ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আন্তর্জাতিক   »   কাশ্মীরে সেনাঘাঁটিতে প্রাণঘাতী হামলা: পাকিস্তানের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দেওয়ার দাবি উঠেছে ভারতে

কাশ্মীরে সেনাঘাঁটিতে প্রাণঘাতী হামলা: পাকিস্তানের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দেওয়ার দাবি উঠেছে ভারতে

September 19, 2016 - 12:22 PM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : কাশ্মীরে সেনাঘাঁটিতে প্রাণঘাতী হামলার পর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে উপযুক্ত জবাব দেওয়ার দাবি উঠেছে ভারতে।

ভারত-নিয়ন্ত্রিক কাশ্মীরের উরিতে সেনা ব্রিগেডের সদর দপ্তরে হামলায় ১৭ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার পর দেশটির জনগণ, রাজনৈতিক মহল ও সামরিক বাহিনীর মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।

সেনাঘাঁটিতে হামলার জন্য প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে পাকিস্তানকে দায়ী করছে ভারত সরকার ও জনগণ। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জোরালো হচ্ছে।

এদিকে উরি সেনাঘাঁটিতে হামলার জবাব কী হতে পারে, তা নিয়ে ভারতে সোমবার কয়েকটি উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভাপতিত্বে শীর্ষ মন্ত্রীদের নিয়ে বৈঠক হচ্ছে। এ বৈঠকে যোগ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিকর, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, সেনাপ্রধান দলবির সিং সুহাগ এবং উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।

পাকিস্তানে অনুষ্ঠেয় সার্ক সম্মেলনে মোদি যাবেন কি না, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ উরি হামলার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তুলে ধরবেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে। এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা এএনআই।

সেনাঘাঁটিতে হামলায় নিহত সেনা এস কে বিদার্থীর মেয়ে রোববার দাবি করেন, পাকিস্তানকে দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে। আরেক নিহত সেনার বাবার দাবি, সন্ত্রাসী ও এর মদদদাতাদের কোনো ছাড় দেওয়া যাবে না।

একই ভাষায় কথা বলছেন ভারতের সাধারণ মানুষ। টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, সবার মুখেই যেন এক কথা, পাকিস্তানকে সমুচিত জবাব দেওয়া হোক।

কারগিল যুদ্ধে প্রয়াত ক্যাপ্টেন সৌরভ কালিয়ার বাবা অভিযোগ করেছেন, সন্ত্রাসের পৃষ্ঠপোষকদের বিরুদ্ধে ভারত যথেষ্ট পদক্ষেপ নিতে পারেনি। তিনি বলেন, ‘আমাদের মাটিতে এ ধরনের দুর্ঘটনা দেখা খুবই বেদনাদায়ক।’

বিজেপি সরকারের মধ্যেও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জোরালো হচ্ছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের মধ্যে শুধু ভি কে সিং সমঝে চলার নীতির কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন, ‘আবেগের বশবর্তী হয়ে আমাদের কোনো পদক্ষেপ নেওয়া ঠিক হবে না। প্রধানমন্ত্রী শিগগির বসে ঠিক করবেন, কীভাবে আমাদের এগোতে হবে।’

হামলার পর এক প্রতিক্রিয়ায় রাজনাথ সিং বলেন, ‘পাকিস্তান সন্ত্রাসী রাষ্ট্র।’ এ হামলার জন্য তিনি পাকিস্তানকে দায়ী করেন। বিষয়টি উড়িয়ে দিয়ে পাকিস্তান সোমবার প্রতিক্রিয়ায় বলেছে, ভারতের অভিযোগ ভিত্তিহীন। ঘটনার তদন্ত না করেই তারা এ ধরনের বেপরোয়া কথা বলছে। সোমবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে ভারতের অভিযোগকে প্রত্যাখ্যান করেছে।

অপরদিকে সোমবার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় ১৭ সেনার শেষকৃত্যের অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ