ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   কুমিল্লায় ফসলি জমি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

কুমিল্লায় ফসলি জমি থেকে গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার

নভেম্বর ১৪, ২০২০ - ৯:৪৭ অপরাহ্ণ

কুমিল্লার হোমনা উপজেলার নিলখী ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামে ফসলি জমি থেকে নাসিমা আক্তার (৩০) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

হোমনা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-ওসি মো.আবলু কায়েস আখন্দ মামলার এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ওই গৃহবধূর বাবার অভিযোগ, নাসিমাকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর দুই সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে গেছে তার স্বামী জাকির হোসেন (৫০)।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) সকাল ৮টায় চম্পকনগর গ্রামের ফসলি জমি থেকে উদ্ধার করা মরদেহে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় হোমনা থানায় হত্যা মামলা হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ১৫ বছর আগে চম্পকনগর গ্রামের ওয়াহাব আলীর মেয়ে নাসিমা আক্তারের সঙ্গে মাথাভাঙ্গা ইউনিয়নের ছয়ফুল্লাকান্দি গ্রামের জাকির হোসেনের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে দুই সন্তান রয়েছে। শুক্রবার সকালে স্বামী জাকির হোসেন টাকার জন্য স্ত্রী নাসিমাকে বেধড়ক মারধর করেন। একপর্যায়ে নাসিমা স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে দুপুরে বাবার বাড়ি চম্পকনগরে চলে যান। বাবার বাড়ির লোকজন তাকে হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি নিয়ে আসেন। রাত ১০টার দিকে স্বামী জাকির হোসেন ফোন করে নাসিমা আক্তারকে বাড়ি থেকে বের হতে বলেন। বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর নাসিমার মোবাইলফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরিবারের লোকজন তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেন। শ্বশুরবাড়িতেও খোঁজ করে তাকেও পাওয়া যায়নি।

শনিবার সকাল ৮টার দিকে বাড়ির পাশের জমিতে মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী খবর দেয় তার বাবাকে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে। ঘটনার পর থেকে দুই সন্তানসহ জাকির হোসেনের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। জাকির হোসেন টাকাপয়সার জন্য প্রায়ই নাসিমাকে মারধর করতেন বলে জানিয়েছেন নিহতের ভাই আনোয়ার হোসেন।

হোমনা-মেঘনা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. ফজলুল করিম বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর জাকির হোসেন দুই সন্তান নিয়ে পালিয়ে গেছেন।

আপনার মতামত জানানঃ