ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   ঋতুকালীন সময়ে ফাংশনাল ফুডের ভূমিকা

ঋতুকালীন সময়ে ফাংশনাল ফুডের ভূমিকা

নভেম্বর ২৭, ২০২০ - ১:১০ অপরাহ্ণ

ঋতুস্রাব প্রাকৃতিক বিষয় এবং এর মাধ্যমে একজন নারী যে সুস্থ আছেন তার ইঙ্গিত পাওয়া যায়, যদি না কোনো নারী গর্ভবতী হন, সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ান বা মেনোপজের পর অথবা এ সংশ্লিষ্ট চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকেন। এছাড়া, প্রতিমাসের একটি নির্দিষ্ট সময়ে মেন্সট্রুয়েশন হওয়াটাই স্বাভাবিক। তবে, বিশ্বব্যাপী অসংখ্য নারী, যারা অনিয়মিত পিরিয়ডে ভোগেন, এ সময় প্রচণ্ড ব্যথায় ভোগেন, যা গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যার ইঙ্গিত বহন করতে পারে।

পিরিয়ডে প্রধানত দুই ধরনের সমস্যা দেখা দেয় – প্রিমেনস্ট্রুয়াল সিন্ড্রোম (পিএমএস) এবং ডিসমেনোরিয়া। পিএমএস উপসর্গের মধ্যে আছে প্রচণ্ড মাথা ব্যথা, উদরস্ফীতি, ক্লান্ত বোধ করা, মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া প্রভৃতি। এছাড়াও, এ সময়ে নারীরা নানা শারীরিক ও মানসিক জটিলতায়ও ভুগতে পারেন, যেমন পেটে খিঁচুনি, আলো এবং শব্দে অসহনশীলতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া, ব্লাডার পেইন সিন্ড্রোম, বিষণ্ণতা, ক্ষুধা, ক্লান্তি, উদ্বেগ সহ অনেক কিছু। এমনকি পিএমএস অ্যাজমা, এলার্জি এবং মাইগ্রেনেরও উদ্রেক করতে পারে।

পিরিয়ডের আরেকটি সমস্যা হল ডিসমেনোরিয়া। এটি ঋতুস্রাবের ব্যথার সাথে সম্পর্কিত এবং পিরিয়ডকালীন জটিলতায় অনেক নারীই প্রতি মাসে ১-২ সপ্তাহ ধরে ডিসমেনোরিয়ায় ভোগেন। এর আবার দুই ভাগ আছে – প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি। প্রাইমারি ডিসমেনোরিয়া সাধারণত অল্পবয়সীদের ক্ষেত্রে দেখা দেয়। তবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে কিংবা সন্তান জন্মের পর এ ব্যথা কমে আসে।

পিরিয়ড একটি জৈবিক চক্র হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশসহ উন্নয়নশীল, স্বল্পোন্নত বা অনুন্নত দেশগুলোতে সামাজিক গোঁড়ামি ও সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গির কারণে প্রায়ই মেন্সট্রুয়েশনকে একটি গোপন ও লজ্জাজনক ব্যাপার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। পিরিয়ড সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবে আমরা অনেকেই জানি না কেন পিরিয়ড হয়, এবং এ সময়ে কীভাবে মেন্সট্রুয়াল পেইন বা ব্যথা কমানো যেতে পারে। প্রতি মাসে নারীদের ডিম্বাশয় থেকে একটি ডিম্বাণু বের হয়ে ডিম্ববাহী নালীতে পৌঁছে। একইসাথে তাদের জরায়ুতে রক্তসহ নরম একটি পর্দা তৈরি হয়। প্রতিমাসে একটি নির্দিষ্ট সময়ে রক্তের সাথে ডিম্বাণু যোনিপথে বেরিয়ে আসে। সাথে সাথে প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন্স নামক এক প্রকার লিপিডেরও নিঃসরণ হয়। এই লিপিড সাধারণত রক্তক্ষরণ রোধসহ নানা রোগ নিরাময়ে সহায়তা করে। প্রোস্টাগ্ল্যান্ডিন্স নিঃসরণের ফলে জরায়ুর রক্তনালী সংকুচিত হয়ে ব্যথা ও ক্র্যাম্পসহ অন্যান্য উপসর্গ তৈরি করে। গর্ভনিরোধক বা জন্ম নিয়ন্ত্রণ পিলের ব্যবহারে প্রোস্টাগ্ল্যানডিন্সের উৎপাদন ও নিঃসরণ কমাতে পারে। কিন্তু, যেকোনো ওষুধের নিজস্ব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। তবে এক্ষেত্রে একটি কার্যকরী সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে ফাংশনাল ফুড।

জাপানে প্রথম ১৯৮০ সালে ফাংশনাল ফুডের সূত্রপাত হয়, যেখানে সাধারণ জনগণের স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য সরকার নানা গবেষণার প্রেক্ষিতে এ সকল খাদ্য অনুমোদন করা শুরু করে। যুক্তরাষ্ট্রে ১৯৯৪ সালে ডায়েটারি সাপ্লিমেন্ট হেলথ অ্যান্ড এডুকেশন (ডিএসএইচইএ) অ্যাক্ট নামে যে আইন পাস হয় সেখানে ফাংশনাল ফুডকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। ফাংশনাল ফুড বায়ো-অ্যাক্টিভ উপাদান সমৃদ্ধ একটি খাদ্য। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্বাস্থ্য ও সুস্থতার জন্যে বিশ্বব্যাপী ফাংশনাল ফুড বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এটি মানবদেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশন বোর্ড, বায়ো-অ্যাক্টিভ উপাদান সমৃদ্ধ খাবারকে ফাংশনাল ফুড হিসেবে চিহ্নিত করেছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ফাংশনাল ফুডের ব্যাপারে জনসচেতনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং এসকল খাদ্য গ্রহণে ফলে অনেকেই, বিশেষ করে পিরিয়ডকালীন অবস্থায় নারীরা উপকৃত হচ্ছেন। কেননা, এসকল খাবারে প্রদাহ কমায়, রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি হার্টের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। তাছাড়া, দেহে এস্ট্রোজেনের পরিমাণ কমাতেও সহায়তা করে। পিরিয়ডকালীন অবস্থায় নারীদেহে এস্ট্রোজেনের পরিমাণ বেড়ে ব্যথার পরিমাণ আরো বাড়িয়ে দেয়। এক্ষেত্রে, ফাংশনাল ফুড গ্রহণে তাদের এস্ট্রোজেন কমিয়ে ও দেহে চর্বির পরিমাণ কমিয়ে আনতে পারে।

তবে, এর উপকারিতা সম্পর্কে বাংলাদেশের মানুষদের ধারণা নেই বললেই চলে। জনসচেতনতার জন্যে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রমে ফাংশনাল ফুডের অন্তর্ভুক্তির চেষ্টা করা হচ্ছে। বাংলাদেশের অর্গানিক নিউট্রিশন লিমিটেড বাংলাদেশ নামে একটি প্রতিষ্ঠান সারাদেশে ফাংশনাল ফুডের সুবিধা তুলে ধরার চেষ্টা করছে।

ফাংশনাল ফুডের বেশ কিছু স্বাস্থ্য সুবিধা আছে এবং বাংলাদেশের জনসাধারণের, বিশেষ করে নারীদের সুস্থতায় সহায়তা করবে। পাশাপাশি, পিরিয়ডকালীন ব্যথা প্রশমনে বিশেষ করে পিএমএস বা ডিসমেনোরিয়ার ক্ষেত্রে এর ভূমিকা নিয়ে ফাংশনাল ফুড সম্পর্কে জানা দরকার।

আপনার মতামত জানানঃ