ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  সারা বাংলা   »   ঐতিহ্যবাহী কালীগঙ্গা নদী

ঐতিহ্যবাহী কালীগঙ্গা নদী

সেপ্টেম্বর ১, ২০২০ - ১২:২৭ পূর্বাহ্ণ

তৌফিকুল ইসলাম খানঃ কালীগঙ্গা নদী বাংলাদেশের উত্তর- কেন্দ্রীয় অন্ঞল মানিকগঞ্জ ও ঢাকা জেলার একটি নদী। পাশের জেলা টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলায় যমুনা থেকে ধলেশ্বরী নদীর উৎপত্তি। সেখান থেকে এই নদীটি মানিকগঞ্জের ঘিওর, সাটুরিয়া দিয়ে বেউথা ও সিঙ্গাইর উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বুড়িগঙ্গায় মিলেছে। নদীটির দৈর্ঘ ৭৮ কিলোমিটার এবং গড় প্রস্থ ২৪২ মিটার।

একসময় নদীটি অনেক বড় ও স্রোতময় ছিল। এ নদীকে কেন্দ্র করে ১৯৬২ ইং হতে ১৯৭৮ ইং পর্যন্ত এখানে ছোট-বড় অনেক মালবাহী জাহাজ ভীরতো। এই এলাকায় নিম্ন আয়ের মানুষের বসবাস ছিল।ঘোড়ার গাড়িই ছিলো তাদের প্রধান আয়ের উৎস। জাহাজ হতে মালামাল খালাশ করে ঘোড়ার গাড়িতে বিভিন্ন থানার হাট-বাজার গুলোতে পৌছে দেয়া হতো।

কালের বিবর্তনে সেই নদী আজ বিলিন হওয়ার পথে। এই নদীর কোল ঘেঁষে অধিকাংশ হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস। জয়নগর অান্ধারমানিক্র জেলে পাড়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষগুলো এই কালীগঙ্গা নদীর উপর নির্ভরশীল। নদীই তাদের জীবিকার প্রধান উৎস। এই নদীতে মাছ ধরে তা আঁশে পাশের হাট-বাজারে বিক্রয় করে তারা জীবিকা নির্বাহ করে।

বর্ষার মৌষুমে কালীগঙ্গা নদীর পানি যখন কানায় কানায় ভরে উঠে দেখে মনে হয়, নদী তার পূর্ন যৌবন ফিরে পেল। এই পানিকে ঘিরে বহু রকম মানুষের মনে ভিন্ন ভিন্ন চিন্তা তৈরী হয়।যেমন-

জেলেদের চিন্তা পানি বেশীদিন থাকলে, তাদের জীবিকার পথ বেড়ে যাবে।

ভ্রমন পিপাসুদের চিন্তা, পরিবার নিয়ে নদীপথে নৌকা ভ্রমন করবে, নৌকা নিয়ে বনভোজনে যাবে।

ব্যাবসায়ীরা চিন্তা করে কম খরচে পানি পথে মালামাল এক স্থান হতে অন্য স্থানে নেবার।

আর গরীব কৃষকের চিন্তা, বেশীদিন পানি থাকলে, মৌষুমি ফসল ঘরে তুলতে না পারলে পরিবার নিয়ে কিভাবে সংসার চলবে আরে কতো রকম চিন্তা ভাবনা।
কথায় আছে, করো আষাঢ় মাস, কারো বা সর্বোনাশ।

বন্যার পানি কমতে থাকলেই চলে নদী ভাঙ্গা-গড়ার খেলা। প্রকৃতির এ নিয়মকে খন্ডানো দায়। প্রতি বছর কারো না কারো ভিটে-বাড়ি নদীর গর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে।

এদিকে কতিপয় ব্যাবসায়ীরা সরকারের কাছ থেকে ইজারা নিয়ে “বালু মহল”এই নদী হতে বছরের পর বছর ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করেই যাচ্ছে। এই অনিয়ন্ত্রিত ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে বালু উত্তোলনের ফলে কালীগঙ্গা নদীর পারের অসহায় মানুষ গুলো হুমকির মুখে পরছে। সরকার এইসব অনিয়ন্ত্রিত ড্রেজারে বালু উত্তোলন দ্রুত বন্ধ করে, নদী খননের কাজ হাতে না নিলে, নদী ও নদীর পারের মানুষ গুলো হুমকির মুখে পরবে। চির চেনা কালীগঙ্গা নদীর পূর্ব ঐতিহ্য ধরে রাখা যাবে না। আমাদের মানিকগঞ্জ নদীর পারের মানুষের একটাই দাবী ঐতিহ্যবাহী কালীগঙ্গা নদীকে বাঁচাও । নদী বাচলে নদীর পারের মানুষও বাঁচবে।

আপনার মতামত জানানঃ