ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ঢাকার ২ সিটিতে ৩৫৬ স্থানে পশু কোরবানি

ঢাকার ২ সিটিতে ৩৫৬ স্থানে পশু কোরবানি

জুলাই ২৮, ২০২০ - ৩:৫৪ অপরাহ্ণ
ঢাকার ২ সিটিতে ৩৫৬ স্থানে পশু কোরবানি

চলতি বছর উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ৩৫৬টি স্থানে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। পশু কোরবানি পরবর্তী বর্জ্য সংরক্ষণে সরবরাহ করা হবে ৭ লাখ পিস ব্যাগ। এ ছাড়াও দুই সিটি করপোরেশনে অতিরিক্ত ৫ হাজার পরিচ্ছন্ন কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে বলে জানান দুই সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রধান। করোনা সংক্রমণ রোধে কোরবানির সময় প্রয়োজনীয় সুরক্ষা নেয়ার পরামর্শ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে প্রয়োজনে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানায় সিটি করপোরেশন।

করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশনে সীমিত পরিসরে বসানো হয়েছে ১১টি হাট। সবধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কোরবানির পশুর হাট বসেছে বলেই জানায় সিটি করপোরেশন। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে প্রয়োজনে আইন প্রয়োগের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি দেন ডিএনসিসি প্রধান বর্জ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মো. বদরুল আলম।

এবার উত্তর সিটিতে ২৫৬টি এবং দক্ষিণ সিটিতে নির্ধারণ করা হয়েছে ১শ টি কোরবানির স্থান। কোরবানী পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণে দুই সিটিতে নতুন করে নিয়োগ দেয়া হবে অতিরিক্ত ৩ হাজার পরিচ্ছন্ন কর্মী।

কোরবানির সময় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা গ্রহণের আহ্বান জানান বিএসএমএমইউর স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. মো. নাহিদুজ্জামান সাজ্জাদ। করোনা বিস্তার রোধে কোভিড বর্জ্যের সঙ্গে কোরবানির বর্জ্য না মেশানোর অনুরোধ জানায় সিটি করপোরেশন।

গাবতলী হাটে ১০০ জন এবং অন্যান্য হাটে ৫০ জন করে পশুর বর্জ্য অপসারনে পরিচ্ছন্ন কর্মী কাজ করছে। ৫৪টি ওয়ার্ডে ২৫৬টি কোরবানির স্থানে কোরবানির ব্যবস্থা ৬ লাখ পিস বর্জ্য সংরক্ষণ ব্যাগ সরবরাহ করা হবে।

৩ হাজার অতিরিক্ত পরিচ্ছন্ন কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। ১১ হাজার ৫৮০ জন মোট কর্মী কাজ করবে। কোরবানি পরবর্তী বর্জ্য অপসারণে ৭৫ টি ওয়ার্ডে দেয়া হবে ১ লাখ ব্যাগ। ১০০ টি নির্ধারিত স্পটে কোরবানির ব্যবস্থা থাকছে।

নিয়মিত ৫ হাজার কর্মীবাহিনী ছাড়াও প্রয়োজনে আরো ২ হাজার কর্মী বর্জ্য অপসারণে নিয়োগ দেয়া হবে বলে জানানো হয়।

কোরবানির সময় স্বাস্থ্যবিধি না মানলে প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এম সাইদুর রহমান।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ