও আরো কয়েক কোপ দেয় আলমগীর । দায়ের কোপে মাথাসহ শরীলের অন্যান্য অংশ ক্ষত বিক্ষত হয়ে যায় ফেরদৌসীর । পরে এলাকাবাসী ফেরদৌসীকে হাসপাতালে ভর্তি করে। মুমুর্ষ আহত ফেরদৌসীর বলেন, তালাক প্রাপ্ত আলমগীর অহেতুক তুচ্ছ কথায় আমাকে জীবনে মেরে ফেলার জন্য দা দিয়ে কুপিয়েছে । আমি এর বিচার চাই।  এব্যপারে ফেরদৌসীর মাতা নুরজাহান বাদী হয়ে নালিতাবাড়ী থানার মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১১। এব্যপারে নালিতাবাড়ী থানার এসআই গিয়াস উদ্দিন বলেন, ক্ষত বিক্ষত অবস্থায় হাসপাতালে ফেরদৌসী দেখেছি । দ্রুত আসামী ধরার চেষ্টা অব্যাহত আছে ।

 

আপনার মতামত জানানঃ