ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়

ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়

September 11, 2016 - 11:00 AM

আর মাত্র একদিন পরেই ঈদুল আজহা। এরই মধ্যে স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে অনেকেই চলে গেছেন গ্রামের বাড়িতে। ঢাকা এখন অনেকটাই ফাঁকা। কিন্তু ভিন্ন চিত্র দেখা গেল কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে।

 

শেষ সময়েও ট্রেনে বাড়ি ফেরা মানুষের ভিড় দেখা গেছে প্ল্যাটফর্মে। একই সঙ্গে সকাল থেকে ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

 

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, গতকাল টঙ্গীতে প্যাকেজিং কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। তার ওপর রোববার সকালে বিমানবন্দর স্টেশনে সিলেটগামী পারাবতের ভ্যাকুয়াম নষ্ট হয়। এ কারণে প্রায় ৪৫ মিনিট ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল। যার কারণে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যের সাতটি ট্রেন নির্ধারিত সময়ের পরে ছাড়তে হয়।

 

এতে ঈদযাত্রার শেষ দিনে এসে শিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে রেল। যদিও কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি শিডিউল বিপর্যয় নয়, বরং একটি ট্রেনের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে কিছু ট্রেনের কিছুটা বিলম্ব হওয়া।

 

জানা গেছে, সকালের দিকে দু-একটি ট্রেন সময়মতো ছাড়ার পরই শিডিউল বিপর্যয়ে পড়ে রেল। সকাল ৭টা ২ মিনিটে ছেড়ে গেছে সোনারবাংলা এক্সপ্রেস। তার আগে ছেড়ে যায় পারাবত এক্সপ্রেস। এর পর থেকে ১২টা পর্যন্ত সব ট্রেনই বিলম্বে ছেড়েছে।

 

তবে শিডিউল বিপর্যয়ের বিষয়টি অস্বীকার করে বাংলাদেশ রেলওয়ের স্টেশনমাস্টার সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ‘শিডিউল বিপর্যয় বলা যাবে না একে। সকাল থেকে ট্রেনগুলোর শিডিউল টাইম বা ছেড়ে যাওয়ার সময় কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে। তবে ঠিকমতোই ছেড়ে যাচ্ছে ট্রেনগুলো।’

 

এদিকে সব বিষয় ছাপিয়ে চোখে পড়ার মতো বিষয় ছিল, স্টেশনে অসংখ্য ঘরমুখো মানুষের উপস্থিতি। সময়মতো ট্রেন না ছাড়লেও যাত্রীদের মধ্যে বাড়ি ফেরার তাড়না বেশি। এবার আন-অফিশিয়ালি শুক্রবার থেকে ‍শুরু হয়েছে ঈদের ছুটি। সে ক্ষেত্রে মানুষ বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই বাড়ি ফেরা শুরু করেছে। এরপর শুক্র ও শনিবার মানুষ বাড়ি ফিরেছে। স্বাভাবিকভাবেই আজ রোববার যাত্রীর সংখ্যা কমে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কমলাপুরের চিত্র ভিন্ন।

 

স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে, শেষ মুহূর্তে স্ট্যান্ডিং টিকিট কেটেও অনেকে বাড়িমুখো হচ্ছেন। এমনকি উত্তরাঞ্চলের প্রায় সব ট্রেনে ছাদ বোঝাই হয়ে বাড়ি ফিরছেন মানুষ। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বিমানবন্দর ও টঙ্গী স্টেশনে রেল থামলে ছাদ থেকে মানুষকে নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে বাড়তি চাপ কমাতে।

 

স্টেশনমাস্টার সীতাংশু চক্রবর্তী জানান, আজ সারা দিনে তিনটি স্পেশাল ট্রেন চলাচল করবে। এসব ট্রেনসহ সারা দিনে চলবে মোট ৬৯টি ট্রেন।

 

তিনি বলেন, ‘আজ সারা দিনে ৫০ হাজারের বেশি মানুষ রেলে বাড়ি ফিরবেন বলে আমরা আশা করছি।’

 

রোববার ভোর থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে মাত্র ১০টি ট্রেন ছেড়ে গেছে। যেখানে অন্যান্য দিন সকাল ৯টার মধ্যেই ছেড়ে যায় ১০টির বেশি ট্রেন। ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলোর মধ্যে রয়েছে তুরাগ, ধূমকেতু, সোনারবাংলা এক্সপ্রেস, পারাবত, উপকূল, তিস্তা, মহানগর প্রভাতী, এগারসিন্দুর এক্সপ্রেস ও কমিউটার ট্রেন।

 

এ ছাড়া কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে দুটি লোকাল ট্রেন।

আপনার মতামত জানানঃ