ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   জিসা মনির ফিরে আসার রহস্য

জিসা মনির ফিরে আসার রহস্য

আগস্ট ২৬, ২০২০ - ৭:৪৯ অপরাহ্ণ
জিসা মনি

একটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা না ঘটলেও মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নিয়ে আসামিদের নির্যাতন করা হয়েছে। তাদের দিয়ে হতাকাণ্ডের গল্প সাজিয়ে সেই গল্প আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি হিসেবে রেকর্ড করেছে পুলিশ। আসামিদের স্বজনরা এমন অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের পাশাপাশি রিমান্ডে নির্যাতন না করতে পুলিশকে তারা টাকাও দিয়েছেন বলে দাবি তাদের।

গণধর্ষণের পর হত্যা করে মৃতদেহ নদীতে ফেলে দেওয়ার ওই মামলা যাকে নিয়ে, সেই স্কুলছাত্রী জিসা আক্তার (জিসা মনি) নিজেই থানায় হাজির হয়ে পুলিশকে ‘অবাক’ করে দিয়েছেন। পুলিশের এহেন কর্মকাণ্ডে জিসা মনির স্বজনরাও স্তম্ভিত।

আদালতে জবানবন্দীতে তিন আসামি ‘স্বীকার করেছেন’, স্কুলছাত্রী জিসা আক্তারকে (১৫) তারা গণধর্ষণ করে শ্বাসরোধ করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছেন। আদালতে দেওয়া আসামিদের সেই বক্তব্য গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল পুলিশ। পরিবারের লোকজনও মেয়ের জন্য ছিল দিশেহারা। কিন্তু এ অবস্থায় ফিরে এসেছে সেই জিসা আক্তার। তাকে কেউ হত্যা বা গণধর্ষণ করেনি। বরং প্রেমিককে বিয়ে করে আত্মগোপনে ছিল ১৫ বছরের এই কিশোরী।

রোববার (২৩ আগস্ট) ফোনের সূত্র ধরে উদ্ধার হয় জিসা।

সোমবার (২৪ আগস্ট) বিকেলে বিষয়টি নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় সংবাদ সম্মেলন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি জানান, বিষয়টি গভীরভাবে তদন্ত করা হচ্ছে। কোনো পুলিশ কর্মকর্তা জড়িত থাকলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জিসা দেওভোগ পাক্কা রোড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী। তার বাবার নাম জাহাঙ্গীর হোসেন। গত ৪ জুলাই থেকে নিখোঁজ ছিল সে। এর এক মাস ২ দিন পর ৬ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় অপহরণ মামলা করেন তার বাবা।

মামলার বাদীর দাবি, মেয়েকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে প্রেমের প্রস্তাব দিতো আব্দুল্লাহ্। একাধিকবার নিষেধ করা হলে সে মেয়েকে অপহরণের হুমকি দেয়। গত ৪ জুলাই সন্ধ্যায় আব্দুল্লাহ্ ফোনে ঠিকানা দিলে আমার মেয়ে সেই ঠিকানায় যায়। পরে তাকে অপহরণ করে আব্দুল্লাহ্ ও তার সহযোগীরা।

তবে সোমবার তার বাবা জানান, আমি মামলা প্রত্যাহার করে নেব। যেহেতু আমার মেয়ে ফিরে এসেছে। আমি এতদিন যে কষ্ট সহ্য করেছি, চাই না আমার মতো কোনো বাবা মা সেই কষ্ট সহ্য করুক।

৯ আগস্ট বিকেলে জেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মিল্টন হোসেন ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ূন কবিরের পৃথক আদালতে তিন আসামির জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। ওই সময়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামীম আল মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আসামিরা হলেন- বন্দর উপজেলার বুরুন্ডি খলিলনগর এলাকার আব্দুল্লাহ (২২), বুরুন্ডি পশ্চিমপাড়া এলাকার রকিব (১৯) ও নৌকার মাঝি খলিলুর রহমান (৩৬)।

২৩ আগস্ট দুপুরে বন্দরের নবীগঞ্জ রেললাইন এলাকায় সুস্থ ও স্বাভাবিক অবস্থায় পাওয়া যায় নিখোঁজ জিসা মনিকে। এ ঘটনায় চারদিকে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পুলিশের তদন্ত ও আদালতে দেওয়া জবানবন্দি নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

এদিকে আসামিদের স্বজনরা বলছেন, পুলিশি হেফাজতে অমানবিক নির্যাতনের মুখে তারা ধর্ষণ ও হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। পুলিশ এই ঘটনা সাজিয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানা পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) শামীম আল মামুন আসামির স্বজনদের কাছ থেকে অবৈধ উপায়ে টাকাও নিয়েছেন বলে রয়েছে অভিযোগ।

গ্রেফতার আব্দুল্লাহর মা শিউলী আক্তার বলেন, আমার ছেলে আমার কসম কেটে বার বার বলেছে সে নির্দোষ। পুলিশ তাকে ধরে এনে রিমান্ডে নির্যাতন করে মিথ্যা হত্যার গল্প সাজিয়েছে। আব্দুল্লাহ ওয়ার্কশপে কাজ করতো। আমার ছেলের একটি স্টেটমেন্ট ছিলো যে, আমি ওর সাথে ঘুরেছি একসাথে। আর কিছু করি নাই। বিনা কারণে আমার ছেলেরে এত কিছু সহ্য করা লাগছে। যদি আমার ছেলে কিছু করতো তাহলে মেয়েটা জীবিত ফিরে আসলো কেমনে? আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার চাই।

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শামীমকে দুই দফায় দশ হাজার টাকা দিয়েছেন জানিয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি আরও বলেন, প্রথমে যখন ধইরা আনে তখন টর্চার যাতে না করে সেজন্য ৭ হাজার টাকা দিছি। পরে আরও ৩ হাজার টাকা দিছি। টাকা না দিলে তারে মাইরা ফালানোরও হুমকি দিছে। টাকা দেওয়ার পর সে (এসআই শামীম) কইছে আমার ছেলেরে মারবো না। কিন্তু তারে মাইরা মিথ্যা স্বীকারোক্তি দেওয়াইছে।

নৌকার মাঝি খলিলের স্ত্রী শারমিন আক্তার বলেন, ছোটবেলা মা-বাপরে হারাইয়া আমি এতিম। স্বামী কামাইয়া না আনলে না খাইয়া থাকি। এই কয়টা দিন আমার তিনটা মাইয়া নিয়ে আমি মাইনষের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছি। পোলাপান থুইয়া কাম কইরা যে খামু হেইডাও পারতাছি না। সন্দেহ কইরা আমার স্বামীরে ধইরা আনছে। পরে পুলিশ বলছে, ওই মেয়েরে নাকি আমার স্বামী মাইরা ফেলছে। এখন তো দেখতাছি এই মাইয়া বাঁইচা আছে। আমার স্বামীরে কেন পুলিশ ফাঁসাইলো সেইটা আমি জানতে চাই।

এসআই শামীমের বিরুদ্ধে টাকা নেওয়ার অভিযোগ করেন শারমিনও। তিনি বলেন, টাকা না দিলে জেলে ভইরা দেওয়ার হুমকি দিছিল শামীম স্যার। টাকা না দেওয়ায় আমার স্বামীরে সারা রাইত ঝুলাইয়া পিডাইছে। মাইরা মাইরা স্বীকারোক্তি নিসে মিছা। এই কথা শোনার পর আমি অনেক কষ্ট কইরা সাত হাজার টাকা দিছি। আমার স্বামীরে যেন না মারে। কিন্তু তারা আমার স্বামীরে ফাঁসাইয়া দিল। এখন তো মাইয়া বাঁইচা আছে। তাইলে তারা মাইরা নদীতে কেমনে ফেললো?

শারমিন আরও বলেন, আমার স্বামী নির্দোষ, তারে ছাইড়া দেন। এই কথা বারবার পুলিশরে বলছি। তখন আমারে কইলো, বেশি কথা বইলো না। বেশি কথা বললে সবাইরে জেলে ঢুকাইয়া দিমু।

একই অভিযোগ আরেক আসামি রকিবের ভাই সজিবেরও। তিনি বলেন, আমার ভাই ওইদিন ঘাটে মেয়েরে নামাইয়া দিয়া আসছে বলে জানাইছে। এরপর কিছু জানে না। কিন্তু পুলিশ তারে মার্ডার মামলার আসামি বানাইয়া দিল। তার জেল খাটতে হইতাছে। এর বিচার আমি চাই।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার এস আই শামীম আল মামুন ওই সময়ে গণমাধ্যমকে জানান, অপহরণ মামলার পর মেয়েটির মায়ের মোবাইল ফোনের কললিস্ট চেক করে রকিবের সন্ধান পাওয়া যায়। রকিবের মোবাইল নম্বর দিয়েই আব্দুল্লাহ্ জিসার সঙ্গে যোগাযোগ করতো। ঘটনার দিনও ওই নম্বর দিয়ে কল করে সে। রকিবকে গ্রেফতারের পর আব্দুল্লাহ্‌কে গ্রেফতার করলে সেও নৌকার মাঝি ধর্ষণ ও হত্যার বিষয় স্বীকার করে। তার দেওয়া তথ্যানুযায়ী পরবর্তী সময়ে মাঝি খলিলুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়।

আসামির জবানবন্দির বরাতে পুলিশ জানায়, ঘটনার তিন মাস আগে আব্দুল্লাহ্‌র সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে মেয়েটির। গত ৪ জুলাই বিকেলে বন্ধু রকিবের ইজিবাইকে বন্দরের বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে তারা। সন্ধ্যায় শহরের ৫ নম্বর ঘাট থেকে নৌকা ভাড়া করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ঘুরতে থাকে তারা। একপর্যায়ে নৌকায় মেয়েটিকে ধর্ষণ করে কথিত প্রেমিক আব্দুল্লাহ্‌ ও মাঝি খলিলুর রহমান। মেয়েটি সবাইকে জানিয়ে দেওয়ার ভয় দেখালে অভিযুক্তরা তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে রাত ৯টার দিকে বন্দর ইস্পাহানী ঘাটের উত্তর পাশে মরদেহটি ফেলে দেওয়া হয়।

৪ জুলাই মূলত জিসা বন্দরের কুশিয়ারা এলাকায় ইকবাল নামের এক যুবকের সাথে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করে। কিন্তু কয়েকদিন ধরেই জিসার মন খারাপ ছিল। বিষয়টি নিয়ে তার স্বামীর সঙ্গে ঝগড়াও হয়। পরে ২৩ আগস্ট দুপুর আড়াইটায় বন্দরের নবীগঞ্জ এলাকার একটি মোবাইল ফোনের দোকান থেকে মা রেখা আক্তারকে ফোন দেয় জিসা। তখনই বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। ফোনের সূত্র ধরেই জিসার মা রেখা আক্তার ও বাবা জাহাঙ্গীর ছুটে যান নবীগঞ্জ এলাকার সেই মোবাইল ফোনের দোকানটিতে।

আপনার মতামত জানানঃ