ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   তাবেলা সিজার হত্যা মামলার চার্জশিট গ্রহণ

তাবেলা সিজার হত্যা মামলার চার্জশিট গ্রহণ

August 24, 2016 - 9:34 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর গুলশানে ইতালি নাগরিক তাবেলা সিজার হত্যা মামলায় ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও প্রাক্তন ওয়ার্ড কমিশনার এম এ কাইয়ুমসহ সাতজনের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত চার্জশিট গ্রহণ করেছেন।

 

বুধবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা চার্জশিটটি গ্রহণ করেন।

 

মামলাটিতে কাইয়ুম চৌধুরী এবং মো. সোহেল ওরফে ভাঙ্গারি সোহেল পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। তাদের গ্রেপ্তার করা গেছে কি না, সে বিষয়ে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

 

চার্জশিট গ্রহণকৃত অপর আসামিরা হলেন-  এম এ কাইয়ুমেরর ভাই আবদুল মতিন, তামজিদ আহমেদ ওরফে রুবেল ওরফে শ্যুটার রুবেল, রাসেল চৌধুরী ওরফে চাকতি রাসেল, মিনহাজুল আরেফিন রাসেল ওরফে ভাগনে রাসেল ও শাখাওয়াত হোসেন ওরফে শরিফ।

 

গত ২৮ জুন মামলাটিতে ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও প্রাক্তন ওয়ার্ড কমিশনার এম এ কাইয়ুমসহ সাতজনের বিরুদ্ধে ঢাকা সিএমএম আদালতে চার্জশিট জমা দেয় ডিবি পুলিশ। এরপর ঢাকা সিএমএম আদালত মামলাটির চার্জশিট গ্রহণ করেন। ওই দুই আসামি পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন সিএমএম আদালত। একই সঙ্গে তাদের গ্রেপ্তার করা না গেলে তাদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দেন আদালত। পলাতকদের ধরতে পত্রিকায়ও বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার নির্দেশ দেন সিএমএম আদালত।

 

এরপর গত ৯ আগস্ট কাইয়ুম কমিশনার এবং সোহেল ওরফে ভাঙ্গারি সোহেলকে ধরতে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির প্রতিবেদন সিএমএম আদালতে দাখিল হলে মামলাটি বিচারের জন্য প্রস্তুত হওয়ায় মামলাটি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদলির নির্দেশ দেওয়া হয়। বুধবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত মামলাটির চার্জশিট গ্রহণ করে পলাতকদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

 

মামলাটিতে তামজিদ, রাসেল চৌধুরী, মিনহাজুল ও শাখাওয়াত আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। মতিনসহ স্বীকারোক্তি প্রদানকারী চারজন কারাগারে রয়েছেন।

 

আসামি রাসেল চৌধুরী ও মিনহাজুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী চার্জশিটে হত্যাকাণ্ডের নির্দেশদাতা হিসেবে এমএ মতিনের নাম আসে। তবে মতিন রিমান্ডে ডিবির কাছে তাবেলা হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করলেও আদালতে স্বীকারোক্তি দেননি।

 

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান-২ এর ৯০ নম্বর সড়কে জগিং করার সময় দুবৃর্ত্তদের গুলিতে নিহত হন ইতালিয়ান নাগরিক ও নেদারল্যান্ডভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা আইসিসিওবিডির কর্মকর্তা তাবেলা সিজার। তাবেলা নেদারল্যান্ডস-ভিত্তিক আইসিসিও কো-অপারেশন নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রুফ (প্রফিটেবল অপরচুনিটিজ ফর ফুড সিকিউরিটি) কর্মসূচির প্রকল্প ব্যবস্থাপক ছিলেন।

আপনার মতামত জানানঃ