ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »    “কাউছার আর নেই”

 “কাউছার আর নেই”

September 8, 2016 - 3:49 PM

হাসানুল হক: রাজধানী উত্তরখান ইউনিয়নে পূর্ব শক্রতার জের ধরে গত সোমবার একযুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে নিহত যুবকের নাম মোঃ কাউছার বেপারী (২৫) সে উজামপুর গ্রামের আলহাজ্ব আবু সাঈদ বেপারীর পুত্র এর াগে গত ৩১/০৮/২০১৬ ইং বুধবার সকালে ১১:৩০ মি: এর সময় কিছু যুবগ পূর্ব তেকে ওৎপেতে থেকে পরিকল্পত ভাবে সিদ্দারটেক গোবিন্দাপুর এলাকায় বেদড় মেরে যখম করে পানিতে পেলে দেন। শতশত স্থায়ীয় এলাকা বাসি জানান কাউছার দীর্ঘ দিন উজামপুর গ্রামে ব্যাপারী সাউন্ড সিন্টেম নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। সে নিরিবিলি এলাকাতে ব্যবসা করেন। কাউছার অতি শান্ত ভদ্র সভাবের ছেলে ছিলেন কারও সাথে জগড়ায় লিপ্ত হতে কখনো দেখি নাই। আমরা সবাই আদর করে বিভিন্ন নামে ডাকতাম হাসি মুখে সবার সাথে কথা বলতো আমরা এর সঠিক বিচার চাই এবং মোহাম্মদ রতন মিয়ার ছেলে মোতাহার হোসেন শিপন এর ফাসি চাই। নিহত কাউছার এর বড় ভাই আছেদ মিয়া জানান আমার ছোট ভায়ের উজামপুর গ্রামে ব্যাপারী সাউন্ড সিস্টম নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে। সে নিজেই ৫/৬ জন কর্মচারী সহায়তায় উক্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করিত। গঠনার দিন ৩১/০৮/২০১৬ ইং বেলা আনুঃ ১১:৩০ মিনিট উজামপুর থেকে তাহার ব্যবহৃত মটর সাইকেল ঢাকা মেট্রো ১৭-৫০৩৬ জোগে উক্ত প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ফরজুল (২৮) কে সঙ্গে করে সিদ্দারটেক গবিন্দপুর পৌছা মাত্র ওৎ পেতে থাকা রতন মিয়ার ছেলে মোতাহার হোসের শিপন (৩৮) ইমরান (৩৫) পিতা- মৃত নাছির উদ্দিন, মোঃ মামুন মিয়া (২৬) পিতা- মোঃ মারফত আলী, জয়নাল (২৮) পিতা- মোঃ আমজাদ আলী, মোঃ আযনাল হক (২৫), বাপ্পি হাসান (২৩) পিতা-মোঃ ছামসুল কসাই, ইমাম আলী (৩২) মোঃ আনোয়ার হোসেন (৩৭) পিতা- মোঃ নাছির উদ্দিন, মোঃ আবির হোসেন, (২৫) পিতা- মোঃ আমজাদ আলী, সুজন মিয়া, পিতা- মারফত আলী, মোঃ মিঠু (৩০) পিতা- মো: রতন এরা সবাই শিপন এর নেতৃত্বে আমার ভাই কাউছার এর মটর সাইকেলে গতিরোধ করে হঠাৎ করে এলোপাতারি ভাবে লাটি সোটা চাপাতি লোহার রড দিয়া বেদড় জখিম করে রাস্তা পেলে বুকের উপর পাড়াইয়া মুরাইয়া পিটাইয়া মারাতœক ভাবে জানোয়ারের মত জখম করে এই সময় সঙ্গী ফরজুল অনেক কষ্টে কাউছারের মটর সাইকেলে নিয়ে নিজের জীবন বাচায়। কাউছার এর আতœচিৎকারে আসে পাশের লোকজন ছুটিয়ে আসলে হামলা কারীরা পাশে বিলের পানিতে ফেলে চলে যায়। সকাল ১১:৩০ মিনিটে এর সময় আমার ছোট ভাই জহিরুলের মঠোফোনে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি, ফোন করলে জহিরুল, ভাই কে উদ্ধার করে টংগী সরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমীক চিকিৎসা করে বাসায় নিয়ে আসে। পর্যাক্রমে অবস্থার অবনতি দেখে ০৩/০৯/২০১৬ইং তারিখে শুক্রবার রক্তবমি করতে শুরু করলে দ্রুত তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এর উদ্দেশ্যে রওনা হইলে মহাখালি পৌছাইলে কাউছার জ্ঞান হারিয়ে ফেলে তাতখনিক দ্রুত মহাখালি আয়েশা মেমোরিয়াল এন্ড কার্ডিয়াক হাসপাতালে নিয়ে যাই। কর্তব্য চিকিৎসক কাউছারকে আইসিইউতে ভর্তি করে লাইফ সার্পোট দেন। ০২ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ০৫/০৯/২০১৬ইং তারিখ সোমবার সকালে আনু ১০:৩০ মিনিট এর সময় ডাক্তার মৃত ঘোষনা করেন। নিহত কাউছার এর ভাই আসেদ মিয়া ০৫/০৯/২০১৬ইং তারিখে ১১ জন কে আসামি করে উত্তরখান থানা মামলা করেন। যাহার নং- ০৫ আসেদ মিয়া বলেন আমার ভাইয়ের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করছি।
নির্বযোগ্য সূত্রে যানা যায় নিহত কাউছার এর সাথে এক নং আসামি শিপন এর সথে জায়গা জমি নিয়ে দন্দ্ব হয়।

নিহত কাউছারে মরদেহ মেডিকেল থেকে ০৫/০৯/২০১৬ইং তারিখ সোমবার তার নিজ বাড়ী উজামপুর বেলা ১২টার দিকে নিয়ে আসেন, ১২:৩০ মিনিটের সময় ঢাকা ১৮ আসনের এমপি সাবেক সরাষ্ট্র মন্ত্রী, ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগে মন্ত্রী এ্যাডঃ সাহারা খাতুন দেখতে আসেন। কাউছার এর অকাল মৃত্যুতে তার আতœার মাগফিরাত কামনা করেন এবং জগন্য তম কাজের নিন্দা জানান প্রত্যেক আসামিদের দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করেন।

ঢাকা উত্তর ডিসি বিধান ত্রিপুরা গত ০৭/০৯/২০১৬ ইং তারিখে উত্তরখানর অসিকে সকল আসামিদের গ্রেফতার করার নির্দেশ দেন। উত্তরখান ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বলেন ঘটনা সত্য আমি এর দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করি।

উত্তরখানর অফিসার্স ইনচার্জ (অসি) বলেন বিষয়টা সততা নিশ্চিত করেন এবং গ্রেফতারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
উক্ত রিপোট লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয় নাই।

আপনার মতামত জানানঃ