ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   গাংনীর সন্ধানী সংস্থার পরিচালকের বিরুদ্ধে উন্নয়ন সহ বিভিন্ন ফিসের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

গাংনীর সন্ধানী সংস্থার পরিচালকের বিরুদ্ধে উন্নয়ন সহ বিভিন্ন ফিসের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

October 15, 2016 - 2:50 PM

আল-আমীন,মেহেরপুর ঃ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও সন্ধানী সংস্থার পরিচালক আবু জাফরের বিরুদ্ধে উন্নয়ন ফিসের নামে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয়ের উন্নয়নের নামে প্রতি মাসে ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে ৫০ করে নেয়ার কারনে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অভিভাবক বৃন্দ। উন্নয়ন ফিস নেয়া বন্ধে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ভুক্তভুগিরা। এ বিষয় টি খতিয়ে দেখতে দূর্নীতি দমন কমিশনের প্রতি আহবান জানিয়েছেন ভুক্তভুগী অভিভাবক বৃন্দ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক জানান,সন্ধানী স্কুল এন্ড কলেজে অন্তত এক হাজারেরও বেশি ছাত্রছাত্রী পড়াশুনা করে। প্রায় প্রতিটি ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে মাসে উন্নয়ন ফিস বাবদ ৫০ টাকা হারে আদায় করা হচ্ছে। সন্ধানী সংস্থার পরিচালক আবু জাফর প্রভাবশালী হওয়ার কারনে এসব অনিয়মের প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেনা কেউ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্র জানান, চলতি বছরের মে মাসে তার কাছ থেকে লাইব্রেরি ফিস ১০,পিটিএ ফিস ১০ টাকা করে নিলেও আবার অন্যান্য ফি বাবদ নেয়া হয়েছে ৫০ টাকা । এক্ষেত্রে তার কাছ থেকে উন্নয়ন ফি নেয়া হয়েছে ০৫ টাকা।
ক্ষুদ্ধ আরেক ছাত্র জানান, তার কাছ থেকে উন্নয়ন ফিস ৫০,মূদ্রন/রশিদ বই ফিস ২০,ক্রীড়া ফিস ১০,লাইব্রেরি ফিস ১০,পিটিএ ফিস ৫,ল্যাব ফিস ৪০ টাকা আদায় করা হয়েছে।
মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর হাবিবুল বাশার জানান,প্রতি মাসে ৫০ টাকা করে উন্নয়ন ফিস নেওয়ার কোন বৈধতা নেই। ইতো পূর্বে এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ দেয়নী। অভিযোগ পেলে সন্ধানী স্কুল এন্ড কলেজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
অনিয়মের বিষয়ে গাংনী উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও সন্ধানী সংস্থার পরিচালক আবু জাফরের সাথে কথা বলতে চাইলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে কল দিলে তিনি রিসিভ করেননী।
উল্লেখ্য ঃ সন্ধানী স্কুলের প্রধান শিক্ষকের ০৩.০৪.১৫ ইং তারিখের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিঅ-৬/৫৮৩০ নং স্বারকে ০১.০১.১১৫ ইং থেকে ৩১.০১২.১৭ ইং তারিখ পর্যন্ত আগামি ৩ বছরের জন্য এ বিদ্যালয়ের স্বীকৃতি নবায়ন করে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড যশোর এর বিদ্যালয় পরিদর্শক মোল্লা আমীর হোসেন। ১৩.০৫.১৫ ইং তারিখে পরিদর্শক মোল্লা আমীর হোসেন স্বাক্ষরিত পত্রে ১৬ টি শর্ত দেয়া হলেও বেশির ভাগই মানা হচ্ছেনা বলে অভিযোগ রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ