ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   চিলাহাটি-ঢাকা নীলসাগর ট্রেনের আসন খালি থাকলেও টিকেট না পাওয়ার অভিযোগ যাত্রীদের!

চিলাহাটি-ঢাকা নীলসাগর ট্রেনের আসন খালি থাকলেও টিকেট না পাওয়ার অভিযোগ যাত্রীদের!

September 10, 2016 - 8:15 AM

ক্রাইমরিপোর্টার নীলফামারীঃঃ- চিলাহাটি-ঢাকা পথে চলাচলকৃত আন্তঃনগর নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের শীততাপ নিয়ন্ত্রিত আসনের টিকেট পেতে চিলহাটি,ডোমার ও নীলফামারীর সাধারন যাত্রীরা হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ট্রেনের  টিকেট ওই তিন স্টেশনে মজুদ থাকলেও স্টেশন মাস্টাররা ওই টিকেট বিক্রি করতে পারছেনা। ওই টিকেট পেতে পাকশীর বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তার অনুমতির আদেশ অলিখিতভাবে  জারী করা হয়েছে। ফলে ঈদ পরবর্তী যাত্রায় ওই ট্রেনের টিকেট সংগ্রহে বিরম্বনায় পড়েছে যাত্রীরা।
সূত্রমতে, নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে ঢাকা চলাচলকারী নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে জেলার চিলাহাটি, ডোমার এবং নীলফামারী রেলস্টেশনে স্টপেজ রয়েছে। এসব স্টেশনে শীততাপ চেয়ার কোচের আসন  ২৯টি এবং স্লিপিং বাথ ১০টি বরাদ্দ রয়েছে। ঈদ পরবর্তী যাত্রায় ওই আসনগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন রেলওয়ের বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা আহসান উল্লা ভুইয়া। এ কারণে আসন খালি থাকলেও টিকেট পাওয়া যাচ্ছে না স্টেশনে।
জেলা শহরের উকিলপাড়ার মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ঈদ পরবর্তী সময়ে ঢাকা যাওয়ার জন্য আমার দুইটি টিকেটের প্রয়োজন। এজন্য শুক্রবার নীলফামারী স্টেশনে যাই। স্টেশন মাস্টার ওবায়দুল ইসলাম আমাকে জানান শীততাপ নিয়ন্ত্রিত টিকেট নিতে বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে। প্রায় দুই ঘন্টা ধরে ওই কর্মকর্তার মোবাইল নম্বরে ফোন করে তাঁকে পাইনি। পাশাপাশি স্টেশন মাস্টার তাঁর রেলওয়ের মোইল নম্বর থেকে একাধিকবার চেস্টা করে ব্যর্থ হন। নিরুপায় হয়ে ফিরে আসি। একইভাবে টিকেট নিতে গিয়ে ফিরে এসেছেন জেলা শহরের মিজানুর রহমান, কাদিমুল হকসহ, বিজয় চক্রবর্তীসহ অনেকে। তারা অভিযোগ করে বলেন,‘আসন খালি থাকলেও এসি আসনের টিকেট দিচ্ছে না স্টেশন মাস্টার।’
নীলফামারী স্টেশন মাস্টার ওবায়দুল ইসলাম বলেন, ‘ঈদের কারণে ১৫ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নীলসাগর এক্সপ্রেস টেনের ওই আসনের নিয়ন্ত্রণ আমার হাতে নেই। মৌখিক আদেশে এসব আসনের টিকেটের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা (পাকশী) আহসান উল্লা ভুইয়া। তিনি পাকশী থেকে যাকে টিকেট দিতে বলছেন আমি তাকেই টিকেট দিচ্ছি।’
অপর দিকে একই অবস্থা চিলাহাটি ও ডোমার স্টেশনে বলে সাধারন যাত্রীরা জানায়।
এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য বিভাগীয় বানিজ্যিক কর্মকর্তা (পাকশী) আহসান উল্লা ভুইয়ার ব্যবহৃত ফোনে একাধিকবার কল করে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাঁকে পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত জানানঃ