ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়স্বাস্থ্য   »   ‘টিকা বিতরণে ডিজিটাল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকার’

অ্যাপে রেজিস্ট্রেশন বাধ্যতামূলক

‘টিকা বিতরণে ডিজিটাল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকার’

January 25, 2021 - 10:11 PM

কোভিড-১৯ এর টিকা বিতরণে ডিজিটাল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে সরকার। বুধবার (২৭ জানুয়ারি) থেকে ডিজিটাল ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ‘সুরক্ষা’ অ্যাপের মাধ্যমে শুরু হবে করোনা টিকার আনুষ্ঠানিক রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া।

রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কোনো টিকা নেওয়া যাবে না উল্লেখ করে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সবচেয়ে সাশ্রয়ী মূল্যে টিকা আমদানি করেছে বাংলাদেশ। শিশু ও গর্ভবতী মা ছাড়া পর্যায়ক্রমে সবাই-ই টিকা পাবেন বলে জানানো হয়েছে সরকারের তরফ থেকে।

সোমবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের করবী হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন নীতিনির্ধারকরা। এ সময়, করোনার ভ্যাকসিন কার্যক্রম যাতে সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয় সেজন্য সম্পূর্ণ পদ্ধতি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে করা হবে জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।

অনুষ্ঠানে ডিজিটাল ভ্যাকসিন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ‘সুরক্ষা’ অ্যাপসের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, ‘ভ্যাকসিন পেতে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম ডিজিটাল করা হয়েছে। সুরক্ষা অ্যাপের মাধ্যমে দেশবাসী নিজেদের তথ্য দিয়ে সেবা নিতে পারবেন। নিজেরাই রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন ভ্যাকসিন গ্রহণকারীরা। ওই অ্যাপ থেকে ডাউনলোড করা যাবে ভ্যাকসিন কার্ড। গুগল প্লে-স্টোর থেকে এ অ্যাপ ডাউনলোড করে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে টিকা পেতে এনআইডি নম্বর, মোবাইল নম্বর ও মৌলিক কিছু তথ্য দিয়ে অনলাইনেই সম্পন্ন করতে হবে নিবন্ধন।

তিনি বলেন, সফলভাবে টিকার ডোজ নেওয়া শেষ হলে এই অ্যাপ থেকেই পাওয়া যাবে ভ্যাকসিন নেয়ার সনদ। অনলাইনে তথ্য যাচাইয়ের সুযোগের পাশাপাশি নিরাপদ নিবন্ধনের জন্য ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড বা OTP যাবে ব্যবহারকারীর মোবাইলে। এসএমএস এর মাধ্যমে ভ্যাকসিন প্রদানের তারিখ ও তথ্য পাঠানো হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র ও জন্ম তারিখ ব্যবহার করে টিকার নিবন্ধন করতে হবে।

যাদের স্মার্ট ফোন নেই, তারা ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারবেন। তবে এক মোবাইলে একাধিক রেজিস্ট্রেশনের সুযোগ থাকবে না বলে জানিয়েছেন জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেছেন, বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে করোনার টিকা প্রদান ও রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক মান ও নিয়ম অনুসরণ করেই দেশে ভ্যাকসিন কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। ভারতের বাইরে একমাত্র বাংলাদেশেই সবচেয়ে কম ও সাশ্রয়ী মূল্যে করোনার ভ্যাকসিন আমদানি করা হয়েছে বলে দাবি করেন সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের এই নীতিনির্ধারণী কর্মকর্তা। দেশের মাটিতে ভ্যাকসিন যেমন এসেছে, তেমনি বিতরণ প্রস্তুতিও সম্পন্ন করা হয়েছে। সুরক্ষা অ্যাপের মাধ্যমে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে বলেও জানান মুখ্যসচিব।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশন করার সময় কেন্দ্রের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে টিকা গ্রহণকারীকে। কেউ কেন্দ্র পরিবর্তন করতে চাইলে জটিলতা বাড়বে। বিশেষ কোনো কারণ ছাড়া তারিখ পরিবর্তন করা যাবে না বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ডা, মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, শিশু ও গর্ভবতী মা ছাড়া সবাই-ই টিকা নিতে পারবেন৷ তবে, কোভিড হওয়ার চার সপ্তাহের মধ্যে নিরাপত্তার জন্য টিকা নেওয়া যাবে না বলেও জানান তিনি। অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগী কিংবা জটিল পরিস্থিতিতে হাসপাতালের বিছানায় থাকা রোগীরাও টিকা গ্রহণের আওতার বাইরে থাকবেন বলেও জানান সেব্রিনা ফ্লোরা।

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ