ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   জোয়ারের পানিতে প্লাবিত কুমির-হরিণ-কচ্ছপের আবাস

জোয়ারের পানিতে প্লাবিত কুমির-হরিণ-কচ্ছপের আবাস

আগস্ট ২৫, ২০২০ - ৩:৫০ অপরাহ্ণ

প্রবল জোয়ারের হুমকির মুখে সুন্দরবনের একমাত্র বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্র করমজল। গেল কয়েকদিন ধরেই জোয়ারের পানিতে কুমির, হরিণ ও কচ্ছপের আবাস প্লাবিত হয়। দ্রুত প্রাণীগুলোর শেড, পুকুরপাড় ও রাস্তা উঁচু না করলে জোয়ারের পানিতে নদী বা খালে ভেসে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে বলে আশ্বস্ত করলেন বন কর্মকর্তারা।

ঘূর্ণিঝড় আম্পানে সুন্দরবনের একমাত্র বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্র করমজল মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এ অবস্থায় গত কয়েকদিনের জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হওয়ায় হুমকির মুখে পড়ে বন্যপ্রাণীগুলো। অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে বিলুপ্ত প্রজাতির কচ্ছপ ‘বাটাগুর বাসকা’, হরিণ ও কুমির। হঠাৎ করে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পেয়ে করমজলের রাস্তা, বন্যপ্রাণী রাখার শেড ও পুকুরের পাড় উপচে পানি প্রবেশ করে। ফলে প্রাণীগুলো ভেসে যাওয়ার আশঙ্কা করেন বনরক্ষীরা। তবে রাতদিন নজরদারি ও আন্তরিক চেষ্টার ফলে কোন প্রাণী নদী ও খালে বেরিয়ে যেতে পারেনি।

বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল নিরাপদ রাখতে প্রজনন কেন্দ্রের অবকাঠামোগুলো উঁচু করে নির্মাণের দাবি জানান সুন্দরবন বিশেষজ্ঞ।

সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম বলেন, সরকারকে অনুরোধ করবো অনতিবিলম্বে এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে। সেখানকার স্থাপনাগুলো উঁচু করে নির্মাণ করার জন্য।

প্রজনন কেন্দ্রের কর্মকর্তা জানান, প্রাণীগুলো রক্ষার জন্য আরও ভাল ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।

২০০০ সালে প্রতিষ্ঠিত করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রে বর্তমানে ৩’শ বিলুপ্ত প্রজাতির কচ্ছপ ‘বাটাগুর বাসকা’, ১৯৩টি কুমির ও ৩৬টি হরিণ রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ