ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   কী বললেন হিলারি ক্লিনটন-ডোনাল্ড ট্রাম্প

কী বললেন হিলারি ক্লিনটন-ডোনাল্ড ট্রাম্প

October 10, 2016 - 9:17 AM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দুই প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ও ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয়বারের মতো সরাসরি টেলিভিশন বিতর্কে মুখোমুখি হলেন।

টাউন হল স্টাইলের এ বিতর্কে ব্যক্তিগত ইস্যুতেই বেশি কথা বলেছেন তারা। নারীদের নিয়ে ট্রাম্পের অশ্লীল মন্তব্যকে হাতিয়ার করে আক্রমণ শানিয়েছেন হিলারি। আর ট্রাম্প তাক করেছেন বিল ক্লিনটনের যৌন কেলেঙ্কারীর দিকে।

স্থানীয় সময় রোববার রাতে (বাংলাদেশ সময় সোমবার সকাল) সেন্ট লুইসে ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে ৯০ মিনিট ধরে এ বিতর্ক হয়। সিএনএন, ফক্স নিউজসহ অসংখ্য টেলিভিশন ও ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক সরাসরি এ বিতর্ক সম্প্রচার করে। কয়েকটি কোটি মানুষ তা দেখেছেন।

আরো পড়ুন- দ্বিতীয় বিতর্ক : হিলারিকে জেলে ঢোকানোর হুমকি

গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন ইস্যুতে কথা বলেছেন তারা। পাঠকদের জন্য তাদের কথার চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের গুরুত্বপূর্ণ উক্তি

নিজেকে রাজনীতিক বলা প্রসঙ্গে : ‘আমি বিশ্বাস করি না, নিজের সম্পর্কে আমি এমনটি বলেছি।’
২০০৫ সালের অশালীন মন্তব্য সম্পর্কে : ‘সেটি ছিল রুদ্ধদ্বার আলোচনা।’ ‘তার জন্য আমি গর্বিত নই। আমি আমার পরিবারেরক কাছে ক্ষমা চেয়েছি। আমি আমেরিকার জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়েছি।’ ‘নারীদের প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধা আছে। নারীদের  প্রতি আমার যে শ্রদ্ধা, তা আর কারো নেই।’

বিল ক্লিনটনকে নিয়ে : ‘আমেরিকার রাজনৈতিক ইতিহাসে এমন কোনো ব্যক্তি নেই, যিনি নারীদের বিল ক্লিনটনের চেয়ে বেশি অপব্যবহার করেছেন।’

হিলারি ক্লিনটনের অঙ্গীকার সম্পর্কে : ‘এ শুধু কথার কথা, গল্প। শুধু কথার কথা।’

হিলারিকে বার্নি স্যান্ডার্সের সমর্থন বিষয়ে : ‘শয়তানের সঙ্গে তার চুক্তি হতে দেখে আমি খুবই বিস্মিত।’

হিলারি ইমেইল ইস্যুতে : ‘আমরা একজন কৌঁসুলি খুঁজছি, আমরা বিষয়টি দেখে ছাড়াব।’ ‘আমি যদি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হই, তাহলে হিলারিকে জেলে পাঠাব।’

যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে : ‘চরম বিরোধিতা করা হবে… যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নেতাদের তাদের প্রতিবেশীদের সম্পর্কে সন্ত্রাসী কর্মকা-ের বিষয়ে তথ্য দিতে হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রে শরণার্থী আসা প্রসঙ্গে : ‘আমরা তাদের বিশ্বাস সম্পর্কে জানি না। তাদের দেশাত্মবোধ সম্পর্কে আমরা জানি না। যেকোনো সময়ের চেয়ে সবচেয়ে ভয়াবহ শত্রুর মোকাবিলা করতে যাচ্ছি আমরা।’

পুতিন প্রসঙ্গে : ‘আমি পুতিনকে চিনি না। কিন্তু আমার মনে হয়, যদি পুতনিকে পাশে পাই, তাহলে খুবই ভালো হবে। কারণ আমরা যৌথভাবে আইএসের বিরুদ্ধে লড়াই করছি।’

করের বিষয়ে : ‘হিলারি আপনাদের কর বাড়াবে। কর-হার বিশ্বে সবচেয়ে কমিয়ে আনব আমি।’

হিলারির সামর্থ সম্পর্কে : ‘তিনি ভালো যোদ্ধা, কখনোই যুদ্ধ ত্যাগ করেন না।’

আরো পড়ুন- দ্বিতীয় বিতর্কেও হিলারি জয়ী

হিলারি ক্লিনটনের গুরুত্বপূর্ণ উক্তি

ইমেইল বিতর্ক নিয়ে : ‘সেটি ছিল ভুল। এ দায় নিচ্ছি আমি। এমন কোনো প্রমাণ নেই- রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আমি বক্তিগত সার্ভার দিয়ে ব্যবহার করেছি।’

ট্রাম্পের ২০০৫ সালের অশালীন মন্তব্য নিয়ে : ‘আমরা মনে হয়, যারা এটি দেখেছেন, তাদের কাছে পরিষ্কার, তিনি কে, তা এতে ফুটে উঠেছে।’

আমেরিকার মহানতা প্রসঙ্গে : ‘আমরা মহান, কারণ আমরা ভালো। আমরা একে অপরকে শ্রদ্ধা করি। এ ধরনের আমেরিকারই নেতৃত্ব দিতে চাই আমি।’

আইআএস বিষয়ে : ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশগুলোকে সঙ্গে নিয়ে আমি আইএসকে প্রতিহত করতে চাই।… আমরা ইসলামের বিরুদ্ধে নই, আমরা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে।’

শরণার্থীদের প্রসঙ্গে : ‘আমাদের আরো ভেবে দেখতে হবে। যতটা কঠোর হওয়া উচিত ততটা হতে হবে।’

রাশিয়া ও সিরিয়া সম্পর্কে : ‘প্রেসিডেন্ট হলে আমি পুতিনের বিরুদ্ধে দাঁড়াব। সিরিয়া ও রাশিয়াকে যুদ্ধাপরাধের জন্য জবাবদিহির মুখোমুখি করব।’

ট্রাম্পের সন্তানদের সম্পর্কে : ‘আমি তাদের স্নেহ-শ্রদ্ধার চোখে দেখি।’

তথ্যসূত্র : রয়টার্স, টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইন।

আপনার মতামত জানানঃ