ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   কিভাবে তৈরি করবেন মজাদার কাঁকরোল ভর্তা

কিভাবে তৈরি করবেন মজাদার কাঁকরোল ভর্তা

জুলাই ২৮, ২০২০ - ৪:৩৭ অপরাহ্ণ
কাঁকরোল ভর্তা

কাঁকরোল সবজিটি অনেকেই খেতে চায় না। বিশেষ করে বাচ্চারা তো একদম খেতে চায় না। কাঁকরোলের ভর্তা করে দিন, দেখুন পরিবারের যেসব সদস্যরা এতদিন কাঁকরোল খায় নি তারাই কেমন তৃপ্তি করে খাচ্ছে। সাথে বাচ্চারাও পছন্দ করবে এই খাবারটি।

চলুন জেনে নেয়া যাক, কিভাবে তৈরি করবেন কাঁকরোলের ভর্তা-

উপকরণ
কাঁকরোল- ৪-৫টি
পেঁয়াজ কুঁচি- ১/২ কাপ
হলুদ গুঁড়া- ১/৩ চা চামচ
গুঁড়া মরিচ- ১/২ চা চামচ
কাঁচা মরিচ কুঁচি- ৩টি
সরিষার তেল- ১ চা চামচ
সয়াবিন তেল- ১ চা চামচ
ধনেপাতা কুঁচি- ১ চা চামচ
লবণ- পরিমাণমতো

প্রস্তুত প্রণালী
কাঁকরোলের খোসা ও বিচি ফেলে টুকরা করে নিন। আলু ও কাঁকরোল সেদ্ধ করে নিন। মাছ অল্প ভেজে কাঁটা বেছে নিন। সেদ্ধকাঁকরোল, আলু, কাঁটা ছাড়ানো মাছ ও মরিচ একসঙ্গে বেটে নিন। একটা পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ ও রসুন ভেজে তাতে কাঁকরোলের মিশ্রণ দিয়ে একসঙ্গে ভেজে নিন। ঠান্ডা হলে ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

কাঁকরোলের বৈজ্ঞানিক নাম হল – লুফা একিনাটা রক্সব্, তাই এটি এক ধরনের ছোট সবজি, যা সাধারণত গ্রীষ্মকালে ফলে। কাঁকরোল সম্ভবত ভারতীয় উপমহাদেশের বাইরে জন্মায়না। কাঁকরোলের বীজ কাঁকরোল গাছের নিচে হয়ে থাকে যা দেখতে মিষ্টি আলুর মত। কাঁকরোল একটি জনপ্রিয় সবজি ৷ এটি পুষ্টিকরও বটে ৷ এতে ক্যালসিয়াম, লৌহ, ফসফরাস, ক্যারোটিন, আমিষ, ভিটামিন-বি, শ্বেতসার ও খনিজ পদার্থ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে রয়েছে৷ বাংলাদেশে কুমড়ো পরিবারের যতো সবজি আছে তার মধ্যে কাঁকরোলের বাজার দর ও চাহিদা বাজারে অনেক বেশি৷ কাঁকরোল গাছ লতানো গাছ । স্ত্রী ফুল ও পুরুষ ফুল একই গাছে হয়না । তাই বাগানে দুই ধরনের গাছ না-থাকলে , পরাগ মিলন না-হলে , ফল হবেনা

বিভিন্ন মাটিতে মার্চ ও এপ্রিলে এ সবজির চাষ করা যায়। বাংলাদেশে বিভিন্ন এলাকায় কাঁকরোলের অনেক জাত দেখতে পাওয়া যায়৷ ফলের আকার, আকৃতি ও বর্ণ এবং নরম কাঁটার বৈশিষ্ট্য দ্বারা বিভিন্ন শনাক্ত করা যায়৷ ৯০-১০০ দিনের মধ্যেই এর ফলন পাওয়া সম্ভব। ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং কুমিল্লা এর অন্যতম প্রধান উৎপাদন এলাকা৷

এটি কন্দমূলের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করে। জমিতে রোপণের সময় ১০ শতাংশ পুরুষ গাছ রাখতে হয়।

আপনার মতামত জানানঃ