ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   ডিমলায় কম্পিউটার-ই-সেন্টারের প্রশিক্ষক গৃহবধুর আত্নহত্যা!!

ডিমলায় কম্পিউটার-ই-সেন্টারের প্রশিক্ষক গৃহবধুর আত্নহত্যা!!

September 18, 2016 - 9:32 AM

মহিনুল ইসলাম সুজন,নীলফামারী জেলা প্রতিনিধিঃঃ– স্বামীর উপর অভিমান করে গলায় ফাস দিয়ে আত্নহত্যা করেছে গৃহবধু ও উপজেলার ই সেন্টারের প্রশিক্ষক জয়নাব বানু (২৮)। নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা পরিষদের ই সেন্টারের প্রশিক্ষক জয়নাব বানু শনিবার সকালে পিতার বাড়ীতে ঘরে ফ্যানের সাথে রশি দিয়ে আত্নহত্যা করে। সে ডিমলা সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট (রাজবাড়ী পাড়া) গ্রামের জামিয়ার রহমানের কন্যা। জয়নাব বানু ২০১০ সাল থেকে উপজেলা ই সেন্টারের প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করে আসছিল।
২০১৪ সালে নভেম্বর মাসে ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের চাপানি গ্রামের ছাদেক হোসেনের পুত্র মোস্তাফিজুর রহমান মানিকের সাথে জয়নাবের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় যৌতুকের জন্য মেয়ের পরিবার ১০ লাখ টাকা দেয়ার কথা থাকলে নগদ ৬ লক্ষ টাকা প্রদান করেন। বাকী ৪ লক্ষ টাকা দেয়া নিয়ে সেই থেকে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে দ্বন্দ চলে আসছিল। এবার পবিত্র ঈদুল আযহায় শ্বশুড় বাড়ীর লোকজন এমনকি জামাতাও গৃহবধু জয়নাবের কোনো খোজ খবর নেয়নি। শুক্রবার বিকালে শ্বশুড় সাদেক আলী পুত্রবধু জয়নাবের দেখা করতে আসলে শ্বশুড়ের সাথে পুত্রবধুর ব্যাপক ঝগড়া হয়। ঝগড়ার কারনে মনের অভিমানে সে আত্বহত্যা করেছে মর্মে পারিবাররিক সুত্র দাবী করেন। অপরদিকে জামাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিক লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলা পপি এনজিও এলাকা ব্যবস্থাপক। একাধিকবার চেষ্টা করেও উক্ত মানিকের সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, জয়নাব উপজেলা ই সেন্টারের প্রশিক্ষক হিসেবে কাজ করছিল। পারিবারিক সমস্যার কারনে সে আত্বহত্যা করেছে মর্মে শুনেছি। ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানায়, মেয়েটির পিতার অভিযোগের ভিত্তিতে লাশ ময়না তদন্তের জন্য শনিবার দুপুরে জেলার মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ