ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   টেস্টে রান তাড়ার ক্ষেত্রে ‘ফেবারিট’ নয় বাংলাদেশ!

টেস্টে রান তাড়ার ক্ষেত্রে ‘ফেবারিট’ নয় বাংলাদেশ!

October 22, 2016 - 3:32 PM

ক্রীড়া প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম থেকে : টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের জয় মাত্র ৭টি। এর মধ্যে রান তাড়া করে বাংলাদেশ জিতেছে মাত্র ২টি ম্যাচ। ২টি ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে।

২০০৯ সালে বাংলাদেশ গ্রেনাডায় জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৪ উইকেটে। ২১৫ রান তুলতেই বাংলাদেশ হারায় ৬ উইকেট। সাকিব আল হাসান শেষ পর্যন্ত ৯৬ রানে অপরাজিত থেকে জয় তুলে নেয় ৪ উইকেটে।

মিরপুরে ২০১৪ সালের অক্টোবরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ। সেবার ১০১ রানের টার্গেটে বাংলাদেশ বেশ কষ্টে জয় তুলে নেয়। প্রতিষ্ঠিত ব্যাটসম্যানরা বাংলাদেশকে বিপদে ফেলে দেয়। রানের দেখা পাননি তামিম, সাকিব, মুমিনুল হক, শামসুর রহমান ও শুভাগত হোমরা। শেষ পর্যন্ত মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ২৮, মুশফিকুর রহিমের ২৩* ও তাইজুল ইসলামের ১৫* রানে জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ।

তবে চতুর্থ ইনিংসে চার শতাধিক রান করার রেকর্ডও আছে বাংলাদেশের। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০০৮ সালে মিরপুরে মোহাম্মদ আশরাফুলের ১০১ ও সাকিব আল হাসানের ৯৬ রানে ৪১৩ রান করে বাংলাদেশ। ৫২১ রানের লক্ষ্যে ম্যাচটি বাংলাদেশ হেরে যায় ১০৭ রানে।

চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৩১ রান। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এ রান করেছিল টাইগাররা। ২০১০ সালে চট্টগ্রামেই ৫১৩ রান তাড়া করতে নেমে ১৮১ রানে হারে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে জুনায়েদ সিদ্দিকী ১০৬ ও মুশফিকুর রহিম ৯৫ রান করেন।

চট্টগ্রাম টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে লিড ২৭৩ রান। হাতে এখনও ২ উইকেট আছে সফরকারীদের। নিশ্চিতভাবেই সফরকারীরা তিন’শ বা তার বেশি রানের টার্গেট দিতে চাইবে স্বাগতিকদের। বাংলাদেশের চতুর্থ ইনিংসে ২৫০ রানের বেশি করার রেকর্ড ৭টি। দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য জয় নেই একটিতেও। অবশ্য ২টি ড্র আছে।

২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে লঙ্কানদের বিপক্ষে ৪৬৭ রান তাড়া করতে নেমে ২৭১ রান তুলে ম্যাচ বাঁচায় বাংলাদেশ। মুমিনুল হক ১০০ ও সাকিব আল হাসান ৪৩ রান করেছিলেন। এর আগে ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের দেওয়া ৩৭৪ রান তাড়া করতে নেমে ২৮৫ রান করে ম্যাচ ড্র করে বাংলাদেশ। তামিমের বড় ভাই নাফিস ইকবাল (১২১) ওই ইনিংসে পেয়েছিলেন ক্যারিয়ারের প্রথম ও একমাত্র সেঞ্চুরির স্বাদ।

অতীত পরিসংখ্যান বলছে চতুর্থ ইনিংসে খুব ভালো রেকর্ড নেই বাংলাদেশের। তবুও বদলে যাওয়া বাংলাদেশের থেকে ‘অস্বাভাবিক কিছুর’ প্রত্যাশা থাকতেই পারে। শেষ পর্যন্ত সাগরিকায় বাঘের গর্জন না সিংহের হুংকার শোনা যায় সেজন্য অপেক্ষা করতেই হচ্ছে!

আপনার মতামত জানানঃ