ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   চট্টগ্রামে লাইসেন্সবিহীন জমজমাট গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসা, দুর্ঘটনার আশংকা

চট্টগ্রামে লাইসেন্সবিহীন জমজমাট গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসা, দুর্ঘটনার আশংকা

মার্চ ৭, ২০১৯ - ১০:১০ অপরাহ্ণ

মোঃ আসাদুল ইসলাম চট্রগ্রাম প্রতনিধিি ঃ চট্টগ্রাম বিভাগের প্রতিটি জেলা, উপজেলা, থানা হাট-বাজারে যত্রতত্র গ্যাস সিলিন্ডারের দোকান গড়ে উঠেছে। দোকান গুলোতে অন্যান্য মালামালের সাথে এলোমেলোভাবে রাখা হয়েছে গ্যাস সিলিন্ডার। অবাধে চলছে ফায়ার লাইসেন্স বিহীন এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের খুচরা ব্যবসা। এ ব্যবসা সম্পর্কে ধারণা নেই অনেক ব্যবসায়ীদের। যার ফলে যে কোন সময় ঘটতে পারে অগ্নিকান্ড সহ বড় ধরণের দুর্ঘটনা।

প্রশাসনের কোন ধরণের তদারকি না থাকায় লাইসেন্স বিহীন গ্যাস সিলিন্ডারের ব্যবসা বেড়েছে। বন্দর, ইপিজেডে অবাদে চলা গ্যাস সিলিন্ডারের ব্যবসার কোন নির্দিষ্ট পরিসংখ্যান পাওয়া যায়নি। অনুসন্ধানে জানা যায়, বন্দর থানা এলাকায়, যেমন, কলসী দিঘী রোড, কমিশনার গলি, বাদামতলা, কার্টন ফ্যাক্টরী, ধুমপাড়া, সাগর পাড় রোড, ৩নং পকেট গেইট, টেকের মোড়, আনন্দ বাজার, ধুপপুল, ইয়াছিন হাট, কালামাঝির পাড়া, সল্টগোলা রেল ক্রসিং, ২নং মাইলের মাথা, হালিশহর এলাকার বিভিন্ন দোকান, ডবলমুরিং থানার বিভিন্ন দোকান, আগ্রাবাদ, চৌমুহনী, পাঠানটুলী, ইপিজেড এর ব্যারিষ্টার কলেজ, নিউমুরিং, তক্তারপোল, সিমেন্স হোস্টেল, ব্যাংক কলোনী, বন্দরটিলা, সিমেন্ট ক্রসিং, আকমল আলী রোড, নয়ারহাট, পতেঙ্গা থানাঃ স্টীলমিল, কাটগড়, সী-বিচ, এয়ারপোর্ট, প্রায় মুদি, কাঠের, পার্টসের, ঔষুধের, টেলিভিশনের দোকানে এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের ব্যবসা চলছে। সরকার অনুমোদন লাইসেন্স ও অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা ছাড়াই চলছে ব্যবসা ট্রাকযোগে সিলিন্ডার পৌছে দোকানে। ট্রাক থেকে ছুড়ে ফেলে গ্যাস সিলিন্ডর নামানো হয়। এতে যে কোন সময় বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।

মাঠ পর্যায়ে এই সব দোকানিদের ফায়ার লাইসেন্স তো দূরের কথা, অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রও তাদের নেই। একের অধিক সিলিন্ডার রেখে এলপি গ্যাস ব্যবসায়ী লাইসেন্স না নিয়েই অবৈধভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। লাইসেন্স আছে এমন গ্যাস ও দাহ্য পদার্থ ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ হাসিলের জন্য ট্রাকে করে বিপজ্জনক গ্যাস সিলিন্ডার সাজিয়ে ভাঙ্গাচুড়া, পাকা-আধাপাকা সড়ক দিয়ে দ্রæত গতিতে চালিয়ে দোকানে দোকানে সরবরাহ করছে। ৮টি সিলিন্ডার মজুদ করতে হলেও অধিকতর নিরাপত্তার জন্য অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা বাধ্যতামূলক হলেও তা মানছেন না খুচরা গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ীরা। বিস্ফোরক আইন ১৮৮৪ এর দ্য এলপি গ্যাস রুলস ২০০৪ এর ৬৯ ধারার ২ বিধিতে লাইসেন্স ব্যতীত কোনো ক্ষেত্রে এলপিজি গ্যাস মজুদ করা যাবে তা উল্লেখ আছে। একই বিধিতে ৭১নং ধারায় বলা আছে, আগুন নিভানোর জন্য যথেষ্ঠ পরিমাণ অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রপাতি রাখতে হবে। এই আইন অমন্য করলে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীর দুই বছর এবং অনধিক ৫ বছরের জেল এবং ৫০ হাজার টাকা দন্ড দিতে হবে এবং অর্থ অনাদায়ী থাকলে অতিরিক্ত আরো ছয় মাস পর্যন্ত কারাদন্ডের বিধান রয়েছে। আইনের ফাঁক ফোকরটিই কাজে লাগাচ্ছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। এছাড়া গ্যাস সিলিন্ডার বোতলে মেয়াদ উত্তীর্ণের কোন তারিখ মূল্য লেখা নেই।

এ বিষয়ে ইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার বলেন, আমরা গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র দোকানে রাখার পরামর্শ দিচ্ছি। যাতে করে কোন বড় ধরণের দুর্ঘটনা না ঘটে।

এ বিষয় ৩৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনাব গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরীর নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান আমার এলাকায় লাইসেন্স মেয়াদ উত্তীর্ণ মুল্য তালিকা বিহীন গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মতামত জানানঃ