ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   কলেজ শিক্ষার উন্নয়নে ৭৫০ কোটি টাকা ঋণ

কলেজ শিক্ষার উন্নয়নে ৭৫০ কোটি টাকা ঋণ

September 8, 2016 - 2:45 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : কলেজ শিক্ষার উন্নয়নে ১০ কোটি মার্কিন ডলার (প্রায় ৭৫০ কোটি টাকা) ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) অতিরিক্ত সচিব কাজী শফিকুল আযম এবং বিশ্বব্যাংকের পক্ষে ঢাকা অফিসের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর জাহিদ হোসেন চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে জানানো হয়, কলেজ এডুকেশন সাব-সেক্টরের অধিকতর উন্নয়নের কৌশলগত পরিকল্পনা তৈরিকরণ, সাব-সেক্টরের ব্যবস্থাপনা শক্তিশালীকরণ, অনার্স ও মাস্টার্স কোর্স পরিচালনাকারী সংশ্লিষ্ট সরকারি-বেসরকারি কলেজগুলোর টিচিং-লার্নিং পরিবেশ উন্নত করা, প্রকল্প বাস্তবায়নকালীন সংশ্লিষ্ট কলেজগুলোতে প্রতিযোগিতামূলক অর্থায়ন নিশ্চিতকরণে কার্যকর মনিটরিং ও ইভাল্যুয়েশন ব্যবস্থা সৃষ্টি করা, কলেজের শূন্য পদে নিয়োগ প্রদান নিশ্চিতকরণসহ শিক্ষক নিয়োগ, দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণ এবং ব্যবস্থাপনা উন্নত করা হবে।

প্রকল্পটি সরকারি কলেজগুলোর ২ হাজার ৭০০ শিক্ষকের শূন্য পদ পূরণ করতে সাহায্য করবে। এ প্রকল্প শিক্ষকদের উন্নয়নে সাহায্যে করবে এবং জাতীয় প্রশিক্ষণ সংস্থা ও নটিংহ্যাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় প্রশিক্ষণ সংস্থা স্থাপনের মাধ্যমে প্রায় ৮ হাজার কলেজ শিক্ষক ও পরিচালকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে এবং বিশ্বের সেরা শিক্ষক প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করবে।

চুক্তি স্বাক্ষর শেষে জাহিদ হোসেন বলেন, শিক্ষা খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। মোট বরাদ্দের ১৯ শতাংশ ঋণ দেওয়া হচ্ছে শিক্ষা খাতে। আগে প্রাইমারি ও মাধ্যমিক শিক্ষা খাতে সহায়তা দেওয়া হয়েছিল। এখন উচ্চ শিক্ষা, কারিগরি শিক্ষাসহ সব শিক্ষায় সহায়তা বাড়ানো হয়েছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুযায়ী, এই খাতে বিশেষ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, এ প্রকল্পে ডিআইএল (ডিসবার্সমেন্ট ইনডিকেটর লিংক) মেনে অর্থ ছাড় করা হবে। ভবিষ্যতে উচ্চ শিক্ষায় খাতভিত্তিক কর্মসূচি হাতে নেওয়ার লক্ষ্য রয়েছে। বর্তমানে স্বাস্থ্য ও প্রাইমারি শিক্ষায় এ ধরনের কর্মসূচি চালু রয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক ২০২১ সালের জুন মাসের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

আপনার মতামত জানানঃ