ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়প্রধান সংবাদ   »   খাদিজা বেগম নার্গিসের চোখে এখনও আতঙ্কের ছাপ

খাদিজা বেগম নার্গিসের চোখে এখনও আতঙ্কের ছাপ

October 21, 2016 - 5:30 AM

জাতীয় : স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সিলেট মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী খাদিজা বেগম নার্গিসের চোখে এখনও আতঙ্কের ছাপ। স্বজনদের দেখলেই শুধু কাঁদছেন তিনি।বৃহস্পতিবার রাতে রাইজিংবিডির সঙ্গে একান্ত আলাপকালে খাদিজার মা মনোয়ারা বেগম এ তথ্য জানিয়েছেন।

মনোয়ারা বেগম বলেন, ‘আমার মেয়ে শুধু কান্না করছে। তার দুই চোখে আমি এখনও আতঙ্কের ছাপ দেখছি। তার ভেতর থেকে ভয় এখনও কাটছে না। আমাদের দিকে শুধু ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকছে। ডাক দিলে সাড়া দেওয়ার চেষ্টা করছে। আমরা শুধু তাকে ভরসা দিয়ে আসছি, এখন আর তার কিছু হবে না।’

তিনি বলেন, ‘মেয়েটা আমার সদ্যভুমিষ্ট হওয়া শিশুর মতো হয়ে গেছে। তাকে বলছি আমি তোমার আম্মা, তখন সে আম্মা বলে ডাকছে আর কাঁদছে। তার বাবাকে বাবা বলেও ডেকেছে। কথা বলতে তার ‍খুবই কষ্ট হচ্ছে।’

কান্নাজড়ি কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘আমার মেয়েকে যে হামলা করেছে তার সুষ্ঠু বিচার আমি চাই। তা না হলে খাদিজার মতো আরো অনেক মেয়ে এ ধরণের ঘটনার শিকার হবে। কতটা নির্মম আর অমানুষ হলে একটা মেয়েকে এভাবে কুপিয়ে মারার চেষ্টা করে আমি ভাবতে পারি না।’

খাদিজার বাবা বলেন, ‘ধীরে ধীরে খাদিজার স্মৃতিশক্তি ফিরে আসছে। শরীরে যেসব অংশে যখম আছে সেসব জায়গার ব্যথার যন্ত্রণায় ছটফট করছে সে। দেখে খুবই কষ্ট হয়। তার শরীরের বাম দিকের অনুভূতি এখনও ফিরে আসেনি। চিকিৎসকরা বলছেন আরো সময় লাগবে। তবে সে ডান হাত ও ডান পা নাড়াতে পারছে।’

এদিকে হামলার ঘটনায় বদরুলের বিরুদ্ধে খাদিজার চাচা আব্দুল কদ্দুসের দায়ের করা মামলার চার্জশিট আগামি রোববার আদলতে দেওয়া হবে বলে মামলা সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে। চার্জশিটে হামলার ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী সাতজনসহ ৩০ জন সাক্ষ্য দিবেন।

অপরদিকে, বদরুলের পক্ষে আদালতে কোন আইজীবী লড়বেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সিলেটের আইনজীবীরা।

প্রসঙ্গত, গত ৩ অক্টোবর বিকেলে মুরারী চাঁদ (এমসি) কলেজ ক্যাম্পাসে খাদিজা বেগম নার্গিসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সহসম্পাদক বদরুল আলম।

আপনার মতামত জানানঃ