ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   টঙ্গী কারখানায় আগুনতে নিহত ২৪ জন

টঙ্গী কারখানায় আগুনতে নিহত ২৪ জন

September 11, 2016 - 4:26 AM

টঙ্গী : শনিবার সকাল থেকে শুরু করে রাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত একটানা চেষ্টার পরও টঙ্গী বিসিক শিল্প নগরীর ট্যাম্পাকো কারখানায় আগুন নিন্ত্রয়ণে আনতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস।

এদিকে এ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪ জনে। আহত হয়েছে বহু লোক।

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, কারখানার চারটি ভবনের মধ্যে তিনটির আগুন ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণে চলে এসছে।

ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক লে. কর্নেল মোশারফ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘সকাল থেকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিস কাজ করে যাচ্ছে। তবে আশপাশের ভবনগুলোকে রক্ষা করতে আমরা ডিফেন্সিভ মেথড ফলো করছি।’

তিনি বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসের ২৬টি ইউনিট কাজ করছে। এর সঙ্গে দুটি হাইরাইজ ভেহিকল রয়েছে, যার একটি বিমা ইউনিট ও অন্যটি ¯œরকেল। পাশাপাশি তিনটি লাইটিং ইউনিটও আমাদের সঙ্গে কাজ করছে।

‘কারখানার চারটি ভবনেই আগুন লেগেছিল। এর মধ্যে তিনটির আগুন আমাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছি। পাঁচ তলার একটি ভবনের আগুন আমাদের নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি’- বলেন, কর্নেল মোশারফ হোসেন।

আগুন বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘যখন আগুন কম ছিল তখন আমরা দেখেছি, ভেতরে অনেক কাগজ, রোল মজুদ ছিল। কিছু ফুয়েলও আছে। যা দাহ্য পদার্থ এবং থেকে থেকে জ্বলে উঠছে।’

‘চতুর্থ ভবনের আগুন নেভাতে আমাদের কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে। সেখানে থাকা দাহ্য পদার্থ জ্ব¡লে উঠছে, অথচ পানি দিতে পারছি না। কারণ সেখানে পানির গাড়ি মোতায়নের কোনো জায়গা নেই। সারা বিকেল অনেক চেষ্টা করেও পানি ছিটানো যায়নি। এখন বিমা বসিয়ে সে চেষ্টা করবো, যেন সেখানে পানি দিতে পারি।’

কর্নেল মোশারফ হোসেন আরো জানান, পাঁচ তলা ভবনের পশ্চিম অংশ ‘ক্র্যাক’ হয়ে গেছে। বলা যায়, ‘হাফ কলাপসড’। যেকোনো সময় এর বিভিন্ন অংশ ভেঙে পড়তে পারে। এ জন্য আমরা ভেতরে প্রবেশ না করে ডিফেন্সিভ ওয়েতে কাজ করছি।

বুয়েটের দুজন ইঞ্জিনিয়ার, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ইঞ্জিনিয়ার ও রাজউকের ইঞ্জিনিয়াররা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বলে জানান তিনি। তাদের সবার সমন্বয়ে একটি টিম তৈরি কার হয়েছে। তাদের পরামর্শ এখন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

ওই টিমের অভিমত হলো- পাঁচ তলা ভবনও যেকোনো সময় ধসে যেতে পারে। তাই ফায়ার সার্ভিসের টিম যেন নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান নেয়। পাশাপাশি আমাদের পক্ষ থেকে সাধারণ জনগণকে পরামর্শ দেব, যেন তারা নিরাপদ জায়গায় অবস্থান নেয়।

ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ফায়ার সার্ভিস ভেতরে গিয়ে কাজ করতে পারছে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, কেমিক্যাল থেকে থেমে থেমে বিষ্ফোরণ ঘটছিল। কোথায় কিভাবে কত পরিমাণ কন্টেইনার, ড্রাম বা পেট্রলিয়াম রয়েছে সেটাও আমরা জানি না। অন্যদিকে এ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে কারখানার মালিক বা দায়িত্বশীল কোনো কর্মকর্তা যোগাযোগ করেননি। কারণ শুধু তারাই বলতে পারবেন কোথায় কী ছিল।

‘বিভিন্ন কারখানায় অ্যামোনিয়াম জাতীয় গ্যাস সংরক্ষণ করে রাখা হয়। কিন্তু এখানে এ ধরনের গ্যাস আমরা শনাক্ত করতে পরিনি। তবে এখানে এমন কিছু কেমিক্যাল ছিল, যা বিষ্ফোরণে সহায়তা করে।’

‘বয়লার থেকে নয়, গ্যাস লিকেজের কারণে ট্যাম্পাকোতে বিষ্ফোরণ হয়েছিল’- শ্রম মন্ত্রণালয়ের বয়লার পরিদর্শক ইঞ্জিনিয়ার শরাফত আলীর এমন বক্তব্যের জের ধরে তিনি বলেন, ‘তিনি কীসের ভিত্তিতে এমনটা বলেছেন সেটা আমি জানি না। তবে ফায়ার সার্ভিস থেকে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের প্রতিবেদন দেখলে বোঝা যাবে কেন বিষ্ফোরণ ঘটেছিল।’

‘আমরা জানি গ্যাসের বিষ্ফোরণ হলে ভূমিকে কাঁপিয়ে দেয় না। শুধু ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়। কিন্তু এ বিষ্ফোরণে তিনটা ভবন ধ্বসে গেছে। আরেকটি ভবন ধসে পড়তে পারে।’

আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে আসলে কত সময় লাগতে পারে- এমন প্রশ্নের জবাবে মোশারফ হোসেন বলেন, ‘আশা করছি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা সারা রাত ফায়ার ফাইটিং করে সকালের মধ্যে আগুন নিন্ত্রণে আনতে পারবে।’

আপনার মতামত জানানঃ