ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  স্বাস্থ্য   »   ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পানি সরবরাহ নেই

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পানি সরবরাহ নেই

October 5, 2016 - 1:54 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পানি সরবরাহ নেই।

হাসপাতালের বার্ন ইউনিটসহ বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে খাবার পানি থেকে শুরু করে শৌচাগারে ব্যবহারের পানি নেই। এতে বিপাকে পড়েছেন দেশের নানা প্রান্ত থেকে আসা দরিদ্র রোগী ও তাদের স্বজনরা।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, বুধবার দুপুর থেকেই হাসপাতালে পানি পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে বাইরে থেকে বেশি টাকা দিয়ে খাবার পানি কিনে আনতে হচ্ছে। তবে সবচেয়ে বড় সমস্যা- হাসপাতালের শৌচাগারগুলোতেও পানি নেই। এতে রোগীদেরই বেশি ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, খাবার পানির সমস্যা সমাধানে অনেকে বাইরে থেকে পানি কিনে আনছেন।

লালমনিরহাট থেকে আসা আব্দুল মোক্তাদির বুধবার সন্ধ্যায় জানান, দুপুর থেকে পানি নেই। সারা দিন অপেক্ষা করে এখন বাইরে থেকে পানি কিনে নিয়ে যাচ্ছি। ফিল্টার করা পানি প্রতি লিটার ৫ থেকে ৭ টাকা। আর হোটেল থেকে পাঁচ লিটার ট্যাপের পানি কিনলে দাম নেয় ১৫ থেকে ২০ টাকা।

তিনি বলেন, আমরা গরিব মানুষ। টাকার অভাবে এখানে (ঢামেক) চিকিৎসা নিতে এসেছি। হাতে তেমন টাকা-পয়সাও নাই। এখন এই সমস্যার কারণে কত টাকা খরচ হবে, বুঝতে পারছি না।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে আসা সামিয়া আক্তার তার মাকে মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করেছেন। তিনি বলেন, পানি না থাকায় হাসপাতালে রোগী ও নারীরা বেশি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। বিশেষ করে, শৌচাগারে পানি না থাকায় বেশি সমস্যা হচ্ছে। কারণ, পুরুষরা চাইলে তাদের জরুরি কাজ বাইরে কোথাও গিয়ে সেরে আসতে পারেন। কিন্তু নারীরা বা রোগীরা পারছেন না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লো ভোল্টেজের কারণে দুপুর থেকে ঢামেক হাসপাতালের পানির পাম্প ঠিকভাবে পানি তুলতে পারছে না। এতে হাসপাতালের সবখানে পানির সংকট বিরাজ করছে।

পাম্পের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, লো ভোল্টেজের কারণে সকাল থেকেই পাম্প সমস্যা করছিল। দুপুর থেকে তো পানি তোলাই যাচ্ছে না। এদিকে পানির লেয়ার দিন দিন গভীরে যাচ্ছে, এটাও অন্যতম কারণ।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য যোগাযোগের জন্য চেষ্টা করা হলে হাসপাতলের প্রশাসনিক ব্লকের কোনো কর্মকর্তাকে সন্ধ্যায় পাওয়া যায়নি।

জরুরি বিভাগের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল হোসেন জানান, শুনেছি, সমস্যা সমাধানে কাজ করা হচ্ছে। কিন্তু এতো সময় পানি না থাকায় রোগীদের দুর্ভোগও বাড়ছে।

এদিকে সারা দিন পানি না পেয়ে সন্ধ্যায় রোগীদের স্বজনরা খালি বোতল নিয়ে হাসপাতাল প্রদক্ষিণ করেন। এ সময় তারা ‘পানি চাই’ ‘পানি চাই’ বলে স্লোগান দিতে থাকেন।

আপনার মতামত জানানঃ