ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতিসারা বাংলা   »   টাঙ্গাইলে বাড়ছে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মধু আহরণ

টাঙ্গাইলে বাড়ছে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে মধু আহরণ

জানুয়ারি ৮, ২০২১ - ৩:০২ অপরাহ্ণ

টাঙ্গাইলে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে সরিষা ক্ষেতে মৌবাক্স স্থাপন করে মধু সংগ্রহ দিনদিন বাড়ছে। করোনার কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় মধুর চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় খুশি মৌচাষিরা।

টাঙ্গাইল জেলার বাসাইলে সরিষার ক্ষেতজুড়ে শত শত বাক্স বসিয়ে সংগ্রহ করা হচ্ছে মধু। কালিহাতী, ভূঞাপুর নাগরপুরসহ বিভিন্ন উপজেলায় মৌ-চাষ পদ্ধতি ক্রমেই বাড়ছে। বিস্তীর্ণ এলাকার কৃষিজমিতে সরিষা ফুলের সমারোহ আর ক্ষেতের পাশেই মৌবাক্স স্থাপন করেছে মৌচাষিরা।

একটা সময় স্থানীয় কৃষকরা মৌবাক্স স্থানে সরিষার ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করলেও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের পরামর্শে এখন তাদের ভুল ধারণা পাল্টে গেছে। বরং মৌবাক্স স্থাপনে সরিষার ফলন ২০ শতাংশ বৃদ্ধির পাওয়ায় সরিষা চাষিরাই মৌচাষিদের ডেকে ক্ষেতের পাশে মৌবাক্স স্থাপনের সুযোগ করে দিচ্ছেন। এতে একদিকে মৌ চাষিরা কাঙ্ক্ষিত পরিমাণে মধু সংগ্রহ করে লাভবান হচ্ছে। অন্যদিকে স্থানীয় কৃষিজমিতে সরিষার ফলনও অন্যান্য বছরের তুলনায় কয়েক গুণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে এ বছর মধুর চাহিদা এবং দাম বাড়লেও প্রাণ ও ডাবর কোম্পানির নিকট মধুর ন্যায্য দাম দেওয়ার দাবি মৌচাষিদের।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, মৌবাক্স স্থানে সরিষার ফলন ভালো হচ্ছে। তাদের কোনো বাধা দেওয়া হচ্ছে না। বরং সরিষার ভালো ফলনের আশায় নিজেরাই মৌচাষিদের মৌবাক্স স্থাপনের জায়গা করে দিচ্ছেন।

জেলা কৃষি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, গতবারের তুলনায় এ বছর সরিষার আবাদ ১০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সরিষার নতুন জাত এবং মৌবাক্সের কারণে ২০ শতাংশ ফলন বৃদ্ধির আশা করছেন এবং কৃষকদের বিনামূল্যে উন্নত মানের মৌবাক্স বিতরণ করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলায় গত বছর ৪৫ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছিল। এ বছর ১০ শতাংশ সরিষার চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। নতুন জাত ও মৌবাক্স স্থাপনের কারণে এ বছর ২০ শতাংশ ফলন বৃদ্ধি হবে।

আপনার মতামত জানানঃ