ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   ঝিনাইদহে ইউপি চেয়ারম্যানকে পুলিশের মারধর

ঝিনাইদহে ইউপি চেয়ারম্যানকে পুলিশের মারধর

সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০ - ১১:০০ পূর্বাহ্ণ
ঝিনাইদহে ইউপি চেয়ারম্যানকে পুলিশের মারধর

ঝিনাইদহে পুলিশের বিরুদ্ধে এক ইউপি চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) রাতে শৈলকূপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এ ঘটনা ঘটে। পরে ওই ঘটনার একটি সিসিটিভি ফুটেজ ছড়িয়ে পড়ে।

লাঞ্ছনার শিকার চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন শৈলকূপা উপজেলার সারুটিয়া ইউনিয়ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকও।

বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সংগৃহীত সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, হাসপাতালের সামনে কয়েকজন রোগীর স্বজন দাঁড়িয়ে আছেন। সেখানে ইজিবাইক যোগে শৈলকূপা থানার এস আই শাখাওয়াত, এসআই রফিক এবং এএসআই রেজওয়ানুল সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে হাসপাতাল চত্বরে হাজির হন। সেখানে থাকা রোগীর স্বজনদের এসআই শাখাওয়াত আটক করতে পুলিশ সদস্যদের নির্দেশ দেয়। পুলিশ সদস্যরা তাদের আটক করে ইজি-বাইকে ওঠাতে থাকে। এসময় দূর থেকে বিষয়টি জানতে চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন কাছে এলে কোনো কথা না বলে এসআই শাখাওয়াত মামুনকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এসময় এসআই রফিক এবং এএসআই রেজওয়ানুলসহ পুলিশ সদস্যরা চেয়ারম্যানকে মাটিতে ফেলে লাথি ও কিল ঘুষি মারতে মারতে ইজি-বাইকে তুলে নেয়। ঘটনার সময় স্থানীয় লোকজন ও স্থানীয় এক সংবাদ কর্মী ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পুলিশ চেয়ারম্যানকে ছেড়ে অন্যদের আটক করে নিয়ে যায়।

ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, সামাজিক আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সোমবার রাতে পুরাতন বাখরবা গ্রামে এক আওয়ামী লীগ কর্মীর উপর হামলায় চালায় প্রতিপক্ষরা। এসময় ওই গ্রামের মিনান হোসেন এবং মওলা নামের দুই জন আহত হয়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহতদের উদ্ধার করে শৈলকূপা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। আমি রাতে আহতদের হাসপাতালে দেখতে যাই। রাত আনুমানিক ১২টার দিকে শৈলকূপা থানা পুলিশ হাসপাতাল চত্বরে এসে রোগীর স্বজনদের আটক করে। আমি দূর থেকে কাছে আসা মাত্রই শৈলকূপা থানার এস আই সাখাওয়াত হোসেন আমাকে ধাক্কা দেয়। আমি মাটিতে পড়ে গেলে মারধর শুরু করে। কোন কথাই বলতে দেয়নি তারা। আমি এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি।

তিনি আরও অভিযোগ করেন, ঘটনার দিন রাতেই শৈলকূপা থানার ওসি আমার ফোনে ফোন দিয়ে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করেছেন।

এ বিষয়ে শৈলকূপা থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, এ ঘটনার পর চেয়ারম্যানকে থানায় ডাকা হয়েছে, কিন্তু তিনি আসেননি।

এদিকে এ ব্যাপারে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার সাঈদ বলেন, বিষয়টি আমরা শুনেছি। ঘটনার তদন্ত চলছে। সত্যতা মিললে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত জানানঃ