ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   টঙ্গীতে সুকৌশলে গাড়ী ছিনতাই করে মুক্তিপণ দাবি ছাত্রলীগ নেতার

টঙ্গীতে সুকৌশলে গাড়ী ছিনতাই করে মুক্তিপণ দাবি ছাত্রলীগ নেতার

অক্টোবর ৬, ২০২০ - ১০:০২ অপরাহ্ণ

অমল ঘোষ, টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি :  টঙ্গীতে ভাড়ার কথা বলে সুকৌশলে গাড়ী ছিনতাই ও চালককে বেধড়ক পিটিয়ে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে ৫৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সন্ত্রাসী রিপন। মঙ্গলবার ভোর রাতে গাড়িটি উদ্ধার করা হয়।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার দুপুরে ছাত্রলীগ নেতা রিপন হামিম স্টেশন রোড কামারপাড়া সড়ক থেকে একটি সিএনজি গাড়ী (নং গাজীপুর থ-১১-০২১৮) ভাড়ায় নিয়ে হা-মীম গ্রæপের বর্জিত মালামাল রাখার একটি গোডাউনের ভিতরে ঢুকিয়ে গাড়ীসহ চালককে আটক করে রাখে। পরে ছাত্রলীগ নেতা ছিনতাইকারী ও সন্ত্রাসী রিপনের নেতৃত্বে এলাকার একদল চিহ্নিত কিশোর অপরাধী চালককে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় ছিনতাইকারী রিপন সিএনজি চালক জাহিদের কাছে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। বিষয়টি জানা জানি হলে রিপন হামিম গ্রæপের গোডাউন থেকে চালকসহ গাড়ীটি দ্রæত অন্যত্র সরিয়ে ফেলে। পরে ৫৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম সানি ও ভুক্তভোগীর স্বজনরা টঙ্গীর বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজির পর কোন হদিস না পেয়ে মুক্তিপণ হিসেবে দাবিকৃত অর্থ প্রদানের আশ্বাস দিয়ে গোপনে খবর দেয়। অবশেষে এরশাদনগর দিঘীরপাড় এলাকা থেকে গভীর রাতে সিএনজিসহ আহত চালককে উদ্ধার করা।

এলাকাবাসীর অভিযোগ করে জানান, টঙ্গী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সরকার বাবু, ৫৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম সানি ও হা-মিম গ্রæপের প্রশাসনিক কর্মকর্তা সুমনের ছত্রছায়ায় রিপনসহ কিছু উঠতি বয়সি তরুন এলাকায় চুরি ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে বেড়ায়।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে হা-মিম গ্রæপের প্রশাসনিক কর্মকর্তা সুমন জানান, এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনা সত্যিই দুঃখজনক। আর গোডাউনের চাবিটি রিপনের কাছে থাকার বিষয়টি আমার জানা ছিল না। আমি জানতে পেরে দ্রæত ওই তালাটি ভেঙ্গে ফেলে সেখানে নতুন তালা লাগিয়ে দেই।

যোগাযোগ করা হলে টঙ্গী থানা ছাত্রলীগের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সরকার বাবু বলেন, আপনি কি জানেন ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি হয় ওয়ার্ড আওয়াামীলীগ ও স্থানীয় মুরুব্বিদের পরামর্শে। থানা ছাত্রলীগের কোন নেতা যদি অপরাধ করত তাহলে সে বিষয়ে আমি সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতাম কিন্তু রিপন ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এর দায়ভার আমার নয় ওয়ার্ড ছাত্রলীগের উপর বর্তায়। আর আমার ছবি ব্যবহার করে রিপন যে ব্যানার-ফেস্টুন করেছে সে বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি ভবিষ্যতে তার বিষয়ে সতর্ক থাকবো।
৫৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম সানি’র মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ এমদাদুল হক জানান, এ ঘটনায় কেউ থানায় অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নিব। উল্লেখ্য, চুরি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা রিপনের বিরুদ্ধে টঙ্গী পূর্ব এবং পশ্চিম থানায় ১৬ টি মামলা রয়েছে। সে এলাকায় হোন্ডা রিপন নামেও পরিচিত।

আপনার মতামত জানানঃ