ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   ওয়ানডে ক্রিকেটে যেসব পরিবর্তন আসতে পারে

ওয়ানডে ক্রিকেটে যেসব পরিবর্তন আসতে পারে

September 9, 2016 - 10:27 AM

ক্রীড়া ডেস্ক : টেস্ট ক্রিকেটকে দুই স্তরে ভাগ করে ফেলার পরিকল্পনা ভেস্তে গেলেও ওয়ানডেতে কাঠামোগত বেশ কিছু পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। অক্টোবরে ডারবানে পরবর্তী বোর্ড মিটিংয়ে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটি।

দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী হারুন লরগাত ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফোকে এসব নিশ্চিত করেছেন।

নতুন নিয়মে দ্বিপক্ষীয় ওয়ানডে সিরিজগুলো হবে ২০২৩ বিশ্বকাপের জন্য অলিখিত একটা বাছাইপর্ব। আইসিসির ওয়ানডে স্ট্যাটাস পাওয়া ১৩টি দেশ তিন বছরে একে অন্যের সঙ্গে অন্তত একটা করে সিরিজ খেলবে। বিশ্বকাপে কারা খেলবে সেটা ঠিক হবে এই সিরিজগুলোর ফলের হিসাবে। শেষ বছরে যেসব দল বিশ্বকাপে সরাসরি অংশ নিতে পারবে না, তারা নিজেদের মধ্যে প্লে-অফ খেলবে।

একইভাবে টি-টোয়েন্টিতেও এই ধরনের পদ্ধতি চালু হতে পারে। তখন প্রতিটি ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ হবে তিন ম্যাচের করে। আর নতুন এই পদ্ধতি চালু হলে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মতো ছোট দলগুলো আরো বেশি সীমিত ওভারের ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকার মতো বড় দলগুলোর বিপক্ষে নিয়মিত খেলার সুযোগ পাবে।

একটি পরিবর্তন আসছে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও। নতুন নিয়মে এখনকার এফটিপি (ফিউচার ট্যুরস প্রোগ্রাম) বহাল থাকছে। দুই বছর পর পর র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দুই দল মুখোমুখি হবে। সেখান থেকে নির্ধারণ করা হবে চ্যাম্পিয়ন। সেটি নিরপেক্ষ ভেন্যুতে হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। এটি চালু হতে পারে ২০১৯ সালের দিকে।

দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী হারুন লরগাত বলেছেন, ‘সকল বোর্ড আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের উন্নতির জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। এর সেরা সমাধান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ।’ সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘এটা পরিষ্কার যে, কিছু সদস্য দেশ দুই স্তরের টেস্ট ক্রিকেট কাঠামোতে সমর্থন দেয়নি। তাই বিদ্যমান র‍্যাঙ্কিংয়ে একটি টেস্ট চ্যাম্পিয়ন বিকাশে আমাদের ভিন্ন উপায় বের করতে হবে।’

আপনার মতামত জানানঃ