ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রধান সংবাদ   »   ঝুলে আছে হোসেনি দালানে বোমা হামলার বিচার

ঝুলে আছে হোসেনি দালানে বোমা হামলার বিচার

October 12, 2016 - 10:23 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর হোসেনি দালানের সামনে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় চকবাজার থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা হলেও এখনো বিচার শুরু হয়নি।

মামলার ১৩ আসামির মধ্যে তিনজন বন্দুকযুদ্ধে নিহত, কারাগারে ৬ জন এবং চারজন জামিনে রয়েছে। গতবছর পবিত্র আশুরার সময় এই গ্রেনেড হামলায় দু’জন নিহত এবং শতাধিক মানুষ আহত হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ছয় মাস আগে মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হলেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না পাওয়ায় বিচার কাজ ঝুলে আছে।

গতবারের সেই হামলার প্রেক্ষিতে এবার পবিত্র আশুরা উপলক্ষে বাড়ানো হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তাজিয়া মিছিলে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ছুরি, বল্লম, দা ও তলোয়ারের ব্যবহার। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, গতবারের দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে এবার কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) উপকমিশনার মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, ‘তাজিয়া মিছিলে হামলার ঘটনায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে করা মামলাটির তদন্ত শেষ হয়েছে। গত ২০ এপ্রিল মামলার চার্জশিট আদালতে দাখিল করা হয়েছে। সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দায়ের করা মামলা বলে চার্জশিট দাখিলের বিষয়টি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে। ওই হামলায় ১৩ জঙ্গি জড়িত ছিল। তাদের শনাক্ত করে আমরা ১০ জনকে গ্রেপ্তার করি। অভিযানের সময় তিন জঙ্গি ক্রসফায়ারে মারা যায়। চার্জশিটভূক্ত ১০ আসামির সবাই জেমবি’র সদস্য।’

তিনি বলেন, ‘চার জঙ্গির জামিনের বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তারা জামিন পেয়ে থাকলে তা আদালতের এখতিয়ার।’

তিনি আরও বলেন, ‘জঙ্গিরা দেশের জন্য কতটা ভয়াবহ তা সাম্প্রতিকালের ঘটনাগুলো থেকেই বোঝা যায়। সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলাগুলোয় চার্জশিট দেওয়া হলে সেখানে আমরা বলে দেই যে, এদের (জঙ্গি) জামিন দিলে আবারও তারা জঙ্গি তৎপরতা চালাতে পারে।’

মামলা সম্পর্কে জানতে চাইলে আদালত পুলিশের উপকমিশনার (প্রসিকিউশন) মোহাম্মদ আনিসুর রহমান বলেন, ‘এ মামলা সম্পর্কে জানাতে পারবেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আমি শুধু এটুকুই জানি- এখন পর্যন্ত পুলিশ প্রতিবেদন আদালতে আসেনি।’

জামিনে থাকা আসামিদের সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে কতজন আসামি জামিনে আছে- তা রেকর্ড দেখা ছাড়া বলা যাবে না।’

মামলার আসামিরা হলেন শাহাদাৎ ওরফে আলবানি ওরফে মাহফুজ ওরফে হোজ্জা, আবদুল বাকি আলাউদ্দিন ওরফে নোমান, সাঈদ ওরফে হিরন ওরফে কামাল, জাহিদ হাসান ওরফে রানা ওরফে মোসায়েব, আরমান, রুবেল ইসলাম ওরফে সজীব, কবির হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আশিক, মাসুদ রানা, হাফেজ আহসান উল্লাহ মাহমুদ, আবু সাঈদ সোলায়মান ওরফে সালমান, শাহ জালাল, ওমর ফারুক ওরফে মানিক ও চাঁন মিয়া।

বিভিন্ন সূত্র জানায়, চার্জশিটভূক্ত আসামিদের মধ্যে প্রথম তিন জন ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। এদের মধ্যে গত বছরের ২৫ নভেম্বর গাবতলীতে নিহত হয় হামলার প্রধান পরিকল্পনাকারী শাহাদাৎ ওরফে আলবানি ওরফে মাহফুজ। গত ১৩ জানুয়ারি রাতে হাজারীবাগে নিহত হয় অপর দুই জেমবি কমান্ডার আবদুল বাকি ওরফে আলাউদ্দিন ওরফে নোমান ও সাঈদ ওরফে হিরন ওরফে কামাল।

সূত্র আরও জানায়, চার্জশিটভূক্ত ১০ আসামির মধ্যে ওমর ফারুক ওরফে মানিক, শাহ জালাল, হাফেজ আহসান উল্লাহ মাহমুদ ও চাঁন মিয়া জামিন পেয়েছেন। বাকি ছয় আসামি কারাগারে রয়েছেন। মামলাটিতে আগামী ৩ নভেম্বর পুলিশ প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য রয়েছে।

আসামিদের মধ্যে জাহিদ হাসান ওরফে রানা, আরমান ও কবির হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আশিক আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

জবানবন্দিতে তারা উল্লেখ করেন, প্রথমে তাদের (জঙ্গি) মোহাম্মদপুরে জেনেভা ক্যাম্পে শিয়াদের ওপর হামলার পরিকল্পনা ছিল। পরে হোসেনি দালানে হামলার পরিকল্পনা করে এবং তারা কামরাঙ্গীর চরে বাসা ভাড়া নেয়। তাদের পরিকল্পনা ছিল হামলার দৃশ্য ভিডিও করবে। কিন্ত আলোকস্বল্পতার কারণে তা সম্ভব হয়নি। ডিবি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হোজ্জা হোসেনি দালানের কবরস্থান থেকে পাঁচটি হ্যান্ড গ্রেনেড ছুরে মারে। এ সময় তার সঙ্গে ছিল কবির হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আশিক। সে জেএমবির অত্মঘাতী হামলাকারী দলের সদস্য।

গত বছরের ২১ এপ্রিল আশুলিয়ার কাঠগড়া বাজারে বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংকে ডাকাতিকালে আটজনকে হত্যার ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী ছিল হোজ্জা।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৩ অক্টোবর রাত পৌনে ২টার দিকে তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেমবি) জঙ্গিরা বোমা হামলা চালায়। এতে দু’জন নিহত ও শতাধিক আহত হয়। এ ঘটনায় রাজধানীর চকবাজার থানায় একটি মামলা করে পুলিশ। পরে মামলাটির তদন্তভার ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এই হামলার দায় স্বীকার করলেও এ ঘটনায় তাদের (আইএস) কোনো যোগসূত্র নেই বলে দাবি করেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

আপনার মতামত জানানঃ