ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   ই-ভ্যালীর পর্যালোচনায় ৭ সদস্যের কমিটি গঠন

ই-ভ্যালীর পর্যালোচনায় ৭ সদস্যের কমিটি গঠন

সেপ্টেম্বর ২, ২০২০ - ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ
ই-ভ্যালীর পর্যালোচনায় ৭ সদস্যের কমিটি গঠন

ই-ভ্যালীর ব্যবসায় পদ্ধতি পর্যালোচনা করতে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) ৭ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে। ই-ক্যাবের সদস্য প্রতিষ্ঠান ইভ্যালী সম্পর্কে পত্রিকায় প্রতিবেদন এবং বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের তথ্য চাওয়ার আলোকে মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) এ কমিটি গঠন করে দেয় ই-ক্যাব।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ই-ক্যাব জানায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারজন শিক্ষক ও ই-ক্যাবের ১ জন প্রতিনিধি রয়েছেন এই কমিটিতে। এদের মধ্যে দুইজন পেমেন্ট বিষয়ে, একজন আন্তর্জাতিক ব্যবসায়, একজন ই-কমার্স স্ট্রেটিজিস্ট ও একজন ই-কমার্স গবেষক রয়েছেন। এছাড়া একজন আইনজ্ঞ এই কমিটিতে যুক্ত হয়েছেন।

ইতোমধ্যে কমিটি দুই-দফা বিভিন্ন কৌশলগত সভা করেছে। দুই একদিনের মধ্যে কমিটির সদস্যগণ ইভ্যালী অফিস পরিদর্শন করবেন, ইভ্যালীর সাথে কৌশলগত আলোচনা করবেন এবং কমিটি আগামী ১০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন পেশ করবেন।

বিশেষ করে ই-ভ্যালীর ব্যবসায় পদ্ধতি, এমএলএম সাম্ভাব্যতা, বিভিন্ন অফারের আইনগত দিক এবং ক্রেতা-ভোক্তাদের অভিযোগসমূহ খতিয়ে দেখবে এই কমিটি। এছাড়া এই কমিটিকে সহযোগিতা করার জন্য ই-ক্যাবের ৫ সদস্যের একটি সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়েছে। রিভিউ কমিটির প্রতিবেদনকে যাচাই বাছাই শেষে পর্যালোচনা কমিটি সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করবেন।

যেকোনো পরিস্থিতিতে ই-ক্যাব সকলের নিকট থেকে দায়িত্বশীল আচরণ প্রত্যাশা করছে। প্রত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে উত্থাপিত অভিযোগসমূহের তদন্ত কার্যক্রমকে ই-ক্যাব স্বাগত জানায়।

ই-ক্যাব সকল সদস্য প্রতিষ্ঠানকে এই মর্মে আহবান জানাচ্ছে, তারা যেন দেশের আইন, সরকারী বিধান, কোম্পানী আইন, ডিজিটাল কর্মার্স নীতিমালা, কম্পিটিশন কমিশনের বিধিমালা, ভোক্তা অধিকার আইন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশনা, বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সংক্রান্ত বিধি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিধিবিধান ও ই-ক্যাবের নিয়মনীতি মেনে চলে এবং ক্রেতা সাধারণের দাবীর প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে। ক্রেতা সাধারণকে দেশের প্রচলিত আইন কাঠামোর উপর আস্থা রেখে তাদের অভিযোগ ও তার সমাধানের পরামর্শ দেয় ই-ক্যাব।

আপনার মতামত জানানঃ