ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ধর্ম   »   কল্যাণময় জীবন

কল্যাণময় জীবন

অক্টোবর ২৪, ২০২০ - ৯:১৮ অপরাহ্ণ

আমরা আমাদের জিবনে ছোটখাটো ভুল, পাপ ও গোনাহগুলোকে কোনো গুরুত্ব দেই না। মনে মনে ভাবে এ আর এমন কী? অথচ ছোট ছোট ভুলগুলোই কিন্তু ধীরে ধীরে একত্রিত হয়ে তা পাপের স্তুপে পরিণত হয়! আমরা যে পাপগুলোকে আলাদাভাবে ছোট কিংবা তুচ্ছ মনে করছি, সেগুলোকে একত্রিত করে হিসাব করলে দেখা যাবে যে, পাপের এক বিশাল পাহাড় গড়ে উঠেছে।

আলেমরা বলেন, পাপ মানুষের অন্তর্দৃষ্টি ও বিবেককে হত্যা করে এবং মানুষের হৃদয়কে করে কালিমালিপ্ত। ফলে মানুষের আত্মা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অন্যদিকে একজন মানুষ আল্লাহ সম্পর্কে যত বেশি সচেতন হয়, ততই তিনি পাপ থেকে দূরে থাকেন।

বস্তুত অধিকাংশ মানুষ দুনিয়ার আনন্দ ও ভোগসামগ্রীকে ভালোবাসে। এটা যে খুব দোষের তা কিন্তু নয়, তবে যখন চাওয়াটা সীমা ছাড়িয়ে যায়, তখনই দেখা দেয় বিপত্তি। যা নিয়ন্ত্রণের কথা বলে ইসলাম। ইসলাম মনে করে, কোনো ব্যক্তি যদি লাগামহীন মাত্রায় ভোগ বিলাসে মত্ত হয় তাহলে সে ব্যক্তি তার আধ্যাত্মিক ও শারীরীক স্বাস্থ্য ধবংসের পাশাপাশি অন্যদের অধিকার স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুন্ন করে থাকে। তাই এ বিষয়ে মানুষের সতর্ক পদক্ষেপ কাম্য।

পরম করুণাময় আল্লাহ ক্ষমাশীল। তিনি সর্বদা বান্দাদের জন্যে ক্ষমা প্রার্থনার পথ প্রসারিত করে রেখেছেন। সত্যিকারের তওবার অর্থ হলো পুনরায় ওই ভুল আর না করা। আল্লাহতায়ালা প্রকৃত তওবাকারী অনুতপ্ত বান্দাকে খুব ভালোবাসেন। বাবা মা তাদের সন্তানকে যেমন ভালোবাসেন পরম করুণাময় আল্লাহ তার সৃষ্টিকে তার চেয়েও অনেক অনেক গুণ বেশি ভালোবাসেন।

এ প্রসঙ্গে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ইমানদার হোন এবং সব সময় আল্লাহকে স্মরণ করুন। কখনও পাপ করলে সঙ্গে সঙ্গে অনুতপ্ত হোন এবং আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করুন।

বলা হয়েছে, মানুষ যদি ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে মাটিতে প্রোথিত খুঁটির মতো নামাজে দাঁড়িয়ে থাকে অথবা রোজা রাখতে রাখতে শীর্ণকায় হয়ে যায়- তাহলেও ধার্মিক না হওয়া পর্যন্ত এবং পাপকাজ থেকে বিরত না হওয়া পর্যন্ত তার ইবাদত কবুল হয় না। তাই এটা স্পষ্ট যে, ইসলাম ইবাদতের লক্ষ্যেই মানুষকে সুশিক্ষিত করে এবং সুস্থ সমাজ গড়ে তোলে। আর মানুষের আত্মাকে বিশুদ্ধ করার জন্যেই বিনম্র ও একাগ্র ইবাদত বেশি জরুরী।

আপনার মতামত জানানঃ