ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   কোরবানির আগেই মসলার বাজারে ধস

কোরবানির আগেই মসলার বাজারে ধস

জুলাই ২৬, ২০২০ - ৭:৫৫ অপরাহ্ণ
মসলার বাজার

চাহিদার বিপরীতে অতিরিক্ত আমদানির পাশাপাশি বন্যার কারণে কোরবানির পশু বিক্রি আশঙ্কাজনক হারে কমে যাওয়ায় ধস নেমেছে দেশের মসলার বাজারে। সামনে কোরবানির ঈদ তারপরও সব ধরণের মসলার দাম রয়েছে সর্বনিম্ন পর্যায়ে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে আদা-রসুন-পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৫ থেকে ২০ টাকা এবং জিরা-এলাচ-লবঙ্গ ও দারচিনির দাম ২০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত কমেছে।

প্রতি বছরই কোরবানির ঠিক আগ মুহুর্তে বাড়তে থাকে আদা-রসুন এবং পেঁয়াজের দাম। কিন্তু এবার পরিস্থিতি পুরোপরি ভিন্ন। করোনা আতঙ্কে কোরবানির পশুর হাটের বেচাকেনা কমে গেছে আশঙ্কাজনক হারে। আর তার প্রভাব এসে পড়েছে মসলার বাজারেও। প্রতি কেজি পেঁয়াজ এখন মাত্র ১৮ টাকা। একইভাবে কমেছে আদা ও রসুনের দামও।

দেশে প্রতি বছর ১৮ থেকে ২০ হাজার মেট্রিক টন জিরা, পাঁচ হাজার মেট্রিক টন এলাচ, ছয়শ মেট্রিক টন লবঙ্গ, ২৫ হাজার মেট্রিক টন দারুচিনি এবং দু’ হাজার মেট্রিক টন গোল মরিচের চাহিদা রয়েছে।

বাংলাদেশে থার্ড কান্ট্রি হিসাবে ভারত থেকে জিরাসহ আরো কিছু মসলা আমদানি করা হলেও মূলত গুয়েতেমালা থেকে এলাচি, চীন এবং ভিয়েতনাম থেকে দারচিনি, লবঙ্গ, গোলমরিচ আমদানি করা হয়। একদিকে অতিরিক্ত আমদানি, অন্যদিকে চাহিদা কমে যাওয়া। আর এই দু’য়ে মিলে প্রতিদিনই কমছে দামি মসলার দাম। কেজিতে ৩০০ টাকা কমেছে এলাচের। আর জিরা এবং গোলমরিচে ২০ টাকা, লবঙ্গ এবং দারচিনিতে কমেছে ৩০ টাকা।

গত অর্থবছরে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ২৫ হাজার মেট্রিক টন জিরা, ২ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন এলাচ, ১ হাজার ৬৫০ মেট্রিক টন লবঙ্গ, ১৬ হাজার মেট্রিক টন দারচিনি এবং ১ হাজার ৭০ মেট্রিক টন গোলমরিচ আমদানি হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ