ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  রাজনীতি   »   খালেদা জিয়া জঙ্গিদের পক্ষ নিয়ে ঐক্যবদ্ধ জাতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন : বাণিজ্যমন্ত্রী

খালেদা জিয়া জঙ্গিদের পক্ষ নিয়ে ঐক্যবদ্ধ জাতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন : বাণিজ্যমন্ত্রী

August 28, 2016 - 3:59 PM

বিশেষ প্রতিবেদক : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জঙ্গিদের পক্ষ নিয়ে ঐক্যবদ্ধ জাতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় এ মন্তব্য করেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সরকার আজ পর্যন্ত সত্যিকারের কোনো জঙ্গি ধরেনি, খালেদা জিয়ার এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে উল্লিখিত মন্তব্য করেন তোফায়েল আহমেদ।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে বাংলাদেশের মানুষ অবাক হয়েছে, বিস্মিত হয়েছে। আটক হওয়া অনেক জঙ্গি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। জঙ্গি বলে তাদের পরিবার-আত্মীয় স্বজনরা তাদের লাশ নিচ্ছে না। অথচ খালেদা জিয়া তাদের পক্ষে কথা বলছেন। তিনি জঙ্গিদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

গত শনিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার আজ পর্যন্ত সত্যিকারের কোনো জঙ্গি ধরেনি। এই জঙ্গি, অমুক জঙ্গি, তমুক সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করতে করতে অনেককে ক্রসফায়ার করে মেরে ফেলা হয়েছে। এসব করে তারা খুব বাহবা নিচ্ছে।’
সম্প্রতি জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতা পুরস্কার প্রত্যাহার ও জাতীয় জাদুঘর থেকে ওই পুরস্কারের মেডেল ও সম্মাননাপত্র সরিয়ে ফেলার সুপারিশ করে। এ বিষয়ে তোফায়েল আহমেদ বলেন, স্বাধীনতা পুরস্কার দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং জিয়াউর রহমানকে সমপর্যায়ে নিয়ে যাওয়া অযৌক্তিক। এ ছাড়া জিয়ার শাসনামল অসাংবিধানিক বলে আদালত আগেই ঘোষণা করেছেন। এ কারণেই তার জাতীয় পুরস্কার প্রত্যাহারের বিষয়টি সামনে এসেছে।

রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের সিদ্ধান্তের বিষয়ে তিনি বলেন, দেশের কোনো ক্ষতি হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমন কোনো পদক্ষেপ নেবেন না বলে আমি মনে করি। যারা এর বিরোধিতা করছে, তারা দেশের উন্নয়ন ব্যাহত করতে চায়।

যুক্তরাষ্টের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির বাংলাদেশ সফর প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তোফায়েল আহমেদ বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সফরের সঙ্গে যুদ্ধাপরাধের বিচার বিষয়ে কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। বরং আমরা বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফেরত আনার বিষয়ে আলাপ করতে পারি।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের অগ্রাধিকারমূলক বিশেষ বাণিজ্য সুবিধার (জিএসপি) বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, জিএসপির কথা আমাদের ভুলে যাওয়াই উচিত। যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে এখন বাংলাদেশের সাড়ে ছয় বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি হচ্ছে। ২০১৩ সালে জিএসপি সুবিধা স্থগিত করার সময় মাত্র ২৩ মিলিয়ন ডলারের জিএসপি সুবিধা পেত বাংলাদেশের প্লাস্টিক, সিরামিক ও তামাক শিল্প। এসব খাতে সুবিধা চলে যাওয়ায় আমরা নগদ প্রণোদনা দিয়ে রপ্তানি বাড়াতে ব্যবসায়ীদের উৎসাহ দিচ্ছি।’

আপনার মতামত জানানঃ