ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   গরু মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার বন্ধে ব্যবস্থা

গরু মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার বন্ধে ব্যবস্থা

August 27, 2016 - 4:05 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : গরু মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্ববান জানিয়েছে পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা)।

 

শনিবার পবা কার্যালয়ে আয়োজিত ‘গরু মোটাতাজাকরণ : কোরবানির পবিত্রতা ও স্বাস্থ্যঝুঁকি’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এ আহ্ববান জানানো হয়।

 

বৈঠকে আলোচকরা জানান, কোরবানির ঈদকে কেন্দ্র করে অধিক মুনাফার লোভে অসাধু ব্যবসায়ীরা গরু মোটাতাজাকরণে অতিরিক্ত ইউরিয়া, সিপ্রোহেপ্টাডিন, স্টেরয়েড, অ্যানাবলিক স্টেরয়েড, হরমোন খাওয়ানোর পাশাপাশি ইনজেকশন ব্যবহার করে থাকে, যা মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

 

ক্ষতিকর এসব ওষুধ বিভিন্ন নামে বাজারে পাওয়া যায়, যেমন : ওরাডেক্সনস, বেটনেনাল, ডেল্টাকর্টিল, ডেকাসন, অ্যাডাম-৩৩, ডেল্টাসন, কর্টান, বেক্সিপ্রেড।

 

কৃত্রিম পদ্ধতিতে অস্বাভাবিকভাবে মোটাতাজা করা গরুর মাংস খেলে কিডনি, লিভার, হৃদপিণ্ডসহ মানব শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের কার্যক্ষমতা নষ্ট হয় জানিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেন আলোচকরা।

 

তারা জানান, স্বল্প সময়ে অধিক লাভের জন্য সংঘবদ্ধ চক্র দেশব্যাপী সক্রিয় আছে। তাই জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় কোরবানির গরু মোটাতাজাকরণের এমন পদ্ধতি বন্ধে সরকারের পক্ষ থেকে কঠোর ও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।

 

‘স্বাস্থ্যবান গরু উৎপাদন বৈজ্ঞানিকভাবে স্বীকৃত এবং কৃষি বিভাগ অনুমোদিত। সেই প্রক্রিয়ায় গরু মোটাতাজা হতে তিন থেকে ছয় মাস সময় লাগে। কিন্তু অসাধু ব্যবসায়ীরা অল্প সময়ে মোটাতাজা করতে খরচ কমাতে মানব শরীরের ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার করে থাকে।

 

ক্ষতিকর ওষুধের মাধ্যমে গরু মোটাতাজাকরণ বন্ধের বিষয়টি দেখভালের দায়িত্ব প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের। কিন্তু ওই অধিদপ্তরের কর্মকর্তারাই অসাধু চক্রের সঙ্গে জড়িত, এমন অভিযোগ ওঠে বৈঠকে।

 

বাংলাদেশ অ্যানিম্যাল জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণার কথা উল্লেখ করে বৈঠকে জানানো হয়, ২০১২ সালে দেশের ৬৩ দশমিক ৭ শতাংশ কৃষক গরু মোটাতাজা করার জন্য ট্যাবলেট ব্যবহার করছেন।

গরু মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর ওষুধ ব্যবহার বন্ধে ব্যবস্থা

এ ছাড়া বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৪ সালের গবেষণায় দেখা গেছে, উত্তরবঙ্গের ৭০ দশমিক ৬০ শতাংশ গরুকে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ দেওয়া হয়েছে। তবে এর প্রকৃত সংখ্যা আরো বেশি।

 

সরকারের তরফ থেকে নজরদারি বাড়ানোর পাশাপাশি পশুর হাটে চিকিৎসকদলের সংখ্যা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে আলোচকরা বলেন, কৃষি মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে প্রচার চালানোর পাশাপাশি গরু মোটাতাজাকরণে বিষাক্ত পদ্ধতি ব্যবহার বন্ধে স্থানীয়ভাবে সচেতনতা বাড়ানো জরুরি।

 

গোলটেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন পবা চেয়ারম্যান আবু নাসের খান। সংগঠনটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. লেনিন চৌধুরী মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

 

বৈঠকে বক্তব্য রাখেন পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আবদুস সোবহান, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম, সহ-সম্পাদক মো. সেলিম, সদস্য প্রকৌশলী তোফায়েল আহমেদ প্রমুখ।

আপনার মতামত জানানঃ