ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে জাতীয় করণের অজুহাতে অবৈধভাবে শিক্ষক নিয়োগ দান

গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে জাতীয় করণের অজুহাতে অবৈধভাবে শিক্ষক নিয়োগ দান

September 6, 2016 - 5:07 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধি :
গাংনী পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ভুয়া শাখা খুলে ও জাতীয় করণের অজুহাতে ১৮জন শিক্ষককে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান লালু সরকারী কোন পরিপত্র ছাড়াই এ নিয়োগ দেন। এতে সদ্য নিয়োগ প্রাপ্ত শিক্ষকদের বেতন ভাতা অনিশ্চিত। তবে প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান নিজেকে নির্দোষ দাবী করেন।
প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ি, প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাকালীণ সময় হতে সরকারী নীতিমালা অনুযায়ি ১১জন শিক্ষক কর্মচারী নিয়ে যাত্রা শুরু করে। ২০০২ সালের স্মারক বিহীন ত্রুটিযুক্ত এক পত্রাবলে ৬ষ্ঠ, ৭ম ও ৮ম শ্রেনীর ক,খ ও গ এবং ৯ম ও ১০ম শ্রেনীর ক ও খ শাখা অনুমোদন দেখানো হয়। দীর্ঘ দিন পরে ওই শাখাতে কোন শিক্ষক নিয়োগ না হলেও বর্তমান প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান লালু নিয়োগ প্রাপ্ত হয়েই ২০১৩ সালে শাখা খোলার ভূয়া নথীর বলে আরো ৮ জন শিক্ষককে নিয়োগ দেন।
শাখা খোলার বিষয়টি ১২ এপ্রিল ২০১৫ ইং তারিখে মেহেরপুর জেলা শিক্ষা অফিসের কার্যালয় হতে তদন্ত দেয়া হলেও অদ্যাবধি তা সম্পন্ন হয়নি। এদিকে বিদ্যালয়ের ছাত্রিদের উপস্থিতি অনুযায়ি শাখা খোলার আবেদন গ্রহণ যোগ্য নয়। প্রতি এসএসসি পরীক্ষার জন্য অন্তত ৩০জন করে শিক্ষার্থী থাকা বা নীয়। অথচ বিদ্যালয়টিতে ২০১৬ সালে মোট ২৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২১ জন, ২০১৫ সালে ২৮ জনে ২২ জন, ২০১৪ সালে ২৯ জনে ২৮জন এবং ২০১৩ সালে ৩৫ জনে ৩১জন পরীক্ষার্থী পাশ করে।
২০১৬ সালের ২জুন প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক তথ্যে জানা গেছে, ওই প্রতিষ্ঠানে এমপিও ভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীর সংখ্যা ২৪ জন। এমপিও বিহীন কোন জনবল নেই বিদ্যালয়টিতে। ব্যানবেইজ শীটে পাওয়া গেছে সাধারণ শাখায় ২৪ জন ও কারিগরী শাখায় ১২জন। অথচ ইএমআইএস সেলের তথ্যানুযায়ি শিক্ষক কর্মচারীর সংখ্যা সাধারণ শাখায় ২৮ জন এবং কারিগরী শাখায় ১২ জন।
অন্যদিকে সরকার ঘোষিত নীতিমালা অনুযায়ি ২০১৫ সালের ২২ অক্টোবরের পর থেকে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সকল নিয়োগ স্থগিত রাখেন সরকার। অথচ প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান লালু জাতীয় করণের অজুহাতে আরো ১০ জন শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন । বিদ্যালয়ের অবকাঠামো ও শিক্ষার্থী অনুযায়ি ২৩ জন জনবল থাকার কথা।
প্রধান শিক্ষক আশরাফুজ্জামান জানান, প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক সকলকে নিয়োগ দেন। আমার যোগদানের সময় ৩জন শিক্ষক অবসরে যাওয়ায় সেই তিনজনকেই নিয়োগ দান করি। পরবর্তীতে জাতীয়করণের একটা আভাস পাওয়ায় ৫২ জন কর্মকর্তা কর্মচারীর পদ সৃষ্টির লক্ষ্যে আরো ১০ জনকে নিয়োগ দান করা হয়। তাদের বেতন ভাতা হবে কি হবেনা এটা নিয়োগ প্রাপ্তরাও জানেন।
এব্যাপারে জেলা শিক্ষা অফিসার সুভাষ চন্দ্র গোলদার জানান, শাখা খোলা ও শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে ১২ এপ্রিল ২০১৫ একটি তদন্তের লক্ষ্যে বিদ্যালয় পরিদর্শক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডকে অবহিত করা হয়েছে। তা এখনও আমাদের হাতে আসেনি। যদি কেউ দোষি হয়ে থাকেন তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও গত ৩ তারিখে জাতীয় করণের লক্ষে একটি তদন্ত হয়েছে। এসময় প্রতিষ্ঠানটির নানা অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়।
তিনি আরো জানান, আশরাফুজ্জামান জাতীয় করণের লক্ষ্যে পদ সৃষ্টির ব্যাপারে যা বলেছেন তা সঠিক নয়। তাছাড়া কোন প্রতিষ্ঠান জাতীয় করণের প্রস্তুতি নেয়া হলে সকল প্রকার নিয়োগ ও নিয়োগ বাতিলসহ সব কার্যক্রম স্থগিত থাকে। সেহেতু নতুন পদ সৃষ্টি ও নিয়োগ সম্পূর্ণ অবৈধ।

আপনার মতামত জানানঃ