ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ঈদে দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৬৫ জন

ঈদে দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৬৫ জন

September 21, 2016 - 8:42 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদুল আজহায় সড়ক, রেল ও নৌপথে ২১০টি দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৬৫ জন।

বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতি এ তথ্য জানিয়েছে। সংগঠনটি জানিয়েছে, এ সময়ে দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১ হাজার ১৫৩ জন।

বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজ্জামেল হক চৌধুরী এ তথ্য জানান। তিনি জানান, সংগঠনটির সড়ক দুর্ঘটনা মনিটরিং সেল এ প্রতিবেদন তৈরি করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতি বছর ঈদের সময় সড়ক দুর্ঘটনা আশংকাজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় গত তিন বছর ধরে বিষয়টি তারা পর্যবেক্ষণ করছে।

প্রতিবেদনের তথ্য তুলে ধরে মোজ্জামেল হক বলেন, গত ৭ সেপ্টেম্বর ঈদযাত্রা শুরু থেকে আবার ১৮ সেপ্টেম্বর কর্মস্থলে ফেরা পর্যন্ত ১২ দিনে সড়ক, রেল ও নৌপথে মোট ২১০টি দুর্ঘটনায় ২৬৫ জন নিহত ও ১ হাজার ১৫৩ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৯৫টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২৪৮ জন নিহত ও ১ হাজার ৫৬ জন আহত হয়েছেন। একই সময়ে আটটি নৌদুর্ঘটনায় ১০ জন নিহত ও ৩০ জন আহত এবং রেল দুর্ঘটনায় সাতজন নিহত, ৫০ জন আহত হয়েছেন।

অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো, ওভার টেকিং, মহাসড়কে রোড ডিভাইডার না থাকা, ট্রাফিক আইন না মানা, চালকদের বেপরোয়া মনোভাব, প্রশিক্ষণবিহীন চালক, রাস্তার বেহাল দশা, অতিরিক্ত যাত্রী বহন, যানবাহনের ত্রুটি ও যাত্রীদের অসচেতনাকে এই দুর্ঘটনার প্রধান কারণ মনে করছে যাত্রীকল্যাণ সমিতি।

ঝুঁকিপূর্ণ গাড়ি চলাচল বন্ধসহ দুর্ঘটনা রোধে বেশ কয়েকটি সুপারিশ করেছে সংগঠনটি।

সুপারিশগুলো হল- মহাসড়কে দ্রুতগতির ও ধীর গতির যানবাহনের জন্য পৃথক লেনের ব্যবস্থা, প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহন আইনে দুর্ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা, রোড সেফটি অডিট নিয়মিত করা, সড়ক-মহাসড়কে রোড ডিভা্ইডার স্থাপন করা, প্রশিক্ষিত চালক গড়ে তোলা, ওভারলোড নিয়ন্ত্রণে মানসম্মত পর্যাপ্ত গণপরিবহনের ব্যবস্থা করা, পাঠ্যপুস্তকে সড়ক ব্যবহার আইন অন্তর্ভুক্ত করা, ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু আধুনিকায়ন করা, নসিমন-করিমন বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়া, ফিটনেসবিহীন যানবাহন বন্ধে উদ্যোগ নেওয়া, ঈদে বিভিন্ন শিল্পে রেশনিং পদ্ধতিতে ছুটির ব্যবস্থা করা, যা্নবাহনের ফিটনেস পদ্ধতি ডিজিটাল করা, সড়ক দুর্ঘটনার মামলা তদন্তে পুলিশ বাহিনীতে আলাদা ইউনিট করা, যাত্রী সচেতনতা সৃষ্টি করা, মালিক কর্তৃক প্রতিদিন গাড়ি রাস্তায় নামার পূ্র্বে ফিটনেস পরীক্ষা করা ইত্যাদি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন দুদকের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির কার্যকরী সভাপতি রুস্তম আলী খান, যাত্রীকল্যাণ সমিতির মনিটরিং সেলের সদস্য সামসুদ্দীন চৌধুরী, এম মিলাদ উদ্দিন মুন্না প্রমুখ।

আপনার মতামত জানানঃ