ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   চাকরি পেলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, এসিল্যান্ড প্রত্যাহার

চাকরি পেলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, এসিল্যান্ড প্রত্যাহার

অক্টোবর ২৮, ২০১৯ - ৪:৩৩ অপরাহ্ণ

জেলা প্রতিনিধিঃ রাষ্ট্রীয় সম্মান ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার দাফন ও তার সন্তানকে চাকরিচ্যুতির ঘটনায় দিনাজপুরের এসিল্যান্ড (সহকারী কমিশনার ভূমি) আরিফুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

একইসঙ্গে সেই মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চালক পদে চাকরি দিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) বেলা ১১টায় মরহুম মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেনের দিনাজপুর সদর উপজেলার ৬ নম্বর আউলিয়াপুর ইউনিয়নের জুগিবাড়ী গ্রামের বাড়ি যান রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কে এম তারিকুল ইসলাম ও হুইপ ইকবালুর রহিম। সেখানে তারা মরহুমের কবর জিয়ারত ও পরিবারের লোকজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

এসময় হুইপ ইকবালুর রহিম মরহুম মুক্তিযোদ্ধার ছোট ছেলে নুর ইসলামকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চালক পদে চাকরির দেন। আগামী ১ নভেম্বর থেকে নুর ইসলাম চাকরিতে যোগদান করবেন।

কবর জিয়ারত ও পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কে এম তারিকুল ইসলাম জানান, রাষ্ট্রীয় সম্মান ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার দাফন এবং মুক্তিযোদ্ধা সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। দিনাজপুর সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে প্রাথমিক অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তাই তাকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হলো। সেই সঙ্গে তাকে ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভূমি অফিসে পদায়ন করা হয়েছে।

এব্যাপারে বিভাগীয় পর্যায়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির একক সদস্য অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জাকির হোসেন তদন্ত করছেন। তদন্তে যার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

এসময় জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, বর্তমান সরকার মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার। সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানে সব কিছু করে যাচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধার প্রতি এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা কোনভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। সরকার মুক্তিযোদ্ধা ও তার সন্তানের চাকরির ব্যাপারে সব জায়গায় অগ্রাধিকার দিয়ে যাচ্ছেন। মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনায় তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে যে দোষী প্রমাণিত হবে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

অপরদিকে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসককে প্রত্যাহারের দাবিতে সোমবার (২৮ অক্টোবর) দুপুর ১২টায় দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনের সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা।

এসময় মুক্তিযোদ্ধারা বলেন, দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহমুদুল আলম জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করছেন, অথচ তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কাজ করছেন। বর্তমান বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার থাকলে জেলা প্রশাসক কোন খুঁটির জোরে মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে কাজ করছেন তা আমাদের বোধগম্য নয়। অবিলম্বে জেলা প্রশাসককে দিনাজপুর থেকে প্রত্যাহার করতে হবে। না হলে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

মানববন্ধনে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা লীগ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি সহদেব চন্দ্র রায় বলেন, দিনাজপুরের ডিসি শুধু মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবারের সঙ্গে অন্যায় করেননি। দিনাজপুরের এক মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে যৌননির্যাতন করেছেন। তাই ইতোপূর্বে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এ ধরনের জেলা প্রশাসকের প্রয়োজন নেই আমাদের।

এরপর মুক্তিযোদ্ধারা একটি বিক্ষোভ মিছিল দিনাজপুর শহর প্রদক্ষিণ করে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে এক সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

আপনার মতামত জানানঃ