ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   ওজন কমানোর সহজ অভ্যাস

ওজন কমানোর সহজ অভ্যাস

নভেম্বর ১৪, ২০২০ - ৪:০৩ অপরাহ্ণ

ওজন হ্রাস শুধুমাত্র ডায়েটিং কিংবা শরীরচর্চার ওপরই নির্ভর করে না। ওজন কমানোর লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য কিছুটা ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। তারমধ্যে অন্যতম একটি হলো জীবনযাত্রার অভ্যাসে ইতিবাচক পরিবর্তন আনা। বেশিরভাগ ছোট ছোট বিষয় যা আমরা প্রায়ই প্রতিদিন উপেক্ষা করি, সেগুলো ওজন কমানোর ব্যাপারে অনেক প্রভাব ফেলে। তাই হজমের ক্ষমতা বাড়াতে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রতিদিনের ক্রিয়াকলাপ সম্পর্কে আরও সচেতন হওয়া দরকার।

  • অত্যাধিক খাবার এড়িয়ে চলুন
    হালকা খাবার খাওয়ার সময় খেয়াল করুন যে, আপনি অত্যধিক মাত্রায় খেয়ে ফেলছেন না তো? বন্ধুর প্লেট থেকে একমুঠো স্ন্যাকস বা একটি স্যান্ডউইচ কিংবা এক কামড় বার্গার আপনার কাছে খুব বড় সমস্যা মনে না হতে পারে, তবে এটি আপনার ওজন কমানোর পরিকল্পনার পক্ষে মোটেও ভালো নয়। এটি দিনশেষে আপনার ক্যালরির পরিমাণ বাড়িয়ে তুলবে, যার ফলে আপনার ওজন কমানোর পরিকল্পনাকে বাধাগ্রস্থ হবে।
  • বেশি করে পানি পান করুন
    ডিহাইড্রেশন না-কি ক্ষুধার্ত সেই পার্থক্য বোঝাটা কঠিন।পর্যাপ্ত পানি পান না করলে আপনি ক্ষুধার্ত, বিরক্ত ও অলস বোধ করেন এমনকি মাথা ব্যথাও করতে পারে। তাই স্ন্যাকসের প্যাকেট খোলার আগে একগ্লাস পানি পান করে দেখুন যে আপনি সত্যিই ক্ষুধার্ত নাকি ডিহাইড্রেটেড। চাইলে বিভিন্ন শরবতও পান করতে পারেন পানির বদলে।
  • হাঁটাহাঁটি করুন
    আপনি খাওয়ার পরে কেবল বসে থাকার পরিবর্তে, ১৫ মিনিট একটু হাঁটাহাঁটি করুন। দুপুরের খাবার পরে হাঁটা আপনার ওজন হ্রাস করার জন্য কেবল উপকারীই নয় বরং এটি মিড-ডে ফ্ল্যামও প্রতিরোধ করবে। যত বেশি হাঁটবেন, তত বেশি ক্যালোরি খরচ হবে, মেজাজ উৎফুল্ল থাকবে এবং কাজে আরও মনোযোগী হবেন।
  • দুপুরের খাবার
    দুপুরের খাবার সময় সম্পূর্ণ মনোযোগ আপনার খাবারের দিকে দেয়া উচিত। সোশ্যাল মিডিয়া কোনো স্ক্রোলিং করা যাবে না, ইমেলের জবাব দেয়া বা টুইটার ফিড পরীক্ষা করা যাবে না। আপনার খাওয়ার জন্য বিকেলে যে ১৫ মিনিট সময় নেবেন তা কোনো বিঘ্ন ছাড়াই ব্যয় করা উচিত। অত্যধিক খাবার খাওয়ার অভ্যাস দূর করার এবং তৃপ্তি সহকারে খাওয়ার এটিই একমাত্র উপায়। দু’টি অভ্যাস যা সাধারণত ওজন বৃদ্ধির সাথে জড়িত। আপনি যখন ওজন কমানোর চেষ্টা করবেন তখন খাবার একা খাওয়াই ভালো।
  • সময় মতো খাওয়া
    আপনি যখন কাজের চাপে আটকে যান তখন ক্ষুধার দিকে নজর থাকে না। বেশিরভাগেরই জানা নেই যে, এটি কিছুক্ষণ পরে ক্ষুধা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে এবং আপনি অতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করতে পারেন। এটি রোধ করতে সময় মতো পরিকল্পনা করে খাবার খেতে হবে তিনটি প্রধান মিলের মাঝে ছোট ছোট বিরতি নিয়ে কিছু হালকা খেতে পারেন।

আপনার মতামত জানানঃ