ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  রাজনীতি   »   এবার জাগপা ভেঙে বিএনপি জোট ছাড়ল একটি অংশ

এবার জাগপা ভেঙে বিএনপি জোট ছাড়ল একটি অংশ

October 10, 2016 - 10:40 AM

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : এনপিপি, ন্যাপ ভাসানী, ইসলামী ঐক্যজোটের পর বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম দল জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা ভেঙে জোট থেকে বেরিয়ে গেল একটি অংশ।

দলটির সভাপতি শফিউল আলম প্রধানের বিরুদ্ধে দলে ‘একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও জামায়াত প্রীতি’এর অভিযোগ তুলে নতুন জাগপাও গঠন করেছে তারা। আর সেই দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে প্রধানকে।

একই সঙ্গে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের অনুভূতির বিরুদ্ধে ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনৈতিক দল জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন না করার কারণে ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে জাগপার সকল প্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা জানানো হয়েছে।

জাগপা ভেঙে যে নতুন কমিটি করা হয়েছে সেখানে সভাপতি করা হয়েছে মহিউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে, যিনি এর আগে জাগপার সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন হাজী মো. মুজিবুর রহমান অ্যাডভোকেট। তিনি এর আগে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

জানতে চাইলে জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান বলেন, ‘যারা এই কাজ করেছেন তারা আমার খুবই প্রিয় এবং দল ও আমার প্রতি আনুগত্য। তারা এটি করেছে এখনো আমি বিশ্বাস করি না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি মনে করি তাদের পেছনে বন্দুকের নল ধরে বা অন্য কোনো মাধ্যমে ব্যবহার করা হয়েছে। তবে বলে রাখি, কেউ যদি এমন খেলা খেলে কোনো লাভ নেই।’

শফিউল আলমের বিরুদ্ধে অভিযোগ সম্পর্কে জাগপার ভাঙা অংশের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন, ‘মুখে গণতন্ত্রের জন্য ফেনা তুললেও দলের ভেতর একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা, যুদ্ধাপরাধীর দায়ের অভিযুক্ত জামায়াতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ও মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তদের মুক্তির দাবি, নির্বাচনী রাজনৈতিক ব্যবস্থার বিপরীতে অবস্থান গ্রহণের কারণে শফিউল আলম প্রধানকে দলীয় সভাপতি পদ হইতে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।’

তিনি দাবি করেন, রোববার দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির দিনব্যাপী বর্ধিত সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এতে নতুন কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়। দ্রুততম সময়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি প্রকাশ হবে এবং নতুন কমিটির নেতৃত্বে সারা দেশে সাংগঠনিক সফরের মাধ্যমে জেলা কমিটিগুলো পুনর্গঠন করা হবে। আগামী বছরের ৪ এপ্রিল দলের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে।

সভায় মো. বোরহান উদ্দিন, আবুল কালাম আজাদ, সরদার আলাউদ্দিন, প্রিন্সিপাল হুমায়ূন কবিরকে সহসভাপতি, মো. ছানাউল্লাহ সানু, শিকার রফিকুল ইসলাম, মিজানুর রহমান চোকদার, মনির হোসেনকে যুগ্ম সম্পাদক, মুস্তাফিজুর রহমানকে সাংগঠনিক সম্পাদক, আসলাম মাতবরকে অর্থ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব প্রদান করা হয় বলে জানান মুজিবুর রহমান।

মুজিবুর রহমান বলেন, ‘একটি গণতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক ও নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের কোনো বিকল্প নাই। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে নির্বাচন বর্জন করে হিংসাত্মক আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটানোর সিদ্ধান্ত কোনো সুস্থ রাজনীতির পরিচয় নয়। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে প্রতিপক্ষের সমালোচনা করার রাজনৈতিক শিষ্টাচার মানা উচিত, যা শফিউল আলম প্রধান কখনো মানেননি।’

তিনি বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে জাগপা প্রতিষ্ঠিত হলেও বার বার শফিউল আলম প্রধান তা থেকে বিচ্যুত হয়েছেন। তিনি দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে দেশের যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করেছেন, যা লাখো শহীদের রক্তের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতার শামিল।’

‘দেশ-বিদেশের বন্ধু, শুভাকাঙ্ক্ষীদের আহ্বানের পরও বিএনপি যুদ্ধাপরাধীদের রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীকে জোট থেকে বের না করে বরং বিএনপি মহাসচিব, এমাজউদ্দিন আহমেদ ও জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখে প্রমাণ করেছে তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে নয়। বরং যুদ্ধাপরাধী জামায়াতকে রক্ষা করতেই ব্যস্ত,’ বলেন মুজিবুর রহমান।

এসব অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে শফিউল আলম প্রধান বলেন, ‘আমি জাগপার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। তারা আমার সঙ্গে ৫-৭বছর কাজ করছে। তাহলে হঠাৎ করে তাদের মনে হলো কেন যে, আমি দলে একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছি। দ্বিতীয়ত, আমি জামায়াতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা অস্বীকার করছি না। কারন তারাও ২০ দলীয় জোটের অন্যতম একটি দল। সেহেতু সংশ্লিষ্ট থাকতেই পারে। আর শুরু থেকেই আমি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে কথা বলছি। সেটি তো আকস্মিক নয়।’

জাগপার নতুন অংশের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘শফিউল আলম প্রধানের এসব কর্মকাণ্ড নিয়ে আমরা একাধিকবার সমাধানের জন্য চেষ্টা করেছি। কিন্তু তার অসহযোগিতায় সেটি সম্ভব হয়নি। সেজন্য শেষ পর্যন্ত আমরা নতুন জাগপা গঠন করেছি।’

১৯৯৯ সালের ৩০ নভেম্বর তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে বিএনপির নেতৃত্বে জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ঐক্যজোট এবং বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির সমন্বয়ে চারদলীয় জোট গঠন করা হয়। পরে নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনের এক পর্যায়ে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল চারদলীয় জোট সম্প্রসারিত হয়ে ১৮ দলীয় জোট হয়। জাগপা সেই জোটের অন্যতম দল। এরপর জোটটি ২০ দলীয় জোটে রূপ নেয়।

২০ দলীয় জোটের শরিকদের মধ্যে আটটি দলের নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধন নেই। এসব দলের কয়েকটি ‘সাইনবোর্ড বা নামসর্বস্ব’। ভাঙন আর দলাদলিতে জড়িয়ে পড়া এসব দলকে জোটে সম্পৃক্ত করায় বিএনপির ভেতরে যেমন অস্বস্তি আছে তেমনি অসন্তোষ রয়েছে জোটের উল্লেখযোগ্য শরিকদের মধ্যেও।

এর আগে সম্পর্কে টানাপোড়েনে ২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে যান শেখ শওকত হোসেন নিলুর নেতৃত্বে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি), শেখ আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে ন্যাপ-ভাসানীর একাংশ, আবদুল লতিফ নেজামীর নেতৃত্বাধীন ইসলামী ঐক্যজোট। এর সর্বশেষ সংযোজন জাগপা। তবে একটি অংশ বেরিয়ে গেলেও অপর অংশটি ঠিকই জোটে থেকে গেছেন।

আপনার মতামত জানানঃ