ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   করোনাকালেও রাজধানীতে জমজমাট হোটেল-রেঁস্তোরা

করোনাকালেও রাজধানীতে জমজমাট হোটেল-রেঁস্তোরা

আগস্ট ২৭, ২০২০ - ১১:০২ পূর্বাহ্ণ

আবারও জমজমাট রাজধানীর হোটেল-রেঁস্তোরাগুলো। টেবিলে টেবিলে আড্ডা, চলছে খাওয়া-দাওয়া। খাবার তৈরি আর পরিবেশনেও আগের মতোই অসতর্কতা। স্বাস্থ্যবিধির কথা উঠলেই ছুটছে অজুহাতের ফুলঝুড়ি। মেয়র অবশ্য হুঁশিয়ারি দিলেন, জননিরাপত্তায় শিগগিরই পরিচালিত হবে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

কোভিড-১৯ এর কারণে জনজীবনে যেমন প্রভাব ফেলেছে তেমনি নগরীর হোটেল-রেঁস্তোরাগুলো হারিয়েছিলো তার জৌলুস। ভাটা পড়েছিলো বেচাকেনায়। তবে পরিস্থিতির শিথিলতায় বেড়েছে ভিড়। ব্যবসায়ী কিংবা গ্রাহক উভয়ের মাঝেই স্বাস্থ্যবিধি মানতে অবহেলা ছিলো চোখে পড়ার মত।

একজন কর্মকর্তা বলেন, মাস্ক এইমাত্র পড়ে গেছে, তাই ধুয়ে দিয়েছি।

এমন বাস্তবতায় সরকারি নির্দেশনা অমান্য করেই চলছে ছোট-বড় খাওয়ার হোটেল থেকে শুরু করে উঁচুমানের রেঁস্তোরাগুলো। খাবারের মান রক্ষা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠেছে, তেমনি স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই ছিল না হোটেল-রেঁস্তোরায়।

নিজেদের সচেতনতা নিয়েও আক্ষেপ ছিলো হোটেল রেঁস্তোরায় খেতে আসা গ্রাহকদের। ভিন্ন ভিন্ন যুক্তি ব্যবসায়ীদেরও। রেঁস্তোরা মালিক সমিতি অবশ্য নিজেদের স্বার্থেই নিয়ম মেনে হোটেল-রেঁস্তোরা পরিচালনার তাগিদ দিয়েছেন ব্যবসায়ীদের।

হোটেল-রেঁস্তোরা মালিক সমিতি মুখপাত্র আন্দালিব বলেন, আমাকেই নিজেকে সিকিউর রাখতে হবে। না হলে আমি নিজেও বিপদে পড়ছি।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, খাবার মান ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে সংশ্লিষ্টদের।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার কথা জানিয়ে সিটি মেয়র, আতিকুল ইসলাম বলেন, করোনার আগে আমরা যেরকম রেস্টুরেন্টগুলোতে ম্যাজিস্ট্রেট চালিয়ে তদারক করেছি, এখন আবার তা করতে হবে।

কোভিড পরিস্থিতি সামাল দিতে শুধু কর্তৃপক্ষ নয়, প্রয়োজন ব্যক্তি সচেতনতা।

আপনার মতামত জানানঃ