ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  প্রযুক্তি   »   চতুর্থবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’

চতুর্থবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’

October 16, 2016 - 3:54 PM

সচিবালয় প্রতিবেদক : দেশে চতুর্থবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’। ‘নন স্টপ বাংলাদেশ’ স্লোগানে হতে যাচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তির এই মহাযজ্ঞ।

১৯ অক্টোবর রাজধানীর বসুন্ধরা ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার সিটিতে (আইসিসিবি) এ আয়োজনের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সরকারের আইসিটি উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘বাংলাদেশে এটি চতুর্থবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে। এর স্লোগান- নন স্টপ বাংলাদেশ। তিন দিনব্যাপী এ আয়োজনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। এ আয়োজনে অংশ নেবেন- নেপাল, উগান্ডা, ভুটান, সৌদি আরব, সুরিনাম, ভিয়েতনাম এবং মালদ্বীপের বিভিন্ন দপ্তরের মন্ত্রী।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর কল্পকাহিনী নয়। সারা বাংলাদেশ এখন ইন্টারনেটের আওতায় এসেছে। দেশের ৬৫ শতাংশ জনগণের বয়স ৩৫ বছরের নিচে। আইসিটি খাত তাদের প্রত্যেককে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলবে। এদের আইসিটি খাতে দক্ষ করে গড়ে তোলা হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘দেশের সাইবার জগত এখন প্রসারমান। তবে সাইবার জগতের দুটি হুমকি আছে। একটি হলো সাইবার অপব্যবহার করে সংগঠিত অপরাধ ও অন্যটি হলো জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস। এসব হুমকি মোকাবিলায় আইন করা হচ্ছে। আজ থেকে সাত বছর আগে সরকার এ কর্মসূচি হাতে নেয়। তখন ছিল সেটা মানুষের মন জয় করার পর্ব, এখন এ পর্ব শেষ হয়েছে। এখন চলছে উড্ডয়ন পর্ব। এরপর হবে স্থিতিশীল পর্ব।’ তিন দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠান চলবে ২১ অক্টোবর পর্যন্ত।

অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘আইসিটি খাতে দুরন্ত গতিতে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। ই-গভর্নেন্স, মানবসম্পদ, অল কানেক্টিভিটি, ইন্ডাস্ট্রি প্রোমোশন বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দিয়ে সরকারের আইসিটি বিভাগ কাজ করছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন স্বপ্ন নয়, এটি এখন বাস্তবতা। এর সুফল জনগণ ইতিমধ্যেই পেতে শুরু করেছে। ছাত্র-শিক্ষকের মিলনমেলায় পরিণত হবে ওই তিন দিনের আয়োজন। ২০১৮ সালের মধ্যে দেশের ৪ হাজার ইউনিয়ন পরিষদ ডিজিটাল তথ্যকেন্দ্রের আওতায় চলে আসবে। ২০২১ সালের মধ্যে ২০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে আইসিটি খাত।’

তিনি জানান, মেলায় কোনো প্রবেশ ফি নেই। এবারের মেলার জন্য ৯ কোটি টাকা বাজেট ধরা হয়েছে। এ বাজেট গত বছরের বাজেটের সমান।

সংবাদ সম্মেলনে আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কবীর বিন আনোয়ার, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক আশরাফুল ইসলাম, বেসিসের সভাপতি মোস্তফা জব্বার, তথ্য অধিদপ্তরের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা এ কে এম শামীম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত জানানঃ