ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   গাংনীর স্কুল ছাত্র আল আমিন হত্যার ঘটনায় ৮ মাস পর মামলা রেকর্ড। গ্রেফতার-১

গাংনীর স্কুল ছাত্র আল আমিন হত্যার ঘটনায় ৮ মাস পর মামলা রেকর্ড। গ্রেফতার-১

October 8, 2016 - 8:54 AM

আল-আমীন,মেহেরপুর) ঃ মেহেরপুরের গাংনীর চৌগাছা গ্রামের স্কুল ছাত্র আল আমিন হত্যার ঘটনায় ৮ মাস পর অবশেষে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। নিহত আল আমিনের পিতা চৌগাছা পশ্চিমপাড়ার আসমত আলী মামলা টি দায়ের করেন। মামলায় প্রধান আসামী সাগর হোসেনের সহযোগী কাজিপুর বর্ডার পাড়ার মোক্তার হোসেনের ছেলে লিটন কে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মনিরুজ্জামান। আল আমিন কে বিষপান করিয়ে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগে তার পিতা আসমত আলী চলতি বছরের ১৮ই জানুয়ারী গাংনী থানায় একটি এজাহার দায়ের করে।
নিহত আল আমিনের পিতা আসমত আলী জানান, চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি রবিবার দুপুরে অভিযুক্ত সাগর হোসেন সহ তার কয়েকজন সহযোগী আমার ছেলে আল আমিন কে গাংনী পাইলট স্কুল অ্যান্ড কলেজের মধ্যে ডেকে নিয়ে যায়। এর পর তাকে কোমল পানীর সাথে হারপিকও বিষ মিশিয়ে পান করানো হয়। এক পর্যায়ে আল আমিন অজ্ঞান হয়ে পড়লে তার কাছে থাকা একটি অ্যান্ড্রয়েড ও একটি নকিয়া ফোন নিয়ে পালিয়ে যায় সাগর। পরে আল আমিনের বন্ধুরা তাকে মুমূর্ষ অবস্থায় গাংনী হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে কর্তব্যরত চিকিৎসক কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে কুষ্টিয়া থেকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুদিন পর বুধবার তার মৃত্যু হয়। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে বৃহস্পতিবার তার মৃতদেহ আমাদের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিভাগের অধ্যাপক ডাঃ মনোয়ারুল ইসলামের উদ্ধৃতি দিয়ে নিহতের পরিবার সূত্র জানান, আল আমিনকে প্রকৃতপক্ষে কী পান করানো হয়েছে তা নিশ্চিত না হলেও প্রাণ নাশকারী কোন তরল পদার্থ তাকে পান করানো হয়েছে এটা নিশ্চিত। মারাত্মক বিষক্রিয়ায় তার কিডনি দ্রত অকেজ হয়ে পড়ে। কিডনি ডায়ালাইসিসের প্রস্তুতি নেয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই তার মৃত্যু হয়। লাশের ময়না তদন্ত ও ভিসেরা পরীক্ষা করলে বোঝা যাবে প্রকৃতপক্ষে তাকে কী খাওয়ানো হয়েছিল।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মনির হোসেন জানান,নিহত আল আমিনের পিতা আসমত আলী দেয়া অভিযোগ টি মামলা হিসেবে নেয়া হয়েছে। মামলা নং ০৩ তাং ০৫/১০/১৬ ইং। তিনি আরো জানান,মামলার এজাহার ভুক্ত অন্য আসামীদেরও গ্রেফতার চেষ্টা চলছে।
নিহত আল আমিনের পিতা আসমত আলী জানান, নানা দেরদরবার করার পর মামলা টি রেকর্ড হয়েছে। এবার অভিযুক্তদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দিলে আল আমিনের আত্মা শান্তি পাবে। আল আমিন গাংনী পৌর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর ছাত্র ছিলেন।

 

আপনার মতামত জানানঃ