ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   কালকিনিতে সরকারী গাছ কেটে নিল ইউপি চেয়ারম্যান

কালকিনিতে সরকারী গাছ কেটে নিল ইউপি চেয়ারম্যান

October 4, 2016 - 1:03 PM

এম এ হান্নান বরিশাল  ব্যুরো:

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের বাঁধাকে উপেক্ষা করে মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার সাহেবরামপুর এলাকায় ৩ লক্ষাধিক টাকার রেইনট্রি গাছ কেটে নিল ওই এলাকার প্রভাবশালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল আহসান সেলিম। এতে করে ওই এলাকার সাধারন মানুষের মাঝে এবং ওই উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে এ গাছ কাটার ঘটনায় তার বিরুদ্ধে কেউ প্রকাশ্যে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না এলাকাবাসী। গত শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনাটি ঘটেছে।এলাকা ও উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র সুত্রে জানাগেছে, সাহেবরাপুর উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভিতরের জায়গা থেকে শতবর্ষী ৫টি রেইনট্রি গাছ পেশী শক্তিবলে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল আহসান সেলিম তার লোকজন দিয়ে কেটে নিয়ে যায়। যার মূল্যে হবে আনুমানিক ৩ লক্ষাধিক টাকা। তবে বিষয়টি নিয়ে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষরা গাছ কাটতে বাঁধা দিলে উল্টো হুমকি-ধামকি দেন ওই ইউপি চেয়ারম্যান। অপরদিকে এবিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরকে অবহিত করা হলে তাদের মাঝেও চড়ম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এবং স্থানীয় সাধারন মানুষের মাঝে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। 3এব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল আহসান সেলিম তার ক্ষমতা বলে ওই উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জায়গার গাছগুলো কেটে নিয়ে গেছে। এব্যাপারের সাহেবরামপুর উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী হাবিবুর রহমান বলেন, আমরা ওই গাছ কাটতে বাঁধা প্রদান করেছি তিনি বাধা মানেননি। এব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর দায়িত্বপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত আরএমও রেজাউল করিম বলেন, আমাদের গাছ কেটে নিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনা সত্য। তবে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমির সমস্ত কাগজপত্র দেখে ইউএনও স্যারকে বিষয়টি অবগত করবো। এব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল আহসান সেলিম বলেন, আমি জেলা পরিষদের অনুমতি নিয়েই গাছ কেটেছি। এব্যাপারের কালকিনি থানার ওসি কৃপা সিন্দু বালা বলেন, বিষয়টি শুনেছি তবে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এব্যাপারের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ শাম্মী আক্তার বলেন, বিষয়টির ব্যাপারে আমি অবগত আছি উল্লেখ্য যে এর আগেও সাহেবরামপুর বাজারের পাশের একটি সরকারী খাল ভরাট করে মার্কেট নির্মানের চেষ্টা চালায় ঐ চেয়ারম্যান। এ নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় খবর প্রকাশ হলে সরকারী খাল ভরাট থেকে পিছনে ফিরে আসে চেয়ারম্যান । এর পর আবার অবৈধ ভাবে সরকারী গাছ কেটে নিয়ে গেছে।###

আপনার মতামত জানানঃ