ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   কোমায় ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী

অবস্থা অপরিবর্তিত

কোমায় ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী

আগস্ট ১৩, ২০২০ - ২:১৬ অপরাহ্ণ
কোমায় প্রণব মুখার্জী

কোমায় চলে গেছেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছেন হিন্দুস্তান টাইমস। সেখানে বলা হয়েছে ভারতের আর্মি’স রিসার্চ অ্যান্ড রেফারেল হাসপাতাল প্রণব মুখার্জির কোমায় চলে যাওয়ার খবরটি নিশ্চিত করেছে।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, প্রণব মুখার্জীর অবস্থা অপরিবর্তিত এবং তাকে ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রাখা হয়েছে।

সোমবার অসুস্থ হয়ে পড়লে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে মস্তিষ্কের সার্জারি করা হয় তার। পরে তার করোনাভাইরাস পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

হাসপাতালে ভর্তির পর থেকে প্রণব মুখার্জীর স্বাস্থ্য নিয়ে নানা গুঞ্জন ছড়ায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ কেউ তার মৃত্যুর সংবাদ লিখে স্ট্যাটাস দেন।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আজ সকালে টুইটারে প্রণব মুখার্জীর ছেলে অভিজিৎ তার পিতার স্বাস্থ্য সম্পর্কে ভুয়া খবর ছড়ানো বন্ধ করার আহ্বান জানান। এসময় টুইটারে তিনি জানান, প্রণব মুখার্জীর অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

প্রণব মুখার্জী ভারতের ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি (জুলাই, ২০১২-এ কার্যভার গ্রহণকারী)। তার রাজনৈতিক কর্মজীবন ছয় দশকব্যাপী। তিনি ছিলেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা। বিভিন্ন সময়ে ভারত সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছিলেন। ২০১২ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আগে প্রণব মুখার্জী ছিলেন ভারতের অর্থমন্ত্রী ও কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় সমস্যা-সমাধানকারী নেতা।

১৯৬৯ সালে তদনীন্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সাহায্যে প্রণব মুখার্জী ভারতীয় সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচিত হন। এরপর রাজনৈতিক কর্মজীবনে তার দ্রুত উত্থান শুরু হয়। তিনি ইন্দিরা গান্ধীর একজন বিশ্বস্ত সহকর্মীতে পরিণত হন এবং ১৯৭৩ সালে ইন্দিরা গান্ধীর ক্যাবিনেট মন্ত্রিসভায় স্থান পান। ১৯৮২-৮৪ পর্বে তিনি ছিলেন ভারতের অর্থমন্ত্রী। ১৯৮০ থেকে ১৯৮৫ পর্যন্ত তিনি রাজ্যসভার দলনেতাও ছিলেন।

প্রণব মুখার্জী বিভিন্ন সময়ে ভারতের বিদেশ, প্রতিরক্ষা, যোগাযোগ, রাজস্ব ইত্যাদি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব পালনের বিরল কৃতিত্বের অধিকারী। ভারত-মার্কিন অসামরিক পরমাণু চুক্তি সাক্ষরের মতো বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বৈদেশিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে তার অবদান অনস্বীকার্য। দলের প্রতি আনুগত্য ও অসামান্য প্রজ্ঞা এই বাঙালি রাজনীতিবিদকে কংগ্রেস দলে ও এমনকি দলের বাইরেও বিশেষ শ্রদ্ধার পাত্র করেছে। দেশের প্রতি অবদানের জন্য তাকে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পদ্মবিভূষণ ও শ্রেষ্ঠ সাংসদ পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে। ১৯৮৪ সালে, যুক্তরাজ্যের ইউরোমানি পত্রিকার একটি সমীক্ষায় তিনি বিশ্বের শ্রেষ্ঠ পাঁচ অর্থমন্ত্রীর অন্যতম হিসেবে বিবেচিত হন।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

Tags:

আপনার মতামত জানানঃ