ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   গত ২০ বছরে প্রায় চার শতাধিক খাতে সিন্ডিকেট ঋণ দিয়েছে

গত ২০ বছরে প্রায় চার শতাধিক খাতে সিন্ডিকেট ঋণ দিয়েছে

October 6, 2016 - 2:01 PM

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : গত ২০ বছরে প্রায় চার শতাধিক খাতে সিন্ডিকেট ঋণ দিয়েছে দেশে কার্যরত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। ২০১৫ সালে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক খাতে ঋণ দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিরপুরে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) এক কর্মশালায় এসব তথ্য তুলে ধরা হয়।

কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর সিতাংশু কুমার (এস কে) সুর চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন- এনসিসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম হাফিজ চৌধুরী, পূবালী ব্যাংকের প্রাক্তন ব্যবস্থাপনা পরিচালক হেলাল আহমেদ চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, চলতি বছর গত ছয় মাসে অন্তত ২৭টি খাতে সিন্ডিকেট ঋণ দেওয়া হয়। ১৯৯৫-২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত সময়ে ৭৬ হাজার ৬৫২ কোটি টাকার সিন্ডিকেট ঋণ দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে যেকোনো ধরনের ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের প্রাধান্য দেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন এস কে সুর চৌধুরী।

তিনি বলেন, আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন ব্যাংকিং খাত অনেক শক্তিশালী। তবে দুয়েকটি দুর্ঘটনা ঘটবে, এটাই স্বাভাবিক। দেশে এখন বড় প্রকল্প হচ্ছে। সিন্ডিকেশন লোনের মাধ্যমে এসব প্রকল্পে অর্থায়ন হলে ঝুঁকি অনেক কমে যায়।

কর্মশালার শুরুতে বিআইবিএম পরিচালিত একটি গবেষণাপত্র উপস্থাপন করেন সংস্থার অধ্যাপক হেলাল আহমেদ চৌধুরী। তিনি বলেন, বড় প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের একক বিনিয়োগের পরিবর্তে যৌথ অর্থায়ন বা লোন সিন্ডিকেশন করা হয়। এতে প্রকল্প বাস্তবায়ন সহজ হলেও অর্থায়নের ক্ষেত্রে ২৭টি চ্যালেঞ্জ রয়েছে।

গবেষণাপত্র থেকে তিনি জানান, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ৩৯৮টি প্রকল্পে ৭৬ হাজার ৫২৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা সিন্ডিকেশন ঋণ বিতরণ করেছে। ১৯৯৫ থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত পোশাক, টেক্সটাইল, স্পিনিং, জ্বালানিসহ মোট ১২ খাতে এ সব ঋণ বিতরণ করা হয়।

গবেষণাপত্রে উল্লেখিত ২৭ চ্যালেঞ্জের মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হলো- রাজনৈতিক অস্থিরতা, যন্ত্রপাতির সঙ্কট, যন্ত্রপাতির জন্য বিদেশের প্রতি নির্ভরশীলতা, মার্কেটিংয়ের ব্যর্থতা, পলিসি গাইডলাইন পরিবর্তন, অর্থনৈতিক সঙ্কট, সময়মতো প্রকল্পের কাজ শেষ না হওয়া, আয়োজক কমিটিতে পারস্পরিক দ্বন্দ্ব, পুনঃপরিশোধে ব্যাংক ঋণের সুদ বেড়ে যাওয়া, নগদ অর্থের সঙ্কট, বাজারের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি, ইউটিলিটি সংযোগের অভাব, সময়ের স্বল্পতা, বেপজার জমি স্থানান্তরে বিলম্ব, সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্পন্সরের জ্ঞানের স্বল্পতা, ভুল প্রকল্পে বিনিয়োগ, জ্বালানি ও বৈদ্যুতিক সমস্যা, গ্যাস সঙ্কট, যাচাই-বাছাই ছাড়া ঋণ বিতরণ ইত্যাদি।

আপনার মতামত জানানঃ