ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারীর বিরুদ্ধে ১৭ লক্ষ টাকা লুটের অভিযোগ

গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারীর বিরুদ্ধে ১৭ লক্ষ টাকা লুটের অভিযোগ

September 25, 2016 - 2:15 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক আসাদুল ইসলাম লিটনের বিরুদ্ধে গত ২০১১ ও ২০১২ ইং অর্থ বৎসরের ডিএসএফ প্রকল্পের ১৭ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা আতœসাতকারী সিন্ডিকেটের প্রধান মূলহোতা আতœস্বীকৃত প্রাক্তন হিসাবরক্ষক ও বর্তমানে প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক আসাদুল ইসলাম লিটন সম্প্রতি যোগদানকৃত উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা অপূর্ব কুমার সাহাকে ক্ষমতাসীন দলের একাংশের কিছু অসাধু নেতৃবৃন্দসহ পূর্বের আতœস্বীকৃত সিন্ডিকেট সদস্যদের দিয়ে উল্টা-পাল্টা বুঝিয়ে এবং দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক) চেয়ারম্যানের আমলে নেওয়া আদেশাধীন ফাইলটি অবৈধ অর্থ দিয়ে কমিশনের অন্যান্য সদস্যদের যোগসাজসে লাল ফিতায় বন্দি করে ডিএসএফ এর দায়িত্ব ফিরে পেতে আবারো জোরালো লবিং শুরু করেছেন । গাংনী উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক,কর্মকর্তা/কর্মচারী ছাত্র জনতার দাবীর প্রেক্ষিতে আতœস্বীকৃত সিন্ডিকেট ধারীদের বাদদিয়ে উপজেলা ডিএসএফ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব আঃ সালাম অত্র কমপ্লেক্সে কর্মরত এমটি (ইপিআই) জনাব আব্দুর রশীদকে ডিএসএফ এর দায়িত্ব দেওয়ার জন্য সাবেক উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ হাসান আলীকে নির্দেশ দেন । সেই পর্যন্ত গত প্রায় তিন বৎসর যাবৎ গাংনী উপজেলা ডিএসএফ কার্যক্রমে কোন অভিযোগ ছাড়াই শতভাগ স্বচ্ছতার মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে । তথাপিও তার অপতৎপরতায় উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তাকে দিয়ে বিভিন্ন প্রকার মানসিক চাপ প্রয়োগ করে এমটি (ইপিআই) জনাব আব্দুর রশীদকে ডিএসএফ এর কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি নেওয়ার ব্যবস্থা প্রায় প্রতিকুলে আনেন ।ইতিপূর্বে এই আসাদুল ইসলাম লিটনের নেতৃত্বে ডিএসএফের লক্ষ লক্ষ টাকা লুটপাট হয় । প্রতিবাদে গাংনীর রাজনীতিবিদ,বুদ্ধিজীবি,সাংবাদিক,কর্মকর্তা/কর্মচারী,সহ¯্রাধীক ছাত্রজনতা সহ সভাপতি ডিএসএফ কমিটি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌছালে সাবেক হিসাব রক্ষক আসাদুল ইসলাম লিটন সাবেক উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তাডাঃ হাসান আলী, প্রাক্তন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ এএইচ এম আনোয়ারুল ইসলামসহ বাকী সিন্ডিকেট সদস্যরা প্রতিবাদী জনতার রোষানলে পড়ে কেউ কেউ সীমানা প্রাচীর লাফিয়ে, কেউ বাথরুমে বা টয়লেটে অবরুদ্ধ হন ।এই পর্যায়ে তারা স্বেচ্ছায় ১৭ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকা আতœসাতের বিষয়টি অকপটে স্বীকার করে লিখিত ভাবে উপস্থিত উপজেলা ডিএসএফ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব আঃ সালামের নিকট মুচলেকা আকারে জমা দেন।এক পর্যায়ে তাদের পুলিশে সোপর্দ করার সিন্ধান্ত নিলেও অজ্ঞাত কারনে গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ বিমল কৃষ্ণ মল্লিক তাদের নামে বিভাগীয় মামলা না হওয়া পর্যন্ত গ্রেফতারে আপত্তি জানান ।পরবর্তী পর্যায়ে তৎকালীন মেহেরপুরে কর্মরত সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুস শহিদ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে উপস্থিত উত্তেজিত জনতাকে শান্ত করেন ।সেই সময় সমস্ত ঘটনার স্বচিত্র প্রতিবেদন গত ২৯ ও ৩ শে জুন ২০১২ ইং তারিখে বেশ কয়েকটি স্থানীয় পত্রিকায় স্বচিত্র প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। কিন্তু অতি পরিতাপের বিষয় অপরাধীদের শাস্তি দেওয়া তো দুরের কথা বিচার প্রর্থীদের হাতথেকে সুকৌশলে অপরাধীদের রক্ষা করেন ।এলাকাবাসির অভিযোগ আতœস্বীকৃত দুর্নিতীবাজ রা রক্ষাপেয়ে কিভাবে আবারো উক্ত পদে দায়িত্ব পেয়ে তৎপর হয়ে ওঠে এ প্রশ্ন গাংনী উপজেলা বাসিকে হতবাক করেছে । যে লিটনের বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৪২ জন কর্মচারী ঐক্যবদ্ধ্য হয়ে দুর্নীতির প্রতিকার চেয়ে সিভিল সার্জন বরাবর আবেদন করে সুবিচার পাননি।বরং আবেদনকারীগন বিভিন্নভাবে হয়রানি হয়েছে ।এমনকি লিটনের হুমকির স্বীকার হয়েছেন ।জনসাধারনের আশংকা বর্তমান প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক আসাদুল ইসলাম লিটন সহ পূর্বের আতœস্বীকৃত দুর্নিতী বাজদের ক্ষমতার আসনে বসিয়ে দুর্নিতীর পরিধীর বিস্তার ঘটাবে এ আশংকা সর্বসাধারন সহ ভুক্তভোগীদের । এ প্রতিবেদনের দ্বিতীয় পর্ব আগামীতে আবার প্রকাশিত হবে ।

আপনার মতামত জানানঃ