ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম নিয়ে নতুন সঙ্কটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে

কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম নিয়ে নতুন সঙ্কটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে

August 29, 2016 - 8:22 AM

নিউজ : কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম নিয়ে নতুন সঙ্কটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, বিশ্ব বাজারে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের অব্যাহত দরপতনের অজুহাতে এবারো কোরবানির চামড়ার দাম কমানোর পাঁয়তারা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। এ কারণে দাম নির্ধারণ করে দেয়ার ব্যাপারে সরকার অনড়।

সরকারের পক্ষ থেকে আশঙ্কা করা হচ্ছে, সঠিক ও ন্যায্য দাম নির্ধারিত না হলে কাঁচা চামড়া পাচার হতে পারে। ইতোমধ্যে পাচাররোধে সীমান্ত এলাকায় বিজিবির টহল জোরদার করার নির্দেশও দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। চামড়া বাণিজ্যে অংশ নিতে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন সারাদেশ। গ্রাম থেকে রাজধানী ঢাকায় ছুটে আসছেন কসাই ও ফড়িয়ারা। বসে নেই ট্যানারি মালিকরাও। চামড়া সংগ্রহে পর্যাপ্ত লবণ ও যাবতীয় কেমিক্যাল সংগ্রহ করেছে ট্যানারিগুলো। কিন্তু চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করছেন না ব্যবসায়ীরা।

এই অবস্থায় আগামী ৪ সেপ্টেম্বর সকল পক্ষকে সঙ্গে নিয়ে বৈঠকে বসতে যাচ্ছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। বৈঠকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি, বাংলাদেশ ফরেন ট্রেড ইনস্টিটিউট, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত থাকবেন। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আশা করা হচ্ছে, এদিন চামড়ার ন্যায্য মূল্য নির্ধারণ করা যাবে। তবে চামড়া ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে এ বিষয়ে এখনো কোনো সঙ্কেত পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত ১০ আগস্ট চামড়ার মূল্য নির্ধারণে প্রথম দফায় বৈঠক হয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে। আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে পশুর চামড়ার সুষ্ঠু সংগ্রহ, রক্ষণাবেক্ষণ এবং সর্বস্তরে যৌক্তিক মূল্য নিশ্চিতসহ যে কোনো নৈরাজ্য রোধে বৈঠকে মন্ত্রণালয় কিছু নির্দেশনা দিয়েছিল।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলেছিল, ক্রেতা-বিক্রেতা কোনো পক্ষই যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হন সে কারণে আগে থেকেই মাঠ পর্যায়ে কোরবানির চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করতে হবে। আর এই দাম নির্ধারণ হতে হবে যৌক্তিক এবং আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। নির্ধারিত দামের সঙ্গে চামড়া সংশ্লিষ্ট সবকটি সংগঠনকেও একমত হতে হবে। কোরবানি শুরুর কয়েক দিন আগেই এটি জাতীয়ভাবে ঘোষণা দিতে হবে।

কিন্তু এখনো এ বিষয়ে কোনো প্রাথমিক সিদ্ধান্তও নেননি ট্যানারি ব্যবসায়ীরা। তবে তারা বলছেন, এবার চামড়ার দাম গত বছরের চেয়ে কম হবে। এর কারণ হিসেবে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার দাম কমে যাওয়াকে দায়ী করছেন তারা।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘কোরবানির চামড়ার কেনাকাটা নিয়ে কোনো পক্ষ যাতে ক্ষতির শিকার না হয়, মূলত সে জন্যই আগাম মূল্য নির্ধারণের ঘোষণা দেয়া জরুরি। চামড়া নিয়ে সব মহলের আগাম প্রস্তুতির জন্যই সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বৈঠক ডাকা হয়েছে। বৈঠকে আমরাও কিছু নির্দেশনা দেব, চামড়া সংশ্লিষ্টদেরও বিভিন্ন অভাব-অভিযোগের কথা শুনব। এরপর একটি সিদ্ধান্ত হবে, যা জাতীয়ভাবে ঘোষণা করা হবে।

চামড়া সংশ্লিষ্ট তিন সংগঠন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিটিএ), বাংলাদেশ হাইড মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (বিএইচএসএমএ) এবং বাংলাদেশ ফিনিশ লেদার, লেদারগুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএফএলএলএফইএ) চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করে।

এ সব সংগঠনই এবার চামড়ার দাম কমানোর কথা বলছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেন, ‘গত এক বছরে আর্ন্তজাতিক বাজারে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের দাম কমেছে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ। দেশের বাজারে এ হার আরো বেশি। তাই স্বাভাবিক ভাবেই এবার চামড়ার দাম গত বছরের চেয়ে কম হবে।’

তিনি বলেন, ‘দেশি ব্যবসায়ীরা ৪১ শতাংশ কম দামে চামড়া কিনছেন। এর ওপরে ট্যানারি মালিকদের মূলধন খেয়ে ফেলছে সাভারের রিলোকেশন প্রকল্প। সব মিলিয়ে ব্যবসায়ীরা গত কয়েক মাস ধরেই সংগ্রামের মধ্যে রয়েছেন।’

এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান বলছে, ‘প্রতিবছরই কমছে চামড়ার দাম। এক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের চালাকিই হোক বা বাস্তবতাই হোক, প্রান্তিক ব্যবসায়ীরা প্রতিবছরই লোকসানে পড়েছেন।’

মন্ত্রণালয়ের তথ্যে জানা যায়, গত বছরও চামড়ার দর বেঁধে দেয়া হয়েছিল। তবে এর মূল্যস্তর ছিল আগের বছরের চেয়ে ৩০ শতাংশ কম। ব্যবসায়ীদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গতবার ঢাকায় গরুর প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত চামড়া ৫০-৫৫ টাকা ও ঢাকার বাইরে ৪০-৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এছাড়া প্রতি বর্গফুট মহিষের লবণযুক্ত চামড়ার দর ধরা হয় ৩৫-৪০ টাকা। আর দেশজুড়ে খাসির প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত চামড়া ২০-২২ টাকা ও বকরির চামড়া ১৫-১৭ টাকা।

এর আগের বছর, ২০১৪ সালে চামড়ার দাম আরেকটু বেশি ছিল। তখন ঢাকায় প্রতিফুট লবণযুক্ত গরুর চামড়া ৭০ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হয়। ঢাকার বাইরে এ দর ছিল ৬০ থেকে ৬৫ টাকা। প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত মহিষের চামড়ার দাম ছিল ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, খাসির চামড়ার দাম ছিল ৩০ থেকে ৩৫ টাকা ও বকরির চামড়ার দাম ছিল ২৫ থেকে ৩০ টাকা।

২০১৩ সালে দাম ছিল আরো বেশি। তখন ব্যবসায়ীরা ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৮৫ থেকে ৯০ টাকায় কেনে। ঢাকার বাইরে এর দর ছিল ৭৫ থেকে ৮০ টাকা।

পরিসংখ্যান বিবেচনা করলে, এবারো চামড়ার দাম কমতে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। তবে তারা বলছেন, মূল্য যা-ই হোক, তা যেন যৌক্তিক এবং আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়।

আপনার মতামত জানানঃ