ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   কমলাপুর স্টেশনে নিরাপত্তা জোরদার

কমলাপুর স্টেশনে নিরাপত্তা জোরদার

September 7, 2016 - 7:13 AM

ঈদযাত্রা নিরাপদ ও ঝুঁকিমুক্ত করতে কমলাপুর স্টেশনে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

 

স্টেশনে পুলিশ ছাড়াও অন্যান্য আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা নানা বেশে অবস্থান নিয়ে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে। একই সঙ্গে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য কাজ শুরু করেছে রেলওয়ে জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও। দায়িত্ব পালন করছে গার্লস স্কাউটের সদস্যরাও।

 

বুধবার সকালে কমলাপুর রেলস্টেশনে কাজ শুরু করেছে ঢাকা রেলওয়ে নিরাপত্তা ও সেবা কেন্দ্র। তাৎক্ষণিক যে কোনো সেবা এবং প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে এই কেন্দ্র কাজ করছে। কমলাপুর স্টেশনে প্রবেশ মুখেই দায়িত্ব পালন করছে স্কাউটের সদস্যরা।

 

এ ছাড়া রেল পুলিশের ডিআইজি ও এডিশনাল ডিআইজির গাইডলাইন অনুযায়ী সর্বক্ষণ পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে বলেও জানা গেছে।

 

 

জানা গেছে, চট্টগ্রাম ও সৈয়দপুর জেলার বিভিন্ন জংশন ও স্টেশনে এই ঈদে দুই হাজার পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে। প্রতিটি ট্রেনে কমপক্ষে পাঁচজন পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবেন। কমলাপুর ও চট্টগ্রামসহ অন্যান্য স্টেশনে বাড়তি ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমলাপুর স্টেশন এলাকায় নিরাপত্তা দিচ্ছে।

 

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ঈদ উপলক্ষে ট্রেনে যাত্রীর সংখ্যা বাড়ছে। প্রতিদিন গড়ে ২ লাখ ৬০ হাজার যাত্রী পরিবহনের টার্গেট রয়েছে এবার রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের।

 

 

কমলাপুর রেল পুলিশের ডিআইজি অফিস সূত্র জানায়, কমলাপুর স্টেশনে প্রতিদিন ১৫ জন পুলিশ ও ছয়জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করেন। চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশনে প্রতিদিন ১৬ জন পুলিশ ও ৬ জন অঙ্গীভূত আনসারসহ মোট ২২ জন। রেল পুলিশের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, একজন সহকারী পুলিশ সুপার, ১৮ জন পরিদর্শক, ৩৯ জন এসআই, ৬১ জন এএসআই, ১৫ জন নায়েক ও ৫৪১ জন কনস্টেবলসহ ৭০৩জন। আর আনসার, আমর্ড পুলিশ (এপিবিএন), আনসার ব্যাটলিয়নসহ মোট ১২৭৪ জন চট্টগ্রাম রেলওয়ে রেঞ্জের ১৩টি জংশন ও ১৮টি জংশনে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে। এর মধ্যে প্রতিটি জংশনে সাতজন ও স্টেশনে ছয়জন নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে।

 

কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ঈদের ট্রেন যাত্রীদের নিরাপত্তায় সকল ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। রেল পুলিশের ডিআইজি, অতিরিক্ত ডিআইজি ও এসপি পদ মর্যাদার কর্মকর্তারা সর্বক্ষণ নিরাপত্তা তদারকি করে ও গাইডলাইন দেন। তাদের গাইডলাইন অনুযায়ী নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। রেল যাত্রীরা নিরাপদে যাতায়াত করতে পারে তার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

 

আপনার মতামত জানানঃ